২০২৩ সাল পর্যন্ত প্রাথমিক জ্বালানির সংস্থান কঠিন হবে

আগের সংবাদ
ফাইল ছবি

বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহের অর্থ নেই ইসির

পরের সংবাদ

রোনালদোর ম্যানইউকে জিততে দেয়নি এভারটন

প্রকাশিত: অক্টোবর ২, ২০২১ , ৯:০৫ অপরাহ্ণ আপডেট: অক্টোবর ২, ২০২১ , ৯:০৫ অপরাহ্ণ

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে শনিবার (২অক্টোবর) এভারটনের বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ম্যাচটিতে আগে গোল করে রেড ডেভিলরা। কিন্তু গোলটি শোধ করে ম্যানইউকে রুখে দেয় তারা। উল্টো ম্যাচের ৮৬ মিনিটের সময় আরেকবার বল জালে জড়িয়েছিল এভারটন। কিন্তু অফসাইডের কারণে তাদের সে গোলটি বাতিল করে দেন রেফারি। একটু এদিক সেদিক হলেই ম্যানইউ ম্যাচটি হেরে যেতে পারত। ম্যাচটিতে ম্যানইউর হয়ে গোল করেন অ্যান্থনি মার্শাল। অপরদিকে এভারটনের হয়ে সমতাসূচক গোলটি করেন আন্দ্রোস টাউনসেন্ড। এই ম্যাচটিতে জিততে পারলে প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানে উঠে আসতে পারত রোনালদোর ম্যানইউ। কিন্তু ড্র করায় এখন তারা টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে আছে।

এর আগে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে প্রায় ড্র ম্যাচ জিতে নেয় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। পর্তুগিজ সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো সেদিন শেষ মুহূর্তে গোল করেছিলেন। কিন্তু শনিবার এমন নাটকীয় কিছু করতে পারেননি তিনি। যদিও রোনালদো গতকালের ম্যাচটিতে অনেক পরে নামেন। ফলে আজ আর তেমন কিছু করার বড় সুযোগ পাননি সিআরসেভেন।

এদিকে ম্যাচটির পুরো সময় বল দখলে রাখা ও আক্রমণ করা সব দিক দিয়ে এগিয়ে ছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এরই ধারাবাহিকতায় ম্যাচের ৪৩ মিনিটের সময় দলের অধিনায়ক ব্রুনো ফার্নান্দেজের করা পাস জাল লক্ষ্য করে বুলেট গতিতে শট করেন অ্যান্থনি মার্শাল। তার করা শটটির জোর এত বেশি ছিল যে এভারটনের গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড হাত লাগালেও তার হাত ফসকে বল জালে জড়িয়ে যায়। এই গোল এভারটন শোধ করে ম্যাচের ৬৫ মিনিটের সময়।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ মুহূর্তে ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে গোল করে দলকে জয় এনে দেয়া ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে শনিবার ম্যাচের প্রথমার্ধে মাঠে নামাননি কোচ ওলে গানার সুলশার। ফলে ম্যাচের প্রথমার্ধের পুরোটা সময় সতীর্থদের খেলা বেশ ভালোই উপভোগ করেন। এমনকি অ্যান্থনি মার্শাল যখন প্রথমার্ধের প্রায় শেষ দিকে গোলটি করেন তখন রোনালদো সেই গোলটি লাফিয়ে উঠে উদযাপন করেন। রোনালদোর বদলে প্রথমার্ধে মূলত মাঠে নামেন কাভানি। তাকে ম্যাচের ৫৭ মিনিট পর্যন্ত খেলান কোচ সুলশার। এরপর উরুগুয়ের কিংবদন্তি কাভানিকে উঠিয়ে তিনি মাঠে নামান ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে।
ম্যানইউর ম্যাচটিতে এগিয়ে যেতে পারত ম্যাচের ২১ মিনিটের সময়। ওই সময় দুর্দান্ত এক হেড করে বল প্রায় জালে জড়িয়ে ফেলেন এডিসন কাভানি। কিন্তু এভারটনের গোলরক্ষক পিকফোর্ড আরে বেশি দক্ষতা দেখিয়ে বল ঠেকিয়ে দেন। অ্যান্থনি মার্শাল গোল করার আগে ম্যানইউর গোল করার সবচেয়ে বড় সুযোগ ছিল এটিই।

এদিকে এই ম্যাচটির আগে এভারটনের বিপক্ষে প্রিমিয়ার লিগে খেলা শেষ ১২টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র একটি ম্যাচে হারে ম্যানইউ। এই হারটি আসে ২০১৯ সালে এভারটনের ঘরের মাঠ গডিসন পার্কে। সেবার ম্যানইউকে এভারটন হারিয়েছিল ৪-০ গোলের ব্যবধানে। ওল্ড ট্রাফোর্ডে ম্যানইউর বিপক্ষে এভারটন প্রথম অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলে ১৯৯২ সালে। সে ম্যাচটিতে এভারটন জয় তুলে নিয়েছিল। এরপর আরো ২৭ বার ওল্ড ট্রাফোর্ডে খেলে তারা। কিন্তু ওই ২৮টি ম্যাচের মধ্যে ম্যানইউর বিপক্ষে তারা জয় পায় মাত্র একটি ম্যাচে। আর শনিবারের ম্যাচটির আগে ওল্ড ট্রাফোর্ডে খেলা ২৮টি ম্যাচের মধ্যে তারা হেরেই যায় ২০টি ম্যাচে। আর বাকি ৭টি ম্যাচে কোনোমতে ড্র নিয়ে বাড়ি ফেরে। আজও তারা ড্র করতে সমর্থ হলো।

নিজ ঘরের মাঠে সাম্প্রতিক সময়টা ভালো যাচ্ছিল না ম্যানইউর। তারা প্রিমিয়ার লিগে নিজেদের শেষ যে ৮টি ম্যাচে হেরেছে তার সবগুলোই তারা হেরেছে ওল্ড ট্রাফোর্ডে। আর প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে কোনো অ্যাওয়ে ম্যাচে হারের স্বাদ না পেয়ে ঘরের মাঠে এত ম্যাচ হারার নজির অন্য কোনো দলের নেই। এখন নিজ মাঠে জয়ের বড় সুযোগ তৈরি করেও শেষ পর্যন্ত পারল না রেড ডেভিলরা।

এভারটন এই ম্যাচটির আগে নিজেদের শেষ ৪টি অ্যাওয়ে ম্যাচে ১০টি গোল হজম করে এভারটন। এই ৪টি ম্যাচের আগে তারা প্রতিপক্ষের মাঠে গিয়ে ১০টি গোল হজম করে ১৪ ম্যাচ খেলে। ম্যানইউর বিপক্ষে শনিবার খেলতে আসার আগে তারা খেলতে যায় অ্যাস্টন ভিলার বিপক্ষে। সে ম্যাচটিতে এভারটন হারে ৩-০ গোলের ব্যবধানে। তবে প্রতিপক্ষের মাঠে গিয়ে গোলের পর গোল হজম করলেও তারা ২০২০ সালের পর ঘরের বাইরে টানা ২টি ম্যাচে হারেনি। ম্যানইউকে আজ রুখে দিয়ে এই ধারা অব্যাহত রাখল তারা।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়