পীরগঞ্জে হামলায় উস্কানিদাতা সৈকত মণ্ডল ছাত্রলীগ নেতা

আগের সংবাদ

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে লজ্জায় ফেলল ইংল্যান্ড

পরের সংবাদ

ডেটা সামিট: এসডিজি অর্জনে ভূমিকা রাখবে উম্মুক্ত ডেটা

প্রকাশিত: অক্টোবর ২৩, ২০২১ , ৯:২৮ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২৭, ২০২১ , ৩:৫৮ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশের প্রথম ওপেন ডেটা সামিটের উদ্বোধনী বক্তব্যে এটুআইয়ের ডেটা ইনোভেশন ইকোনোমিস্ট কাওসার হোসেন সজীব বলেন, প্রয়োজনীয় ডেটা সঠিক সময়ে বিশ্লেষণ করে কাজে লাগাতে পারলে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জন করা সম্ভব। এমন উদ্দেশ্য নিয়েই কাজ করছে এটুআই।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) সকাল ১০টায় শুরু হয় তিনদিনব্যাপী ওপেন ডেটা সামিটের প্রথম দিন। সামিটটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম জুমে সঞ্চালনা করেন ডেটাফুল- প্রধান পলাশ দত্ত। সামিটে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ডেপুটি ডিরেক্টর (ডেটা ম্যানেজম্যান্ট) ও ফোকাল পয়েন্ট অফিসার (এসডিজি সেল) মো. আলমগীর হোসেন, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) প্রফেসর শাহ মো. আহসান হাবীব, ডেটাফুলের ডেটা কিউরেটর শাকিল আহমেদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে ডেটাফুলের ফেসবুক পেইজ। আগামীকাল রবিবার সামিটের দ্বিতীয় দিন শুরু হবে সকাল ১০টায়।

কাওসার হোসেন সজীব বলেন, নীতি নির্ধারকদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রেও ওপেন ডেটার সঠিক উপস্থাপন জরুরি। এসময় তিনি বাংলাদেশ সরকারের ওপেন ডেটা স্ট্রাটেজির ভিত্তিতে ওপেন গভমেন্ট ডেটা পোর্টালসহ অন্যান্য সরকারি উদ্যোগ তুলে ধরেন।

ওপেন ডেটা বিষয়ক মূলনীতির উপর গুরুত্বারোপ করে আলমগীর হোসেন বলেন, তথ্য মানুষের জন্য উন্মুক্ত থাকা উচিত। দেশের প্রত্যেক নাগরিকের সেসব ডেটা পাবার অধিকার আছে। তিনি বাংলাদেশ সরকারের স্ট্যাটিস্টিক্যাল অ্যাক্ট, ২০১৩ বিষয়েও আলোকপাত করেন।

এসময় বাংলাদেশের মনিটরি ও ফাইন্যান্স সেক্টরের ডেটার প্রাপ্যতার বিষয় উল্লেখ করে শাহ মো. আহসান হাবীব ইকোনোমিক ডেটার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেটার প্রাচুর্যের বিষয়টি তুলে ধরেন এবং ডেটাফুলের ডেটা কিউরেটর শাকিল আহমেদ বাংলাদেশ ব্যানবেইসের শিক্ষা ডেটার প্রাপ্যতা ও সীমাবদ্ধতা তুলে ধরেন।

সামিটের আগামীকালের সেশনগুলো হলো- উন্মুক্ত ডেটা ও সাংবাদিকতা, উন্মুক্ত ডেটা ও গবেষণা, উন্মুক্ত ডেটা ও পুষ্টি, উন্মুক্ত ডেটা, সাংবাদিকতা ও ফেইক নিউজ, ডেটা লিটারেসি।

এতে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- ইউনিভার্সিটি অব লিবারাল আর্টস বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব আইসিটি ইন ডেভেলপমেন্ট, বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট ও ডিডব্লিউ একাডেমি।

ডি-ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়