দীর্ঘদিন পর যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারকাজ শুরু

আগের সংবাদ

হচ্ছে না পিইসি ও ইবতেদায়ি পরীক্ষা

পরের সংবাদ

গুটিকয়েক অসাধু ব্যক্তির জন্য ব্যবসায়ী সমাজের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৭, ২০২১ , ৬:৪৮ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১৭, ২০২১ , ৬:৪৮ অপরাহ্ণ

অর্থনীতি, শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান, দারিদ্র দূরীকরণে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখার পরেও, হাতে গোনা কয়েকজন ব্যবসায়ীর জন্য পুরো ব্যবসায়ী সমাজের ইমেজ নষ্ট হচ্ছে। এই ব্যবস্থা চলতে দেয়া যায়না বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি জনাব মো. জসিম উদ্দিন।

রবিবার (১৭ অক্টোবর) সকালে এফবিসিসিআই কার্যালয়ে আয়োজিত “নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রীর মজুদ, আমদানি, সরবরাহ ও মূল্য পরিস্থিতি বিষয়ে মতবিনিময় সভায়” এসব কথা বলেন এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন।

সাম্প্রতিক সময়ে পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধির ওপর আলোচনা করতে গিয়ে মো. জসিম উদ্দিন বলেন, শ্যাম বাজারে এক আড়ত থেকে আরেক আড়তে ভিন্ন ভিন্ন দামে পেঁয়াজ পাইকারি বিক্রি হয়। আবার খুচরা বাজারেও এক বাজার থেকে আরেক বাজারে দামের পার্থক্য কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা। এই অবস্থা অস্বাভাবিক। এর পেছনে অল্প কয়েকজন ব্যবসায়ী দায়ী। ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “আমরা অবশ্যই ব্যবসা করবো, কিন্তু এমন কিছু করবো না যাতে পুরো ব্যবসায়ী সমাজের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।”

বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের সদিচ্ছা আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, পেঁয়াজের দাম কমাতে সরকার দ্রুত আমদানি শুল্ক কমিয়েছে। এমন সিদ্ধান্তের কয়েক ঘন্টার মধ্যে পণ্যটির দাম কমেছে। হ্রাসকৃত হারে শুল্ক পরিশোধ করা পেঁয়াজ বাজারে আসার আগে দাম কমে যাওয়া স্বাভাবিক নয় বলে মন্তব্য করেন এফবিসিসিআই সভাপতি। তিনি মনে করেন, এই ঘটনাই বলে দেয় পেঁয়াজের বাজারে অস্বাভাবিক কোন বিষয় রয়েছে। বাজারের এমন সিন্ডিকেট ভাঙতে এফবিসিসিআই কাজ করবে বলে জানান মো. জসিম উদ্দিন।

এসময় পেঁয়াজের আড়তদার ও আমদানিকারকরা দাম বৃদ্ধি ও কমার পেছনে নানা যুক্তি দেন। পেঁয়াজ পরিবহনে চাঁদাবাজি, ভারতে বৃষ্টি এবং সরকারের বেধে দেয়া দামের চেয়ে বাড়তি বিদ্যুৎ বিল দেয়ার কারণে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যটির দাম বেড়েছে। এসময় বাড়তি বিদ্যুৎ বিল আদায়ের পক্ষে, বাজার সমিতির বিভিন্ন ব্যয়ের যুক্তি তুলে ধরেন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন।

এ সময় এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি জনাব মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু বলেন, দোকানীদের কাছ থেকে বিদ্যুৎ বিল নেয়ার কাজ মালিক সমিতির নয়। এ দায়িত্ব বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির।

এ ব্যাপারে পরবর্তীতে পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন। ব্যবসায়ীদের এমন আরো কোন সমস্যা থাকলে তা এফবিসিসিআইকে জানানোর আহ্বান করে তিনি জানান, এক সপ্তাহের মধ্যে এফবিসিসিআই’র স্ট্যান্ডিং কমিটির কার্যক্রম শুরু হবে। কমিটিগুলো ব্যবসায়ীদের সমস্যা সমাধানে নিরলসভাবে কাজ করবে।

মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন এম এ মোমেন, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, মো. আমিনুল হক শামীম, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, মো. হাবিব উল্লাহ ডন, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, মো. রেজাউল করিম রেজনু, সিআইপি, পরিচালক ও সাবেক সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই এবং অন্যান্য পরিচালকবৃন্দ এবং এফবিসিসিআই’র প্রধান নির্বার্হী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহফুজুল হক।

এছাড়াও বাজার পরিস্থিতির ওপর আলোচনা করতে উপস্থিত ছিলেন চাল ও পেঁয়াজের আমদানিকারক, আড়তদার ও ব্যবসায়ী সমিতির প্রতিনিধি ও রাজধানীর বিভিন্ন বাজার সমিতির ব্যবসায়ী নেতারা।

রি-এমএস/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়