দশ গোলে শেষ সাবিনাদের এশিয়ান কাপের স্বপ্ন

আগের সংবাদ

প্রধানমন্ত্রী হোয়াইট হাউসে বৈঠকে অংশ নিয়েছেন

পরের সংবাদ

লাল-সবুজের দায়িত্ব পেয়ে উচ্ছ্বসিত ব্রুজন

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১ , ১০:৫৯ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১ , ১০:৫৯ অপরাহ্ণ

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের কোচ হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজনকে। জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব হঠাৎ করেই তার ওপর আসে। বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে সে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। এরপর অপেক্ষা ছিল বাংলার নতুন কোচ সাফের জন্য কেমন দল গড়বে। এ অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে বুধবার অস্কার ব্রুজন ঘোষণা করেছেন সাফের প্রাথমিক দল। প্রাথমিক দলে তিনি রেখেছেন ২৬ খেলোয়াড়কে। এর মধ্যে ২৩ জনকে নিয়ে মালদ্বীপে উড়াল দেবেন ব্রুজন। গতকাল দল ঘোষণার পর বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো জেমি ডে বাংলাদেশ ছেড়ে লন্ডনে চলে গেছেন। অস্কার ব্রুজন বাংলাদেশের প্রধান কোচ হওয়ার পর বাংলাদেশের অন্য কোচিং স্টাফদের মধ্যেও পরিবর্তন এসেছে। ব্রুজন বসুন্ধরা কিংসে যাদের নিজের সহকারী কোচ হিসেবে রেখেছেন। তারাই তার সঙ্গে মালদ্বীপে যাবেন। মানে ব্রুজন পুরোপুরি তার দল নিয়ে বাংলাদেশের সাফের মিশনে যাবেন।

এদিকে অস্কার ব্রুজন বাংলাদেশের কোচ হওয়ায় এখন সাফে বাংলাদেশের আশা বেড়েছে বলে মনে করছেন বাফুফের জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান নাবিল চৌধুরী। অবশ্য এর একটি যথার্থ কারণও আছে। অস্কার ব্রুজন বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব নিয়েছেন বসুন্ধরা কিংসের কোচের দায়িত্ব থেকে সাময়িক সময়ের জন্য ইস্তফা দিয়ে। আর তিনি প্রাথমিক দলে যে ২৬ খেলোয়াড়কে ডেকেছেন। তার মধ্যে ১০ জনই বসুন্ধরার। পাঁচজন আছেন আবাহনী থেকে। আর চারজন আছেন সাইফ স্পোর্টিং থেকে। বসুন্ধরা থেকে যে ১০ জন ডাক পেয়েছেন, তাদের সঙ্গে ব্রুজনের বোঝাপড়াটা ভালো। আর এ বোঝাপড়ার বিষয়টিই বাংলাদেশের জন্য ভালো হবে বলে মনে করেন নাবিল চৌধুরী।

তাছাড়া বুধবার নিজের নতুন দায়িত্ব নিয়ে কথা বলেছেন ব্রুজন। প্রথমেই তিনি বলেছেন সাফের ভাবনা নিয়ে। দলের প্রতি তার বিশ্বাস ও প্রত্যাশা কেমন, এ বিষয়েও বলেছেন। এ ব্যাপারে ব্রুজন বলেন, ‘নেপাল ও মালদ্বীপ বাংলাদেশের ফুটবলের সমকক্ষ, যদিও র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা এগিয়ে। এ দুই দলের বিপক্ষে বাংলাদেশ জিততেও পারে, ড্রও করতে পারে আবার হারতেও পারে।’ এই দুই ম্যাচের ওপরই মূলত বাংলাদেশের ফাইনালের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে।
তবে তিনি যেহেতু মাত্রই দায়িত্ব নিয়েছেন, তাই আবার খুব বেশি আশাও দেখাননি। তবে বলেছেন তিনি তার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন। এ ব্যাপারে ব্রুজন বলেন, ‘আমার নাম ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই অনেকেই আমার মন্তব্য জানতে চেয়েছেন। বাফুফে ও কিংস উভয়ের সঙ্গে আমার দফায় দফায় আলোচনা হয়েছে। বাফুফে ফলাফলে পরিবর্তন চায়। আমি পরিবর্তন এবং নতুন কিছু দেয়ার চেষ্টা করব।’

