জাপানে ১৬ লাখ ডোজ মডার্নার টিকা বাতিল

আগের সংবাদ

ফুটবলারদের ছাড়তে বললেন ইনফান্তিনো

পরের সংবাদ

কুড়িগ্রামে ধরলা নদী পানিতে টইটুম্বুর

প্রকাশিত: আগস্ট ২৬, ২০২১ , ১০:৫৬ অপরাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ২৬, ২০২১ , ১১:০৫ অপরাহ্ণ

গত দুই দিনের ভারী বৃষ্টি ও উজানের ঢলে কুড়িগ্রামে ধরলা নদীর পানি আবারও বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত দু’দিনের বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ধরলা নদী এখন টইটুম্বুর৷

এদিকে, ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, দুধকুমারসহ অন্যান্য নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেলেও তা এখনো বিপদসীমার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ অবস্থায় জেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত ধরলাসহ সব নদ-নদী অববাহিকার নিম্নাঞ্চলের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। ইতিমধ্যে ধরলানদী তীরবর্তী নীচু এলাকার বিপুল পরিমাণ জমির রোপা আমন, পটলসহ বিভিন্ন প্রজাতির সবজি ক্ষেত পানির নীচে তলিয়ে গেছে।

অন্যদিকে, নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে কুড়িগ্রামের উপর দিয়ে প্রবাহিত ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, ধরলা, দুধকুমার নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করেছে। বিশেষ করে খরস্রোতা তিস্তা নদীর ১৭ টি পয়েন্ট- ভাঙ্গন এতটাই তীব্র যে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় ৬০টি বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

এসব পরিবারের পাশে কেউ দাঁড়ায়নি অভিযোগ করেন তারা। সাম্প্রতিক সময়ে থেতরাই ইউপি’র ভাঙন কবলিত গোড়াইপিয়ার এলাকায় ভাঙ্গনরোধে জরুরি মেরামত কাজে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় ভুক্তভোগী জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করে বলেন জিও টেক্সটাইল ব্যাগে সঠিক পরিমাণে বালুভর্তি করে পরিকল্পিতভাবে ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় বস্তা নিক্ষেপ করলে আজ তার বাড়িসহ দক্ষিণ অংশের এতগুলো বসতবাড়ী নদীর গর্ভে যেতো না।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, ভারী বৃষ্টি ও উজানের পানিতে দ্বিতীয় দফায় নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে সেতু পয়েন্টে ধরলার পানি বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে এই মুহুর্তে বড় ধরনের বন্যার কোন আশংকা নেই বলে ঐ প্রকৌশলী দাবি করেন

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়