বিকেলে শেষ ম্যাচে নিউজল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামছে টাইগাররা

আগের সংবাদ

গোল করলেন নেইমার, ব্রাজিলের আটে আট

পরের সংবাদ

অংশ নিচ্ছে না ভারত : শিল্পকলায় গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসব শুরু ১ অক্টোবর

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১০, ২০২১ , ৯:১০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ১০, ২০২১ , ৯:১০ পূর্বাহ্ণ

দীর্ঘদিনের অচলায়তন আর দোলাচলের মধ্যেই আগামী ১ অক্টোবর ঢাকায় পর্দা উঠছে নাটকের বড় আয়োজন গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসবের। তবে বাংলাদেশ ও ভারতের মানুষের মাঝে মৈত্রীর বন্ধন দৃঢ় করার প্রত্যয়ে শুরু হওয়া এ উৎসবে গঙ্গাপাড়ের কেউ অংশগ্রহণ করতে পারছে না। বোন গঙ্গার অনুপস্থিতিতে যমুনা একাই উৎসব মাতাবে!

১১ দিনব্যাপী এ আয়োজনে ১৫০টির অধিক দল উৎসবকে রাঙাবে মঞ্চনাটক, পথনাটক, নৃত্যালেখ্য, সংগীতালেখ্য, দলীয় আবৃত্তি, দলীয় সংগীত, দলীয় নৃত্য ও শিশু-কিশোর সংগঠনের পরিবেশনায়। সব মিলিয়ে আনুমানিক ২৫০০ শিল্পীর অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে করোনাকালীন সময়ের এবারের উৎসব উদযাপন হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার ৫০ বছরে গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসবটি উৎসর্গ করা হচ্ছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। এর উদ্বোধন করবেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসব পর্ষদের আয়োজনে এ উৎসবে সহযোগিতা করছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।

উৎসবকে সামনে রেখে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার ৭ম তলায় খোলা হয়েছে উৎসব দপ্তরও। যেখানে প্রতিদিন বিভিন্ন উপকমিটির সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। উৎসবকে সফল করতে ১৫টি উপকমিটি গঠিত হয়েছে। করোনাকালীন এই উৎসব আয়োজনে বাড়তি প্রস্তুতি থাকছে কিনা, ভারতীয় সাংস্কৃতিক দলের অংশগ্রহণ না থাকায় কোনো অপূর্ণতা বা ¤øান হবে কিনা জানতে চাইলে উৎসব পর্ষদের আহ্বায়ক ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ ভোরের কাগজকে বলেন, করোনা মহামারির কারণে ভারতীয় ভিসা বন্ধ থাকায় এবার ভারতের কোনো সাংস্কৃতিক দল অংশ নিতে পারছে না। তারা অংশ নিলে উৎসবে বৈচিত্র্য আসতো এতে কোনো সন্দেহ নেই। করোনার কারণে এ বৈচিত্র্যটুকু থাকবে না। তবে উৎসব বন্ধ হবে না।

তবে আমাদের বিশ্বাস দীর্ঘ বিরতির পর এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে দেশের অনেক সংগীত, যাত্রা, শিশু সংগঠন, নাট্য, নৃত্যসহ সাংস্কৃতিক দলের অংশগ্রহণে এবারের উৎসবটি পূর্ণতা পাবে। তিনি জানান, উৎসবে প্রতিদিন দুটো করে সংগীত-নৃত্য-আবৃত্তি ছাড়াও ৭টি আবৃত্তি, ৭টি সংগীত এবং ৭টি নৃত্যের প্রযোজনাভিত্তিক পরিবেশনাও থাকবে। এ ছাড়া উন্মুক্ত মঞ্চে প্রতিদিন ২টি গানের দল, ২টি আবৃত্তির দল, ১টি পথ নাটক, ১টি শিশু সংগঠনসহ ৮০টি দলের পরিবেশনা থাকবে। থাকবে একক সংগীত-আবৃত্তির পরিবেশনাও।

ডি-এফবি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়