তাছাড়া তার ওপর ভরসা রাখায় বাফুফেকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। ‘একটি দেশের কোচ হওয়া অবশ্যই সম্মান ও গৌরবের। আমাকে এ সুযোগ দেয়ার জন্য বসুন্ধরা কিংস ও বাফুফে উভয়কে ধন্যবাদ জানাই।’
এদিকে বাংলাদেশ সর্বশেষ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জেতে ২০০৩ সালে। এরপর আর কখনো ফাইনালেও খেলা হয়নি লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের। এবার তাই শিরোপা-খরা কাটাতে মরিয়া বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। তাই তো জেমি ডের অধীনে সাম্প্রতিক সময়ের সাফল্য কম হওয়ায় তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে ফেডারেশনের পক্ষ থেকে।

বাংলাদেশ দলে কয়েক দিন ধরে প্রবাসী ফুটবলারদের আনাগোনা বাড়ছিল। জেমি ডে কিরগিজস্তানে তিন জাতি টুর্নামেন্টের জন্য তিনজন প্রবাসী ফুটবলারকে দলে ডেকেছিলেন। তাদেরকে নিয়ে সাফেও যাওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু জেমি ডেকে সরিয়ে দেয়ার পর নতুন প্রবাসী ফুটবলারদের মধ্যেও আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সাফের জন্য ঘোষিত ২৬ সদস্যের প্রাথমিক দলে তাদেরকে রাখেননি ব্রুজন। তবে বাংলাদেশের নতুন নাগরিক এলিটা কিংসলেকে দলে রাখা হয়েছে। তিনি যদি ফিফার কাছ থেকে বাংলাদেশের হয়ে খেলার ছাড়পত্র পেয়ে যান, তাহলেই বাংলাদেশের ফুটবলের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো নাগরিকত্ব নেয়া কোনো ফুটবলার হিসেবে খেলবেন। সাফে তার সেবা পেতে সব চেষ্টাই চালাচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন।
এদিকে অস্কার ব্রুজনকে নিয়ে নাবিল চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, ‘সে একদম নতুন কোচ নয়। বাংলাদেশেই রয়েছে তিন বছরের বেশি সময়। দলের অধিকাংশই কিংসের খেলোয়াড়। বাকি যারা রয়েছে, তাদেরকেও সে ভালোভাবেই চেনে। তার কাছে আমার প্রত্যাশা। ফিফটি ফিফটি ম্যাচগুলো তার অভিজ্ঞতা, মনোবাসনা দিয়ে আমাদের অনুকূলে ফলাফল আনবে।’

সাফের জন্য ঘোষিত বাংলাদেশের ২৬ সদস্যের প্রাথমিক দল- গোলরক্ষক : আনিসুর রহমান, আশরাফুল ইসলাম ও শহীদুল আলম। ডিফেন্ডার : তপু বর্মণ, বিশ্বনাথ ঘোষ, রিয়াদুল হাসান, রহমত মিয়া, ইয়াসিন আরাফাত, মেহেদী হাসান, তারিক রায়হান, রেজাউল করিম, টুটুল হোসেন বাদশা ও মোহাম্মদ আতিকুজ্জামান। মিডফিল্ডার : বিপলু আহমেদ, সোহেল রানা, জামাল ভূঁইয়া, মানিক হোসেন মোল্লা, রাকিব হোসেন ও আতিকুর রহমান ফাহাদ। ফরোয়ার্ড : মাহবুবুর রহমান সুফিল, মতিন মিয়া, সাদ উদ্দিন, সুমন রেজা, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, জুয়েল রানা ও এলিটা কিংসলে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়