সংসদে চারটি বিল পাশ: ৩টি স্বাস্থ্যের ও ১টি শিক্ষা বিষয়ক

আগের সংবাদ

সীমানা পিলার স্থাপন ও উচ্ছেদে কিছু বিচ্যুতি ছিল: নৌ প্রতিমন্ত্রী

পরের সংবাদ

সাবেক শিক্ষা প্রকৌশলী নজরুল ও তার ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১ , ৭:০৯ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১ , ৭:০৯ অপরাহ্ণ

সাত কোটি ২৪ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী মির্জা নজরুল ইসলাম এবং তার ছেলের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এর উপপরিচালক মো. মোনায়েম হোসেন বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে সংস্থাটির জনসংযোগ দপ্তর জানায়, মামলায় ছেলে মির্জা অনিক ইসলামকে প্রধান আসামি ও তার পিতা সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী মির্জা নজরুল ইসলামকে সহযোগী আসামি করা হয়।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী মির্জা নজরুল ইসলামের অর্জিত অবৈধ আয়কে বৈধ করার পূর্বপরিকল্পনায় কাগজে-কলমে ছেলে মির্জা অনিক ইসলামকে কথিত ব্যবসায়ী হিসাবে দেখানোর চেষ্টা করেছেন। ছেলে অনিক তার পিতার দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত আয়কে বৈধ করার পরিকল্পনায় সহযোগিতা করেছেন। পূর্বপরিকল্পনার অংশ হিসেবে ঢাকা ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক, সিটি ব্যাংক ও সাউথ ইস্ট ব্যাংকে ৭টি হিসাবে সন্দেহজনক উৎস থেকে ৭ কোটি ৩১ লাখ ৬৪ হাজার ১৬২ টাকা জমা করেন পিতা নজরুল। ২০১২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে ২০২০ সালের ১২ মার্চ পর্যন্ত ওই টাকা জমা হলেও অজ্ঞাত কারণে ৭ কোটি ২৪ লাখ ৯৫ হাজার ২৫০ টাকা উত্তোলন করে তা আবার গোপন করেছেন। অন্যদিকে, দুদকে দাখিল করা সম্পদ বিবরণীতে মাত্র ২ কোটি ৬৫ লাখ ১৬৯ টাকার ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু গোপনকৃত ওই টাকার বিষয়ে পিতা ও পুত্র কোনো হিসাব দিতে পারেননি। বরং কাগজে-কলমে ছেলে অনিককে ব্যবসায়ী হিসাবে প্রমাণের ব্যর্থ চেষ্টা করে গেছেন।

দুদকের অনুসন্ধানে প্রমাণিত হয়েছে তারা পরস্পর যোগসাজশে হস্তান্তর ও রূপান্তরের মাধ্যমে অবৈধ আয়কে বৈধ করার চেষ্টা করেছেন। যে কারণে ছেলে মির্জা অনিক ইসলামকে প্রধান আসামি ও পিতা মির্জা নজরুল ইসলামকে সহযোগী আসামি করে দুদক আইন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

রি-এমআর/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়