নিউজ ফ্ল্যাশ

আগের সংবাদ

চুক্তি সম্পন্ন, ২০২৩ পর্যন্ত ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডে রোনালদো

পরের সংবাদ

নবীগঞ্জে জামায়াত নেতার হাতে যুবলীগ কর্মী খুন, আহত ১০

প্রকাশিত: আগস্ট ৩১, ২০২১ , ৪:৪১ অপরাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ৩১, ২০২১ , ৪:৪২ অপরাহ্ণ

নবীগঞ্জ উপজেলায় জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষ জামায়াত নেতা নজরুল ইসলাম ও তার লোকজনের হাতে খুন হয়েছে ইউনিয়ন যুবলীগ কর্মী কামাল হোসেন (৩৮)। আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) সকালে উপজেলার ১ নম্বর বড় ভাকৈর ইউনিয়নের আমড়াখাই গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত কামাল ওই গ্রামের আব্দুল হেকিমের ছেলে এবং বদরুল মিয়ার চাচাতো ভাই।

নিহত কামালের মৃতদেহের ছুরতহাল শেষে হবিগঞ্জ মর্গে পাঠিয়েছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। আহতদের মধ্যে মামুন মিয়া (৪০)কে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকী আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার ইউপির আমড়াখাই গ্রামের মৃত আব্দুল খালিকের ছেলে জামায়াত নেতা নজরুল ইসলামের সাথে জমিজমা নিয়ে একই গ্রামের মৃত আব্দুল হাসিমের ছেলে বদরুল ইসলামের বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে উভয় পক্ষে মামলা মোকদ্দমাও রয়েছে। গত ৪ আগষ্ট সন্ধ্যায় যুবলীগ নেতা বদরুল স্থানীয় বাজারে যাওয়ার পথে তার মটর সাইকেলের গতিরোধ করে জামায়াত নেতা নজরুল ইসলাম, তার ছেলে ছাত্র শিবির কর্মী রফিকুল ইসলামসহ একদল লোক যুবলীগ কর্মী বদরুলকে উপর্যপুরি কুপিয়ে রক্তাক্ত করে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হয়। এ ঘটনায় বদরুল ইসলাম বাদী হয়ে জড়িতদের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করে। মামলায় ৩ জন আদালতের মাধ্যমে জামিনে আসলেও ২ জন বাড়িতে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ায়। পুলিশ রহস্যজনক কারণে তাদের গ্রেফতার করেনি। এদিকে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এলাকার শান্তি শৃংখলা রক্ষার্থে উভয় পক্ষকে এলাকায় গণ্যমান্য মুরুব্বীসহ থানায় ডেকে আনেন। বদরুল থানায় হাজির হলেও হাজির হননি ওই জামায়াত নেতা নজরুল। পরে যুবলীগ নেতা বদরুলের জমি নজরুল জবর দখলের পায়তাঁরা করলে নবীগঞ্জ থানাকে জানানো হয়। পরে পুলিশের এসআই অঞ্জন দেব বদরুলের আবেদনের প্রেক্ষিতে উভয় পক্ষকে নোটিশ প্রদান করে বিরোধীয় জমিতে না যাওয়ার জন্য নির্দেশ দেন। নোটিশ প্রাপ্তির দু’দিনের মাথায় গত ২৭ আগষ্ট গভীর রাতে ওই জামায়াত নেতা তার ভাড়াটিয়া দলবল নিয়ে বদরুলের জমিতে হালচাষ করে জবর দখল করে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। মঙ্গলবার (৩১ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নজরুল ইসলাম তার দলবল নিয়ে বিরোধীয় জমিতে গেলে বদরুল মিয়াগং বাধা দেয়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাধে। এতে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহত বদরুল মিয়ার চাচাতো ভাই কামাল হোসেনকে নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অপর আহত মামুন মিয়াকে (৪০ ) সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বাকি আহত যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম (২৮), মোস্তাকিম মিয়া (২৯) বদরুল মিয়াকে (২৪) প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। অন্যান্য আহত নজরুল মিয়া পক্ষের লোকজন স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা করানোর খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে জামায়াত নেতা কর্তৃক যুবলীগ কর্মী খুন ও জমি দখলের ঘটনায় বড় ভাকৈর (পশ্চিম) ইউনিয়ন আওয়ামীলীগসহ এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। তারা জড়িতদের অনতিবিলম্বে গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ডালিম আহমদ বলেন, ঘটনার জানার সাথে সাথে পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার ও ছুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। অভিযোগ প্রাপ্তি সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া জড়িতদের গ্রেফতারের বিষয়ে পুলিশের তৎপরতা শুরু হয়েছে।

ডি-আরআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়