এমপি হিসেবে শপথ নিলেন জাপার শেরীফা কাদের

আগের সংবাদ

ট্রাকের ধাক্কায় দুমড়েমুচড়ে গেলো ১২ টি গাড়ি, নিহত ১

পরের সংবাদ

পাটুরিয়ায় ফেরি উদ্ধারে হাজির ডুবুরি দল

প্রকাশিত: নভেম্বর ১, ২০২১ , ৭:১৭ অপরাহ্ণ আপডেট: নভেম্বর ১, ২০২১ , ৭:১৭ অপরাহ্ণ

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে ডুবে যাওয়া ফেরি আমানত শাহ উদ্ধারে বেসরকারী সংস্থা জেনুইন এন্টার প্রাইজ লিমিটেড এর ডুবরী দল পাটুরিয়া ঘাটে এসে হাজির হয়েছে।

সোমবার (১ নভেম্বর) সকালের দিকে পাটুরিয়া ঘাটে ফেরি উদ্ধারের জন্য ৫০ সদস্যর একটা টিম দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

জেনুইন এন্টারপ্রাইজ প্রাইজ লিমিটেড এর ডুবরি দলেন প্রধান আব্দুর রহমান বলেন, রবিবার বিকেলে নির্দেশ পেয়ে আমরা চট্টগ্রাম থেকে রওনা দিয়ে সোমবার ভোরে পাটুরিয়া ঘাটে হাজির হয়েছি।

তিনি বলেন, নদী পথে আমাদের নিজস্ব ৬টি উইন্স ভার্জে ৬টি পল্টন সহ আসছে ৬ ইঞ্চি ওয়ার। প্রতিটি পল্টন ওয়েট টানবে চারশো টন। আমাদের ডুবরিদল সহ তিন ইঞ্চি ওয়ার ঘাটে আসা মাত্র আমাদের প্রাথমিক সার্ভে কাজ শুরু হবে। তবে ফেরি উদ্ধারের মূল কাজ শুরু হবে চট্টগ্রাম থেকে নদী পথে ৬টি উইন্স ভার্জের আসা ৬টি পল্টন ভর্তি ইকোইভমেন্ট। নদীর তলদেশ থেকে অক্ষত অবস্থায় ফেরিটি তুলতে আমাদের তিন থেকে চারদিন সময় লাগবে।

এদিকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআডব্লিউটিএ) যুগ্ম পরিচালক (উদ্ধার) ফজলুর রহমান বলেন, জেনুইন এন্টার প্রাইজের সঙ্গে আমাদের মৌখিক চুক্তি সম্পাদন হয়েছে। তাদের সকল ইকুইপমেন্ট আসলে ফেরি তুলতে কাজ শুরু করবে।

ফেরি উত্তোলনে কেমন খরচ হবে প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, জেনুইন এন্টার প্রাইজ লিমিটেড কর্তৃপক্ষ আমাদের কাছে দুই কোটি টাকা চেয়েছে। আমরা তাদের ফেরি উদ্ধারের কাজ শুরু করতে বলেছি।

এদিকে দুর্ঘটনার চতুর্থ দিন গত শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত ফেরির সঙ্গে ডুবে যাওয়া ১৪টি পণ্যবাহী যানবাহন ও চারটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়। এরপর উদ্ধার করা এসব যানবাহন মালিকদের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ।

ঘাট-সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত বুধবার সকাল নয়টার দিকে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাট থেকে ১৭টি পণ্যবাহী যানবাহনসহ কয়েকটি মোটরসাইকেল নিয়ে আমানত শাহ ফেরিটি ছেড়ে আসে। মাঝপথে আসার পরপরই ফেরির পেছনের বাম দিক থেকে পানি ওঠতে থাকে। সকাল পৌনে ১০টার দিকে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাটের পন্টুনে পৌঁছানো মাত্রই ফেরিতে তিনটি পণ্যবাহী যানবাহন দ্রুত ফেরি থেকে নেমে যায়।

এ সময় আরেকটি পণ্যবাহী গাড়ি ফেরি থেকে নামার সময় ফেরিটির এক পাশ কাত হয়ে যায়। এ সময় ওই গাড়িটি নদীতে পড়ে যায়। এর পরপরই অন্যান্য যানবাহন নিয়ে পন্টুনের কাছে পদ্মা নদীতে ফেরিটি ডুবে যায়। এরপর ডুবে যাওয়া যানবাহন উদ্ধারে কাজ শুরু করে ‘হামজা’।

এতে ফায়ার সার্ভিস, নৌবাহিনী ও কোস্ট গার্ডের সদস্যরা অংশ নেন। ঘটনার চতুর্থ দিন গত শনিবার সকাল থেকে রুস্তম নামের বিআইডব্লিউটিএ’র উদ্ধারকারী আরেকটি জাহাজ উদ্ধার অভিযানে অংশ নেয়।

রি-এসসিআর/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়