ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে বৈঠকে বসবে তালেবান

আগের সংবাদ

শহীদ মিনারে ইনামুল হককে শ্রদ্ধা নিবেদন

পরের সংবাদ

কোভিডের পর যক্ষ্মার টিকা তৈরির চেষ্টায় ভারত

প্রকাশিত: অক্টোবর ১২, ২০২১ , ১২:২৬ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ১২, ২০২১ , ১২:২৬ অপরাহ্ণ

২০২৫ সালের মধ্যে দেশকে যক্ষ্মামুক্ত করার লক্ষ্যে পৌঁছতে টিকা নিয়ে কাজ শুরু করেছে ভারত। দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধে দুটি টিকা নিয়ে কাজ করছে। একটি ইমিউভ্যাক, অন্যটি ভিপিএম ১০০২। এই দুই টিকার তৃতীয় পর্বের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চালাচ্ছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)। বিজ্ঞানীরা বলছেন, নতুন এই দুই টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ সফল হলে বিশ্বব্যাপী নতুন দিগন্ত খুলে যাবে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার

দুটি টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য আইসিএমআর ১২ হাজার ব্যক্তিকে বেছে নিয়েছে। ভারতের সাতটি স্থানে এই পরীক্ষা চলবে। চূড়ান্ত ছাড়পত্র এবং বাণিজ্যিকভাবে প্রয়োগের আগে তিন বছর ধরে এই পরীক্ষার ফলাফলের ওপর দৃষ্টি রাখবে আইসিএমআর। এ প্রসঙ্গে একজন বিজ্ঞানী বলেন, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে মানুষকে যক্ষ্মা রোগের ব্যাপারে সচেতন করা ও যক্ষ্মা রোগীকে ডটস কেন্দ্রগুলোতে গিয়ে এই টিকা নিয়ে আসার জন্য অনুপ্রাণিত করা বড় একটি চ্যালেঞ্জ।

মূলত ভারতের দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি ইমিউভ্যাক কুষ্ঠরোগ প্রতিরোধের জন্য তৈরি হয়েছিল। একে ‘মাইক্রোব্যাকটেরিয়াম ইন্ডিকাস প্রানাই’ বলা হয়। ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বলা হচ্ছে, এই টিকা কুষ্ঠ ও যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা রাখে। অন্যটি ভিপিএম ১০০২। ভেলোরের খ্রিস্টান মেডিক্যাল কলেজের পালমোনারি বিভাগের অধ্যাপক চিকিৎসক ডিজে ক্রিস্টোফার বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে ধনী ও গরিব সব দেশই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু যক্ষ্মা রোগের কারণে শুধু গরিব দেশই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অথচ এ রোগ প্রতিরোধে এখনও আমাদের হাতে কার্যকরী টিকা নেই। যারা ঝুঁকিতে আছেন, তাদের জন্যই এই টিকা তৈরি করা হচ্ছে। এটি বাজারে আসতে কয়েক বছর সময় লাগবে।

ডি- এইচএ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়