নিউজ ফ্ল্যাশ

আগের সংবাদ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনায় ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৪

পরের সংবাদ

কঠোরতম লকডাউনেও রাজধানীতে থেমে থেমে যানজট (ভিডিও)

প্রকাশিত: জুলাই ২৯, ২০২১ , ১১:৩৫ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২৯, ২০২১ , ১২:৪৭ অপরাহ্ণ

কঠোরতম লকডাউনের সপ্তমদিনে রাজধানীতে গাড়ির চাপ বেড়েছে। দেখা দিয়েছে যানজট। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকালে রাজধানীর মহাখালী, পান্থপথ ও কলেজ গেইটসহ বিভিন্ন এলাকায় যানজট চোখে পড়ে। বেড়েছে মানুষের চলাচল।

এদিকে সড়কে ঢাকামুখী মানুষের চাপ আজ আরও বেড়েছে। প্রতিটি প্রবেশপথেই যানবাহন এবং মানুষের চাপ রয়েছে। সবচেয়ে বেশি চাপ রয়েছে পুরান ঢাকা বাবুবাজার ব্রিজ এলাকায়।

সপ্তাহের শেষ দিনেও সকাল থেকে রাজধানীতে যানবাহন এবং মানুষের চলাচল আরো বেড়েছে। যানবাহনের চাপে রাজধানীর বেশিরভাগ সড়কে থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। নগরীর লক্ষীবাজার, সদরঘাট মোড়, পুরানা পল্টন, শাহবাগ, কারন বাজার মোড়, রামপুরা রোড সহ বিভিন্ন ব্যস্ততম সড়কের ব্যক্তিগত যানবাহনের চাপ গত কয়েক দিনের তুলনায় বেশি দেখা গেছে। ব্যক্তিগত যানবাহনের পাশাপাশি সব সড়কে রিকশা এবং মোটরসাইকেলের দাপট রয়েছে।

লকডাউনের সপ্তমদিনে রাজধানীতে তৈরি হয়েছে যানজট। ছবি: ভোরের কাগজ

সকালে গাবতলী এলাকায় পুলিশের চেকপোস্টে যানবাহনের চাপে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এই চেকপোস্টে পণ্যবাহী যানবাহনের পাশাপাশি ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ অন্যান্য দিনের তুলনায় আজ অনেক বেশি বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানান। যানবাহনের পাশাপাশি পায়ে হেঁটেও অগণিত মানুষ আমিনবাজার ব্রিজ পার হয়ে ঢাকায় ঢুকছে।ফার্মগেট থেকে মহাখালি হয়ে আব্দুল্লাহপুর পর্যন্ত সড়কে আজ ব্যক্তিগত গাড়ি অন্যান্য দিনের তুলনায় বেশি চলাচল করছে। বনানী সিগনালে সকাল থেকেই থেমে থেমে যানজট হয়েছে।

অফিস খোলা থাকায় রাজধানীর সব সড়কে বিগত দিনগুলোর মতই অফিসগামী মানুষের ব্যস্ততা নজরে পড়ে। সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে ব্যস্ততম মতিঝিল, দিলকুশা ও ফকিরাপুল এলাকার প্রতিটি সড়কে মানুষ এবং যানবাহনের বেশ ভিড় রয়েছে। এসব এলাকার ব্যক্তি মালিকাধীন প্রায় সব অফিসে এখন স্বাভাবিক সময়ের মতো কর্মীদের উপস্থিতি রয়েছে। কাজের ব্যস্ততাও রয়েছে।

অফিস ছাড়াও বিভিন্ন জরুরী কাজে অসংখ্য মানুষ আজ রাস্তায় নেমেছে। সড়কগুলোতে পুলিশ চেকপোস্টে দায়িত্ব পালন করলেও যানবাহনের চাপের কারণে সব যানবাহন থামিয়ে লোকজনকে বাইরে বের হওয়ার কারণ জানতে পারছে না। রাজধানীর মিরপুর ১০, ১ নম্বর সেকশন, বিজয় স্মরণী মোড় সহ সব সড়কেই রিকশা এবং ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ অনেক বেড়েছে।

