সুশীল সমাজের নীরবতায় হতাশ সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী

আগের সংবাদ

হামলা রুখতে পারল না কেন মাঠ প্রশাসন

পরের সংবাদ

দেড় বছর পর খুলল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৭, ২০২১ , ৮:৩৮ পূর্বাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১৭, ২০২১ , ১২:২৫ অপরাহ্ণ

রবিবার (১৭ অক্টোবর) থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সশরীরে ক্লাস শুরু হয়েছে। মহামারি শুরুর দেড় বছর পর শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষে ক্লাস করছেন শিক্ষার্থীরা। এ জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টির বিভাগ ও ইনস্টিটিউটগুলো। দীর্ঘ দিন পর শ্রেণিকক্ষ ও ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণ শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়েছে। একই দিন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলও খুলেছে।

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরুর পর গত বছরের মার্চে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সশরীরে শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর একই বছরের জুলাইয়ে অনলাইনে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

চলতি বছর দেশে করোনা সংক্রমণের হার কমে আসার প্রেক্ষিতে ৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এক ডোজ টিকা নেওয়ার শর্তে ১৭ অক্টোবর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সশরীরে ক্লাস শুরুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশমুখে চলছে তাপমাত্রা পরীক্ষা। ছবি : ভোরের কাগজ

শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফেরানোর প্রস্তুতি সম্পর্কে জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক মিহির লাল সাহা বলেন, কয়েকদিন আগে অনুষ্ঠিত ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে আমাদের সশরীরে ক্লাস শুরুর যে প্রস্তুতি সেটি হয়ে গেছে। কারণ এই সময় ভর্তি পরীক্ষার্থীদের জন্য বিভাগগুলোতে পরীক্ষার পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ ছাড়াও প্রতিটি বিভাগের চেয়ারম্যানকে নির্দেশনা দিয়েছি, আবাসিক হলগুলো যেভাবে শিক্ষার্থীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে একইভাবে যেন ক্লাসরুমও শিক্ষার্থীদের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়।

মিহির লাল সাহা আরও বলেন, আমাদের জীববিজ্ঞান অনুষদের বেশিরভাগ ব্যবহারিক ক্লাস বাকি রয়েছে। শিক্ষার্থীদের যাতে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা যায় সে জন্য আমরা একটি ক্লাসকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করে পর্যায়ক্রমে ক্লাস নিব। আর এভাবে আমাদের বাকি পরীক্ষা ও ক্লাস একই সঙ্গে চলবে।

বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মুহাম্মাদ আব্দুল মঈন বলেন, আমরা আমাদের অনুষদের প্রবেশের মুখেই হাতধোয়ার বেসিন বসিয়েছি। এ ছাড়া কয়েকটি বিভাগ এর আগে সশরীরে পরীক্ষাও নিয়েছে। ফলে শিক্ষার্থীরা জানে কীভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রেণিকক্ষের কাজ করতে হবে। শিক্ষার্থীদের যেকোনো সমস্যায় সাহায্য করার জন্য আমাদের শিক্ষকরা প্রস্তুত আছেন।

এদিকে দীর্ঘদিন পর সশরীরে ক্লাস শুরুর ব্যাপারে জানতে চাইলে মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আবু হানিফ বলেন, করোনার কারণে দীর্ঘদিন শ্রেণিকক্ষ থেকে, বন্ধুদের থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন ছিলাম। কিন্তু এখন আবার সবার সাথে একই শ্রেণিকক্ষে বসে ক্লাস করতে পারব এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়।

উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামাল বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে ক্লাস পরিচালনার জন্য আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে স্ট্যান্ডার্ড প্রসেডিং অপারেটর (এসওপি) তৈরি করেছি, শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করেছি এবং শিক্ষকরা এ বিষয়ে সচেতন আছেন।

শিক্ষার্থীদের সেশনজট নিরসনে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা একটা ‘লস রিকভারি প্ল্যান’ তৈরি করেছি। আর এই লস রিকভারি প্ল্যানের আলোকে আগামীদিনের ইনপার্সন ক্লাস ও পরীক্ষা পর্যায়ক্রমে অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়