জবি কেন্দ্রে চারদিনে ১১৩০ শিক্ষার্থী পেল করোনা টিকা

আগের সংবাদ

ভারতকে মাদকের নতুন রুটের তথ্য দিল বাংলাদেশ

পরের সংবাদ

বিশ্বকাপে নামিবিয়ার ঐতিহাসিক জয়

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৭, ২০২১ , ১১:৩৫ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৭, ২০২১ , ১১:৩৭ অপরাহ্ণ

আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বুধবার স্কটল্যান্ডকে ৪ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়েছে নামিবিয়া। আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নামিবিয়ার বিপক্ষে ৮ উইকেট হারিয়ে ১০৯ রান করে স্কটল্যান্ড। এই রান ১৯.১ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে টপকে যায় নামিবিয়া। এর মাধ্যমে নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সুপার টুয়েলভের ম্যাচে জয় পেল আফ্রিকার দেশটি। আজ নিজেদের ইতিহাসে সুপার টুয়েলভে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামে তারা। আর প্রথম ম্যাচটি জয় দিয়ে রাঙায় প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে আসা নামিবিয়া। অপরদিকে স্কটল্যান্ড টানা দ্বিতীয় হারের স্বাদ পায়। ম্যাচটিতে নামিবিয়ার হয়ে প্রথম ওভারে তিনটি উইকেট তুলে নেয়া রুবেন ট্রাম্পেলম্যান ম্যাচ সেরার পুরষ্কার জিতে নেন।

অল্প রান তাড়া করতে নেমে দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন নামিবিয়ার দুই ওপেনার ক্রেগ উইলিয়ামস ও মাইকেল ভেন লিঙ্গেন। তারা দুজন মিলে উদ্বোধনী জুটিতে এনে দেন ২৮ রান। এ সময় লিঙ্গেন ১৮ রান করে সাফইয়ান শরীফের বলে আউট হন। এরপর ব্যাটিংয়ে নামা জেন গ্রিন দলীয় ৫০ রানের সময় ৯ রান করে ক্রিস গ্রেভেসের বলে আউট হন। তবে এরপর যথাক্রমে ৬১ ও ৬৭ রানে দুটি উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পরে যায় তারা। দলীয় ৬১ রানে অধিনায়ক এরাসমুস ৪ ও ৬৭ রানের সময় উইলিয়ামস ২৩ রান করে আউট হন। এরপর ক্রিজে আসেন ডেভিড ভিসা ও জেজে স্মিট। তারা দুজন মিলে বাকি কাজটুকু সেরে দেন। ভিসা ১০৫ রানের সময় ১৬ রান করে মাইকেল লিস্কের বলে আউট হন। জয় থেকে যখন দল এক রান দূরে তখন ফ্রাইলিঙ্ক ২ রান করে ব্র্যাড হুইলের বলে ক্যাচ আউট হন। কিন্তু স্মিট ৩২ রান করে অপরাজিত থেকে বাকি কাজটুকু শেষ করেন। তার ব্যাট থেকেই আসে সর্বোচ্চ রান।

এর আগে ম্যাচটিতে টসে জিতে স্কটিশদের ব্যাটিংয়ে পাঠান নামিবিয়ার অধিনায়ক জেরহার্ড এরাসমুস। আর প্রথমে ব্যাট করতে নেমেই প্রায় ধসে যাওয়ার মতো অবস্থা হয়েছিল স্কটল্যান্ড। তারা পরে গিয়েছিল চরম বিব্রতকর পরিস্থিতিতে। একটা সময় মাত্র ২ রানে তিনটি উইকেট হারিয়ে বসে তারা। তবে দলের চরম দুঃসময়ে হাল ধরে দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেন মাইকেল লিঙ্ক। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৫ রান আসে ক্রিস গ্রেভসের ব্যাট থেকে। অপরদিকে নামিবিয়ার হয়ে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট তুলে নেন রুবেন ট্র্যাম্পেলম্যান। তিনি ১৭ রানে এ উইকেটগুলো তুলে নেন।

