আইপিএলে ফের মোস্তাফিজ ঝলক

আগের সংবাদ

টেবিল টেনিস জাতীয় দলের জার্সি উন্মোচন

পরের সংবাদ

এবার ম্যানইউর হার দেখলেন রোনালদো

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১ , ১০:১৮ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১ , ১০:১৮ অপরাহ্ণ

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে শনিবার মুদ্রার উল্টো পিঠ দেখেছে দুই জায়ান্ট ক্লাব চেলসি ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষে হারের ম্যাচে ছিলেন না রোনালদো। কিন্তু আজ শনিবার অ্যাস্টন ভিলার বিপক্ষে থেকেও দলের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারেননি এই পর্তুগিজ স্ট্রাইকার। পেনাল্টি পেয়ে সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি দলের আরেক পর্তুগিজ তারকা ফার্নান্দেস। ঘরের মাঠে দর্শকদের হতাশ করে শনিবার ওলে গানার সুলশারের দল অ্যাস্টন ভিলার বিপক্ষে হেরেছে ১-০ গোলের ব্যবধানে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শনিবার অন্য ম্যাচে ম্যানচেস্টার সিটির আক্রমণে দিশাহারা ছিল লুকাকুর চেলসি। ঘরের মাঠে গতকাল টমাস টুখেলের শিষ্যরা হেরেছে ১-০ গোল ব্যবধানে। অন্যদিকে বুন্দেস লিগায় নিজেদের শক্তিমত্তা দেখিয়েই যাচ্ছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ। লিগে নিজেদের ষষ্ঠ ম্যাচে গত রাতে ১০ জন নিয়েও ফার্থকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে জার্মান জায়ান্ট ক্লাবটি।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে দুই শক্তিশালী প্রতিপক্ষ চেলসি ও ম্যানচেস্টার সিটির লড়াইয়ে নিষ্প্রাণ ছিল টমাস টুখেলের দল চেলসি। ম্যাচের প্রথম থেকেই আধিপত্য বিস্তার করে যান জ্যাক গ্রিলিশরা। নিজেদের দখলে বল রাখেন প্রথমার্ধের ৬৮ শতাংশ সময়। অবশ্য প্রথমার্ধ একাধিক আক্রমণ করেও গোলের দেখা পায়নি ম্যান সিটি। বিরতির আগে গ্রিলিশদের নেয়া ৮টি শটের একটিও ছিল প্রতিপক্ষের লক্ষ্যে। অন্যদিকে ম্যাচে লুকাকুরা শট নিয়েছিলেন মাত্র একটি তাও আবার লক্ষ্যভ্রষ্ট। প্রতিপক্ষের জালে বল জড়াতে ব্যর্থ হয়ে দুদলই প্রথমার্ধ শেষ করে গোলশূন্য ড্র করে।

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে আরো আক্রমাণত্মক হয়ে ওঠে বিশ্বের সবচেয়ে দামি ক্লাব ম্যান সিটি। আক্রমণ, প্রতিআক্রমণে ব্যস্ত রাখে চেলসির রক্ষণভাগ। সাফল্য পেয়েও খুব বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি ম্যান সিটিকে। ম্যাচের ৫৩তম মিনিটে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার গ্যাব্রিয়েল জেসুস দলকে সাফল্য এনে দেন। ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়ে জোরালো শটে চেলসির জালে বল পাঠান তিনি। পিছিয়ে পরা চেলসিও ফিরতে পারত ম্যাচের ৬২তম মিনিটে। সতীর্থের পাস পেয়ে বেলজিয়ান স্ট্রাইকার লুকাকু দেরি করেননি ম্যান সিটির জালে বল জড়াতে। কিন্তু পরক্ষণে ম্যাচ রেফারি পতাকা তুলে জানিয়ে দেন এটি অফসাইড ছিল। এরপর ম্যাচে ফিরতে আরো মরিয়া হয়ে ওঠে টমাস টুখেলের শীষ্যরা। আক্রমণে ধার বাড়াতে থাকেন লুকাকুরা। ম্যাচে ক্ষান্ত ছিলেন না গ্রিলিশরা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর কোনো দলই প্রতিপক্ষের জালে আঘাত হানতে পারেননি। ফলে ১-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ম্যান সিটি। লিগে ৭ ম্যাচে ৫ জয় ও এক ড্রয়ে জেসুসদের অবস্থান পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে।

