১৯তম এশীয় চারুকলা প্রদর্শনী শুরু ১ ফেব্রুয়ারি

আগের সংবাদ

ডিআরইউ সেরা রিপোর্টারদের সম্মাননা দেবে ‘নগদ’

পরের সংবাদ

জীবনের পথচলায় সততা-নিষ্ঠা বড় উপাদান: শেখ তাপস

প্রকাশিত: অক্টোবর ৭, ২০২১ , ৯:০৮ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ৭, ২০২১ , ৯:০৮ অপরাহ্ণ

জীবনের পথচলায় সততা এবং নিষ্ঠা সবচেয়ে বড় উপাদান বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরশেনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) বিকেলে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নবনিয়োগ প্রাপ্ত ১৪ ও ১৬তম গ্রেডের ৪৭ জন কর্মচারীর প্রশিক্ষণ সমাপনী অনুষ্ঠানে এই মন্তব্য করেন তিনি।

আঞ্চলিক লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের রেক্টর মো. মঞ্জুর হোসাইনের সভাপতিত্ব ও ঢাকার উপ-পরিচালক সাব্বির আহমেদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ মারুফুর রশিদ খান, অঞ্চল-৭ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ মাহে আলম, মেয়রের প্রটোকল কর্মকর্তা মো. দাউদ হোসেন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত কর্মচারীদেরকে সনদ ও শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দেয়া হয়। আগামী রবিবারে নিয়োগ প্রাপ্ত এসব কর্মচারীদের পদায়ন করা হবে।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, অনেকের মেধা থাকলেও জীবন সংগ্রামে সফল হতে পারে না। জীবনে সবচেয়ে বড় প্রয়োজন হলো নিষ্ঠা ও অধ্যাবসায়। আপনি অন্যের চাইতে কম মেধাবী হতে পারেন কিন্তু আপনার যদি সেই পরিশ্রম, নিষ্ঠা ও আত্মনিয়োগ থাকে, অধ্যাবসায় থাকে তাহলে আপনি সেই মেধাবী ব্যক্তির চাইতেও অনেক বেশি সন্তুষ্টি অর্জন করতে পারবেন। জীবনের পথচলায় সততা ও নিষ্ঠা সবচেয়ে বড় উপাদান।

ঢাকাবাসীর আশা-আকাঙ্খা পূরণে সদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা দিয়ে ব্যারিস্টার তাপস বলেন, সততা-নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করলে কর্মজীবনে চড়াই-উৎরাই থাকলেও শেষমেশ সফলতা আপনাদেরই হবে। সবচেয়ে বড় শক্তি হলো সততা, নিষ্ঠা এবং নিজের কাজটি জানা। আপনি যদি নিজের কাজটি শিখে নেন, জেনে নেন, তাহলে বঙ্গবন্ধু যেভাবে বলেছেন, আমাদেরকে দাবায়ে রাখতে পারবে না, আপনাদেরকেও আর কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না।

বাবা-মায়ের স্বপ্ন পূরণে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে নিজেদেরকে কর্মে নিয়োগের আহবান জানিয়ে দক্ষিণের মেয়র বলেন, বাবা-মা প্রথমে স্বপ্ন দেখে যে তাদের সন্তান সুশিক্ষায় শিক্ষিত হবে। পরবর্তীতে স্বপ্ন দেখে, সেই শিক্ষা কাজে লাগিয়ে সন্তানেরা নিজেদের যোগ্যতা অনুযায়ী কর্মজীবনে নিয়োজিত হবেন। আপনারা আপনাদের পিতা-মাতার প্রথম স্বপ্ন পূরণ করেছেন এবং দ্বিতীয় স্বপ্ন পূরণের পর্যায়ে রয়েছেন। এই স্বপ্ন পূরণে বাবা-মার কিছু আশা আকাঙ্খা থাকে, স্বপ্নের কিছু লালিত বৈশিষ্ট্য থাকে।

আমি মনে করি, আপনারা পিতা-মাতার সেই স্বপ্ন পরিপূর্ণভাবে বাস্তবায়নে এই কর্মজীবনের সুযোগে নিষ্ঠা এবং সততার সঙ্গে নিজেদেরকে নিয়োজিত করবেন। সভাপতির বক্তব্যে লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের রেক্টর মো. মঞ্জুর হোসাইন বলেন, আপনারা অনেক ভাগ্যবান। কারণ, চাকুরিতে যোগদানের আগেই প্রশিক্ষণ পেয়েছেন।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়