সংবাদপত্র পর্যালোচনা

আগের সংবাদ

নিউজ ফ্ল্যাশ

পরের সংবাদ

অলিম্পিকের ফাইনালে বিকেলে মুখোমুখি হচ্ছে ব্রাজিল ও স্পেন

প্রকাশিত: আগস্ট ৭, ২০২১ , ১০:৪২ পূর্বাহ্ণ আপডেট: আগস্ট ৭, ২০২১ , ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ

টোকিও অলিম্পিকে পুরুষদের ফুটবলের ফাইনালে আজ মাঠে নামছে ব্রাজিল ও স্পেন। বাংলাদেশ সময় বিকাল ৫টা ৩০ মিনিটে শুরু হবে ম্যাচটি। গতকাল মেক্সিকো ও জাপানের মধ্যে হয়েছে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী বা ব্রোঞ্জ মেডেল ম্যাচ। এ ম্যাচে মেক্সিকো ৩-১ গোলের জয় তুলে নেয়।

অলিম্পিকে এখন পর্যন্ত একবার করে স্বর্ণপদক জিতেছে ব্রাজিল ও স্পেন। ব্রাজিল সর্বশেষ রিও অলিম্পিকে স্বর্ণ জেতে। অন্যদিকে স্পেন ১৯৯২ সালের অলিম্পিকে সেরা হয়।

১৯৯২ সালে স্পেনেই হয় অলিম্পিক। সে আসর থেকে অলিম্পিকে অনূর্ধ্ব-২৩ জাতীয় দলের অংশগ্রহণ শুরু হয়। আর নিজ দেশে হওয়া অলিম্পিকে স্বর্ণ জেতেন স্পেনের খেলোয়াড়রা। এরপর ২০০০ সালের সিডনি অলিম্পিকে ফাইনালে খেললেও ক্যামেরুনের বিপক্ষে হেরে রৌপ্যপদক নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাদের। ফলে এবার ব্রাজিল ও স্পেন দুই দলই অলিম্পিকে নিজেদের দ্বিতীয় স্বর্ণের জন্য খেলতে নামবে।

অলিম্পিকে ১৯৯২ সালের পর যে পাঁচটি আসর হয়েছে, এর মধ্যে চারটিতেই ব্রাজিল পদক জয় করেছে। ১৯৯৬ সালে আটলান্টা অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ, ২০০৮ সালে বেইজিং অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ, ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে রৌপ্য ও ২০১৬ রিও অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জয় করে তারা। এবারো ব্রাজিলের পদক নিশ্চিত হয়ে গেছে। এখন আজ তাদের লক্ষ থাকবে টানা দ্বিতীয়বারের মতো স্বর্ণ জয় করা। অন্যদিকে স্পেন ২০০০ সালের সিডনি অলিম্পিকের পর টানা দুটি অলিম্পিকের মূল পর্বে জায়গা করে নিতে পারেনি।

এদিকে অলিম্পিকে এখন পর্যন্ত পাঁচটি গোল করে গোল্ডেন বুটের দৌড়ে সবার চেয়ে এগিয়ে আছেন ব্রাজিলের রিচার্লিসন। গ্রুপ পর্বে জার্মানির বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে তিনি হ্যাটট্রিক করেন। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে করেন জোড়া গোল। তবে কোয়ার্র্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনালে তিনি কোনো গোল করতে পারেননি। তবুও রিচার্লিসনের হাতেই এবারের গোল্ডেন বুট যাওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। রিচার্লিসনের পাঁচটি গোল ছোঁয়ার সুযোগ আছে শুধু স্পেনের মির ও ওয়ারজাবালের। মিরের নামের পাশে আছে তিনটি গোল। আর ওয়ারজাবাল করেছেন দুটি গোল। তিনি স্পেনের হয়ে ইউরোতে সব ম্যাচ খেলার পর অলিম্পিকেও এখন পর্যন্ত সব ম্যাচ খেলেছেন।

গোল্ডেন গ্লাভস জয়ের দিক দিয়ে এগিয়ে আছেন ব্রাজিলের গোলরক্ষক সান্তোস ও স্পেনের গোলরক্ষক উনাই সিমন। কারণ তারা দুজনই তিনটি করে ম্যাচে কোনো গোল হজম করেননি।

এখন আজ যার দল চ্যাম্পিয়ন হবে, তার হাতেই যাবে গোল্ডেন গ্লাভস।

এর আগে সেমিফাইনালে মেক্সিকোর বিপক্ষে পেনাল্টিতে জয় তুলে নিয়ে ফাইনালে ওঠে ব্রাজিল। অন্যদিকে স্পেন স্বাগতিক জাপানকে ১-০ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয় দল হিসেবে ফাইনালে ওঠে। এবারের টোকিও অলিম্পিকের ফাইনালে জায়গা করে নিয়ে ব্রাজিল টানা তৃতীয়বার অলিম্পিকের ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। অলিম্পিকের ইতিহাসে প্রায় পাঁচ দশক বা পঞ্চাশ বছর পর প্রথম কোনো দল হিসেবে ব্রাজিল ফাইনালে যাওয়ার হ্যাটট্রিক করেছে। প্রায় ৫০ বছর আগে একমাত্র দল হিসেবে টানা তিনটি অলিম্পিকের ফাইনালে যাওয়ার কীর্তি দেখিয়েছিল হাঙ্গেরি। ১৯৭২ সালে জার্মানির মিউনিখে হওয়া অলিম্পিকে তারা পোল্যান্ডের বিপক্ষে ফাইনাল খেলে। তবে সেবার তারা রানার্সআপ হয়। ১৯৬৪ সালে টোকিও ও ১৯৬৮ সালে মেক্সিকো সিটিতে হওয়া অলিম্পিকে হাঙ্গেরি স্বর্ণপদক জিতেছিল।

ডি-ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়