সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে হবে: মেয়র আতিক

আগের সংবাদ

গার্মেন্টস খোলার ঘোষণায় ঢাকামুখী মানুষ

পরের সংবাদ

পোষাক শ্রমিকদের দ্বিমুখী সংকটে ঠেলে দেওয়ায় শ্রমিক সংগঠনগুলোর নিন্দা

প্রকাশিত: জুলাই ৩১, ২০২১ , ৬:২৮ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ৩১, ২০২১ , ৬:৩২ অপরাহ্ণ

করোনার উচ্চতর সংক্রমনের মধ্যে ও লকডাউন চলা অবস্থায় ১ আগষ্ট থেকে রপ্তানিমুখী শিল্প কারখানা চালু করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে পোষাক শ্রমিকদের দ্বিমুখী সংকটে ঠেলে দেয়ার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বামপন্থী শ্রমিক সংগঠন গুলো।

শনিবার (৩১ জুলাই) পৃথক পৃথক বিবৃতিতে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য ফ্রন্ট, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ আকস্মিক ঘোষণায় কারখানা খুলে দিয়ে শ্রমিকদের সীমাহীন দুর্ভোগে ফেলে দেওয়ার প্রতিবাদ জানিয়েছে । একই সঙ্গে কারখানা চালুর আগে শ্রমিকদের জন্য পরিবহন, টিকা ও ঝুঁকি ভাতা নিশ্চিত করার দাবি করেছেন এ শ্রমিক সংগঠনগুলো।

গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি শ্রমিকনেতা মন্টু ঘোষ এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শ্রমিকনেতা ইকবাল হোসেন শনিবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ৫ আগস্ট পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে শ্রমিকদের বাড়ি যাবার সযাগ করে দিয়ে আবার ১ আগস্ট থেকে কারকানা খোলার সিদ্ধান্ত শ্রমিকদের সমস্যায় ফেলবে। তারা এই করোনা কালে তড়িঘড়ি করে কাজে যোগ দেবার জন্য আসার কারণে সংক্রমন বাড়তে পারে বলে আশঙ্খা প্রকাশ করেন তারা।

গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আহসান হাবিব বুলবুল এবং সাধারণ সম্পাদক সেলিম মাহমুদ ও একই অভিযোগ করে বলেছেন, এর ফলে শ্রমিকরা সুদুর গ্রাম থেকে তড়িঘড়ি করে আসতে প্রচুর সমস্যায় পড়বেন। এবং করোনা মহামারিতে আিক্রান্ত হবার সম্ভাবনাও থাকছে। তারা শ্রমিকদের জন্য পরিবহন ভাতা ও ঝুকিভাতা দেওবার দাবি জানান।

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান সংবাদপত্রে দেওয়া এক বিবৃতিতে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর উর্ধ্বগতি সত্ত্বেও কঠোর লকডাউনে রপ্তানিমুখী শিল্প কারখানা খুলে দেওয়ার সরকারি সিদ্ধান্তকে চরম অবিবেচনাপ্রসুত ও অমানবিক আখ্যায়িত করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। নেতারা মালিকদের স্বার্থ রক্ষায় সরকারের একতরফা অবস্থানের নিন্দা জানান এবং শিল্প-কারখানা চালুর আগে শ্রমিকদের জন্য পরিবহন ও টিকা নিশ্চিত করার পাশাপাশি ঝুঁকি ভাতা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন। তারা সরকারের ও কারখানা মালিকদের কাছে প্রশ্ন করেন যে শ্রমিকদের কি জীবিকার জন্য জীবন হারাতে হবে?

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়