শনিবার ম্যানইউর হার দেখলেন রোনালদো

এদিকে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের অন্য ম্যাচে ছন্দে ছিল না রোনালদোর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ইংলিশ কারাবো কাপ থেকে গত বৃহস্পিতিবার ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষে হেরে বিদায় নেয়া দলের ফুটবলাররা এদিনও পারফরম্যান্সের ঝলক দেখাতে পারেননি। অ্যাস্টন ভিলার বিপক্ষে গত কালের ম্যাচে অবশ্য কম চেষ্টা করেননি রোনালদো, পগবারা। বল দখলে এগিয়ে থাকা ম্যানইউ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে নিয়েছেন ২৩টি শট। যার মধ্যে ৪টি ছিল লক্ষ্য। কিন্তু বারবার চেষ্টা করেও সাফল্যের দেখা পাননি ওলে গানার সুলশারের শিষ্যরা। উল্টো ম্যাচের ৮৮তম মিনিটে গোল খেয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে ইংলিশ জায়ান্ট ক্লাবটি। ম্যাচের যোগ করা সময়ে পেনাল্টি পেয়েও সুযোগ কাজে লগাতে পারেননি পর্তুগিজ স্ট্রাইকার ব্রুনো ফার্নান্দেস। একই সঙ্গে পয়েন্ট খুইয়ে লিগে শীর্ষস্থান হারাল সুলশারের শীষ্যরা। ৭ ম্যাচে ৪ জয় ও এক ড্রয়ে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে লিগে চতুর্থ অবস্থানে নেমে গেল ব্রুনো ফার্নান্দেসরা।

এর আগে গত রাতের ম্যাচে বল দখলে এগিয়ে ছিল বর্তমান বুন্দেসলিগা চ্যাম্পিয়নরা। বল দখলে বায়ার্নের ৬৮ শতাংশের বিপরীতে ফার্থের দখলে ছিল মাত্র ৩২ শতাংশ। তবে আক্রমণে জুলিয়ান নাগেলসম্যানের দলের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে স্বাগতিকরা। গোলবারের উদ্দেশ্যে বায়ার্নের শট ছিল ১২টি, যার লক্ষ্য ছিল ৪টি। অপরদিকে ১০টি শটের ৫টি লক্ষ্য রাখে গ্রেথার ফার্থ। মুলারের গোলে ম্যাচের দশম মিনিটেই এগিয়ে যায় বায়ার্ন মিউনিখ। মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে এগিয়ে যান আলফোনসো ডেভিস। ডি-বক্সের বাম প্রান্ত থেকে ডেভিসের ক্রস প্রতিপক্ষের পায়ে লেগে বল যায় মুলারের কাছে। বাঁ পায়ের দুর্দান্ত শটে লক্ষ্যভেদ করেন জার্মান স্ট্রাইকার। ১৯তম মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে লক্ষ্য রাখতে পারেননি মুলার। ২৫তম মিনিটে বায়ার্নের ডি-বক্সের কোণায় ফ্রি-কিক পায় গ্রেথার ফার্থ। তবে দলটির মিডফিল্ডার জুলিয়ান গ্রিনের মাটি ঘেঁষা শট সহজেই ধরে ফেলেন ম্যানুয়েল নয়্যার। ৫ মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ করে বায়ার্ন। ৩০তম মিনিটে ডি-বক্সের বাঁ প্রান্ত থেকে ল্যারয় সানেকে পাস দেন ডেভিস। সানের কাটব্যাক পেয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে লক্ষ্যভেদ করেন জশুয়া কিমিচ। ৪৮তম মিনিটে বায়ার্ন গোলরক্ষককে একা পেয়ে আক্রমণে এগিয়ে যাচ্ছিলেন গ্রেথার ফার্থের জুলিয়ান গ্রিন। তাকে পেছন থেকে বাজেভাবে ট্যাকল করে লাল কার্ড দেখেন বায়ার্ন রাইট ব্যাক বেঞ্জামিন পাভার্ড। ৫৭তম মিনিটে সহজ সুযোগ নষ্ট করেন রবার্ট লেভানডোভস্কি। ডি-বক্সের বাম প্রান্ত থেকে ল্যারয় সানের পাস পেয়ে সরাসরি শট নেন তিনি। পোলিশ স্ট্রাইকারের দুর্বল শট সহজেই ধরে ফেলেন গ্রেথার ফার্থ গোলরক্ষক সাসচা বারচার্ট।

৬৮তম মিনিটে আত্মঘাতী গোল করেন গ্রেথার ফার্থের লেফট ব্যাক সেবাস্তিয়ান গ্রিসব্যাক। এ সময় জশুয়া কিমিচের ফ্রি-কিক শট ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালেই বল পাঠিয়ে দেন এই জার্মান ফুটবলার। ৮৭তম মিনিটে গ্রেথার ফার্থের হয়ে একটি গোল পরিশোধ করেন বদলি হিসেবে নামা সেড্রিক ইতেন। ৬ ম্যাচে পাঁচ জয় এবং ১ ড্রয়ে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে বায়ার্ন মিউনিখ। ৬ ম্যাচে ৫ হার এবং ১ ড্রয়ে গ্রেথার ফার্থের অবস্থান একেবারে তলানিতে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়