অন্তঃসত্ত্বা ও স্তন্যদানকারী মায়েরা টিকা নিতে পারবেন

আগের সংবাদ

বিদায় টোকিও স্বাগত প্যারিস

পরের সংবাদ

শেষ ম্যাচ নিয়ে তিন ক্রিকেটারের প্রত্যাশা

প্রকাশিত: আগস্ট ৮, ২০২১ , ১০:৪৪ অপরাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ৮, ২০২১ , ১০:৪৪ অপরাহ্ণ

ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়াকে বাংলাওয়াশ করার সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি টাইগাররা। সোমবার শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ফের জয়ে ফিরবে রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যরা, এমন প্রত্যাশা ক্রিকেটপ্রেমীদের। এদিকে ২৪ আগস্ট বাংলাদেশে আসছে নিউজিল্যান্ড। কিউইদের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে অংশ নেবে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে টানা তিন ম্যাচ জিতে আগেই সিরিজ নিশ্চিত করে টাইগাররা। এমনকি অজিদের প্রথমবার হোয়াইটওয়াশ করার সুযোগ পেয়েছিল মাহমুদউল্লাহ বাহিনী। কিন্তু চতুর্থ ম্যাচে ৩ উইকেটে জয়ের দেখা পায় সফরকারীরা। তাই অল্পের জন্য বাংলাওয়াশের লজ্জা থেকে নিস্তার পেয়েছে ম্যাথু ওয়েড বাহিনী। সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় পঞ্চম ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া।

সোমবারের ম্যাচ সম্পর্কে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুম পাইলট রবিবার ভোরের কাগজকে বলেন, উইকেটের যে আচরণ দেখছি, তাতে বাংলাদেশকে আজ জিততে হলে ১৩০ থেকে ১৪০ রান করতে হবে। চতুর্থ ম্যাচে যে রান করেছিলাম, তাতেও ম্যাচ জেতার সুযোগ ছিল। একটি ওভারের কারণে হয়তো ম্যাচটি জেতা হয়নি। আমরা যেমনি জেতার জন্য পরিকল্পনা করে খেলছি ওরাও (অস্ট্রেলিয়া) তেমনি পরিকল্পনা করে খেলছে। আমাদের বোলাররা ভালো বল করছে। ব্যাটসম্যানরা একটু সতর্ক হয়ে খেললে এবং রান করতে পারলে আমরা ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ জিততে পারব।

জাতীয় দলের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস

ওপেনিং জুটি সম্পর্কে জাতীয় দলের সাবেক এ উইকেটরক্ষক বলেন, চার ম্যাচে রান না পাওয়া ওপেনিং জুটিতে পরিবর্তন আনা উচিত। সোমবারের ম্যাচে অন্য কাউকে সুযোগ দেয়া উচিত। কারণ সামনে বিশ্বকাপ। সবাইকে পরীক্ষা করে দেখা উচিত।

সোমবারের ম্যাচে জয়ের বিকল্প ভাবতে নারাজ দুই দল। তবে আত্মবিশ^াসে বলীয়ান এবং দুর্দান্ত ফর্মে থাকা টাইগাররা যেভাবে খেলছে, তাতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে জিতলে অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না। তাছাড়া মাহমুদউল্লাহ বাহিনী অজিদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে টানা তিন ম্যাচে বেশ দাপটেই লড়াই করেছে। এমনকি টাইগার বোলার মোস্তাফিজুর রহমানকে নিয়ে নানা পরিকল্পনা করে মাঠে নেমেও তা বাস্তবায়ন করতে পারছেন না অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা। চতুর্থ টি-টোয়েন্টি শেষে এমনটাই জানিয়েছেন ড্যানিয়েল ক্রিস্টিয়ান। বাংলাদেশের কন্ডিশনে মোস্তাফিজুর রহমানকে বিশ্বের সবচেয়ে কঠিন বোলার হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন অস্ট্রেলিয়ার এ অলরাউন্ডার।

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টি-টোয়েন্টি সিরিজের পঞ্চম ম্যাচ নিয়ে রবিবার ভোরের কাগজকে জাতীয় দলের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস বলেন, সোমবার আমরা ১৪০ রান করতে পারলে ম্যাচ জেতা সহজ হবে। ১১০ থেকে ১২০ রান করে ম্যাচ জেতা কঠিন। উইকেট যতই খারাপ হোক না কেন টি-টোয়েন্টি ম্যাচ জিতলে হলে ১৩০ থেকে ১৪০ রান করতে হবে। আমাদের বোলাররা এ সিরিজে চমৎকার বল করছে। আর্লি উইকেট এনে দিচ্ছে। ডেথ ওভারে মোস্তাফিজ দুর্দান্ত বল করছে।

জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার তুষার ইমরান

অস্ট্রেলিয়া দলের দুর্বলতা সম্পর্কে বলতে গিয়ে এ টাইগার ব্যাটসম্যান বলেন, অস্ট্রেলিয়া দলটি দুর্বল নয়। ওরা এ কন্ডিশনে খেলতে পারছে না। মিরপুরের উইকেট আসলেই কঠিন। আমরা দীর্ঘদিন ধরে খেলছি, আমরাই উইকেটের আচরণ বুঝতে পারি না। অস্ট্রেলিয়ানরা পাওয়ার ক্রিকেট খেলতে অভ্যস্ত।

ঘরের মাঠে অজিদের বিপক্ষে প্রতি ম্যাচেই মোস্তাফিজ নিজেকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন। তার বোলিং তোপের সামনে লড়াই করতে পারছে না অজি ব্যাটসম্যানরা। কদিন আগে তৃতীয় ম্যাচে ১৯তম ওভারে ক্রিস্টিয়ানকে ক্রিজে আটকে রেখে ম্যাচ বের করে নিয়ে আসেন কাটার মাস্টার। শনিবার একই পরিণতি হতে পারত। কিন্তু সাকিবের এক ওভারে ক্রিস্টিয়ানের নেয়া ৩০ রানেই মূলত এগিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। যাহোক চতুর্থ ম্যাচে দল হারলেও মোস্তাফিজ নিজের কাজটা ঠিকমতোই করেছেন। ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে ৯ রান খরচায় শিকার করেন গুরুত্বপূর্ণ ২ উইকেট। তাই ম্যাচ শেষে মোস্তাফিজের প্রশংসা করতে ভোলেননি অজি ব্যাটসম্যান ক্রিস্টিয়ান। তিনি বলেছেন, এই কন্ডিশনে মোস্তাফিজকে সামলানো অসম্ভবের কাছাকাছি। এটা দারুণ, গতিময় রশিদ খানকে খেলার মতো।

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের শেষ ম্যাচ নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার তুষার ইমরান রবিবার ভোরের কাগজকে বলেন, আমরা আগেই সিরিজ জিতেছি। সামনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। খেলা হবে দেশের বাইরে। তাই সোমবারের ম্যাচটি স্পোর্টিং উইকেটে আয়োজন করলে ব্যাটসম্যানরা রানের দেখা পাবে।

রি-এসএস/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়