ব্যাটিংয়ে নেমে একদম প্রথম ওভারে নামিবিয়ার বোলার রুবেন ট্র্যাম্পেলম্যানের তোপে পরে স্কটল্যান্ড। প্রথম ওভারেই মাত্র ২ রান খরচায় স্কটিশদের তিন ব্যাটসম্যান জর্জ মানসে, ক্যালাম ম্যাকলিউড ও রিচি বেরিংটনকে সাজঘরে পাঠান তিনি। এই তিনজনের কেউই রানের খাতা খুলতে পারেনি। শুরুর ধাক্কায় যেন হতবিহ্বল হয়ে যায় বাছাই পর্বের তিনটি ম্যাচের সবগুলোতে জয় পাওয়া স্কটল্যান্ড। একটা সময় মনে হচ্ছিল বিশ্বকাপের সর্বনিম্ন রানের লজ্জার নতুন রেকর্ড গড়বে তারা। স্কটল্যান্ড তাদের চতুর্থ উইকেটটি হারায় দলীয় ১৮ রানের সময়। এ সময় ১৩ বল খেলে ৪ রান করে ক্রেগ ওয়ালস ডেভিড ভিসার বলে এলবিডব্লিউ আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান।

তবে ওপেনার ম্যাথু ক্রস ও মাইকেল লিঙ্ক মিলে দলের হাল ধরেন। দ্রুত তিনজন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে চরম চাপে পরা স্কটল্যান্ডকে তখন লজ্জা থেকে বাঁচানোর চেস্টা করতে থাকেন এ দুজন। এক্ষেত্রে অল্প হলেও দলকে সহায়তা করতে সমর্থ হন তারা। তবে দলীয় ৫৭ রানের সময় ওপেনার ম্যাথু ক্রস জান ফ্রাইলিঙ্কের বলে বোল্ড আউট হয়ে যান। তিনি ৩৩ বল খেলে ১৯ রান করেন।

এবারের বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ৫৫ রানে আউট হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। মনে হচ্ছিল এই লজ্জা পেতে হবে স্কটল্যান্ডকে। কিন্তু দলীয় ৫৭ রানের সময় ম্যাথু ক্রস আউট হওয়ার আগে লজ্জা থেকে বাঁচতে সমর্থ হয় তারা। ক্রস আউট হওয়ার পর মাইকেল লিঙ্ক মাটি কামড়ে খেলতে থাকেন সঙ্গে রান তোলার দিকেও নজর রাখেন তিনি। তার সঙ্গে এই যাত্রায় যোগ দেন ক্রিস গ্রেভস। বাংলাদেশের বিপক্ষে এই গ্রিভস তাদের জয়ের ক্ষেত্রে বড় অবদান রাখেন। লজ্জা থেকে বাঁচার পর স্কটল্যান্ডের লিঙ্ক ও গ্রেভস মিলে দলের রানের খাতায় কিছু রান যোগ করার দিকে মনযোগ দেন।

এক্ষেত্রেও তারা সফল হন। অবশেষে দলীয় ৯৩ রানের সময় লিঙ্ক ২৭ বল খেলে ৪৪ রান করে আউট হন। তার ব্যাট থেকেই আসে সর্বোচ্চ রান। লিঙ্ক আউট হওয়ার পর ফের বেকায়দায় পরে যায় স্কটিশরা। এরপর ব্যাট করতে নামা মার্ক ওয়াট ৩ রান করে ফ্রাইলিঙ্কের বলে বোল্ড আউট হন। তবে শেষ পর্যন্ত দলের হাল ধরে রাখতে সমর্থ হন গ্রেভস। তিনি ৩২ বল খেলে ২৫ রান করে ইনিংসের শেষ বলে রান আউট হন। মূলত একটি রান নিতে গিয়েই আউট হন তিনি। তার ব্যাট থেকেই আসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান।

এদিকে এর আগে আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে খেলতে নামে স্কটল্যান্ড। সে ম্যাচটিতে তাদের বিপক্ষে আফগানিস্তান ১৯০ রান করে। জবাবে স্কটিশরা মাত্র ৬০ রানে আউট হয়। ওই ম্যাচে আফগানিস্তান ১৩০ রানের বিশাল রানের জয় তুলে নিয়ে বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের জয়ের নতুন রেকর্ড গড়ে। নামিবিয়া প্রথমে স্কটিশদের লজ্জায় ফেলার সম্ভাবনা তৈরি করলেও শেষ পর্যন্ত তা পারেনি।

নামিবিয়া ও স্কটল্যান্ড দুই দলই এবারই প্রথমবারের মতো আইসিসির কোন টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় পর্বে জায়গা করে নিয়েছে। ফলে এ ম্যাচটি দুই দলের জন্যই ছিল ইতিহাস গড়ার ম্যাচ। কারণ এ ম্যাচে যে দল জয় পাবে সেই নিজেদের ইতিহাসে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের ম্যাচে জয়ের স্বাদ পাবে।

আর- এস / ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়