আফ্রিদির রেকর্ড ছুঁলেন সাকিব

আগের সংবাদ

ফজলি আম শুধুই রাজশাহীর

পরের সংবাদ

ইভ্যালির বিরুদ্ধে প্রথম মামলাটির প্রতিবেদন ২৪ নভেম্বর

প্রকাশিত: অক্টোবর ২১, ২০২১ , ৭:১৪ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২১, ২০২১ , ৭:১৪ অপরাহ্ণ

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী (সিইও) ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে প্রথম মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল পিছিয়ে আগামী ২৪ নভেম্বর দাখিলের জন্য নতুন দিন ধার্য করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। তবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদন দাখিল না করায় প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নতুন এ দিন ধার্য করেন।

এর আগে গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে গুলশান থানায় আরিফ বাকের নামে এক গ্রাহক বাদী হয়ে ইভ্যালির মালিক দম্পতির বিরুদ্ধে একটি প্রতারণার মামলা দায়ের করেন।

মামলার অভিযোগপত্রে উল্লেখ হয়, ইভ্যালির চমকপ্রদ বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে অভিযোগকারী আরিফ বাকের ও তার বন্ধুরা চলতি বছরের মে ও জুন মাসে কিছু পণ্য অর্ডার করেন। পণ্যের অর্ডার বাবদ বিকাশ, নগদ ও সিটি ব্যাংকের কার্ডের মাধ্যমে সম্পূর্ণ পরিশোধ করেন তারা। পণ্যগুলো সাত থেকে ৪৫ কার্যদিবসের মধ্যে ডেলিভারির কথা ছিল। এছাড়া নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে পণ্য সরবরাহে ব্যর্থ হলে প্রতিষ্ঠান সমপরিমাণ টাকা ফেরত দিতে অঙ্গীকারবদ্ধ ছিল। কিন্তু ওই সময়সীমার মধ্যে পণ্যগুলো ডেলিভারি না পাওয়ায় একাধিকবার ইভ্যালির কাস্টমার কেয়ার প্রতিনিধিকে ফোন করা হয়। সর্বশেষ গত ৫ সেপ্টেম্বর যোগাযোগ করে অর্ডার করা পণ্যগুলো পাওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন বাদী ও তার বন্ধুরা। পরে আবার বাদীরা ইভ্যালির ধানমন্ডি অফিসে এমডি রাসেলের সাথে কথা বলতে গেলে অফিসের কর্মচারীসহ এমডি রাসেল তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে তাড়িয়ে দেন। পণ্য বা টাকা কিছুই দিতে অস্বীকৃতি জানান।

এ মামলার পরদিন বিকাল চারটার দিকে আসামি রাসেলের মোহাম্মদপুরের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে ও তার স্ত্রী শামীমাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। সেদিনই মামলাটির এজাহার আদালতে আসে। এরপর ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নুর মামলার এজাহারটি গ্রহণ করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আজকের দিন (২১ অক্টোবর) দিন ধার্য করেন। এ মামলায় আসামিদের তিনদিনসহ তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তীতে করা একাধিক মামলায় তাদের একাধিকবার রিমান্ডে নেওয়া হয়। বর্তমানে তারা দুজন কারাগারে রয়েছেন।

আর- আরএ / ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়