বুধবার রাত নয়টার দিকে রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোডে প্রাইভেটকারের ধাক্কায় বিপুল বিশ্বাস (৩০) নামে এক বাইসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। কঠোর বিধিনিষেধ চলমান থাকলেও সড়কে অবাধ এবং বেপরোয়াভাবে যানবাহন চলাচলের কারণে প্রায় প্রতিদিনই বিভিন্ন স্থানে এধরনের দুর্ঘটনা ঘটছে। দিনের বেলায় সড়কে পুলিশের উপস্থিতি বেশি থাকলেও রাতের ঢাকায় তা অনুপস্থিত। রাতের শিথিলতার সুযোগে রাজধানীর বাইরে থেকে সিএনজি অটোরিকশা, ব্যক্তিগত গাড়ি, মাইক্রোবাস, মিনি ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, এমনকি সুযোগ বুঝে যাত্রীবাহী বাসও ঢাকায় প্রবেশ করছে। এসব যানবাহন চালকদের বেপরোয়া আচরণে দুর্ঘটনাও ঘটছে।

রাজধানীর রামপুরা রাস্তার বর্তমান চিত্র। অন্যদিনের তুলনায় যানবাহনের সংখ্যা বেশি ছিল। ছবি: মাসুদ পারভেজ আনিস

এছাড়াও রাতে রাজধানীর গাবতলী, শ্যামলী, ফার্মগেট, কাওরান বাজার মোড়, পান্থপথ ও শাহবাগ এলাকা ঘুরে চলমান বিধিনিষেধ একেবারেই শিথিল অবস্থায় দেখা গেছে। কোথাও কোন চেকপোস্ট ছিল না। রাত দশটার দিকে পান্থপথে চেকপোস্টের জন্য রাস্তা জুড়ে ব্যারিকেড দিয়ে রাখা হলেও সেখানে পুলিশের উপস্থিতি দেখা যায়নি। এই অবস্থা ধানমন্ডি ২৭ নম্বর সড়ক এবং সিটি কলেজের সামনেও দেখা গেছে। বিজয় সরণি এলাকায় পুলিশ অবস্থান নিলেও তারা বিধিনিষেধ কার্যকরে মনোযোগী ছিলেন না। এভাবেই রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রাজধানীর প্রবেশপথগুলোতে পুলিশের নজরদারি একেবারেই কমে যায়। এই সুযোগে রাতের সড়ক ও মহাসড়ক আরও সরগরম হয়ে ওঠে। রাত ৯ টার পর থেকে অবাধে সিএনজি অটোরিকশা চলাচল শুরু হয়। ঢাকার বাইরে থেকে একের পর এক সিএনজি গাবতলী, আব্দুল্লাহপুর, বাবুবাজার ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সাইনবোর্ড এলাকা দিয়ে যাত্রী নিয়ে ঢাকায় প্রবেশ করছে। বিভিন্ন জেলা থেকে লোকজন রাতের আধারে মহাসড়ক নির্বিঘ্নে পাড়ি দিয়ে ঢাকায় পৌঁছে যাচ্ছে। চালকরা ভোর হওয়ার আগেই যাত্রী নিয়ে আবার ঢাকার বাইরে ফিরে যাচ্ছে। এখনো রাজধানীর ছেড়ে যাওয়া অনেক মানুষ এ ধরনের যানবাহনে রাতে ঢাকা ছাড়ার সুযোগ নিচ্ছে। রাতের বেলায় এই বিধিনিষেধ শিথিলের সুযোগে প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস ও মিনিট্রাকে লোকজন স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে গাদাগাদি করেই ঢাকায় ফিরছে এবং ঢাকা ছেড়েও যাচ্ছে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে পুলিশের চেকপোস্টে তৈরি হয়েছে যানজট। ছবি: ভোরের কাগজ

ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল চালকরা দিনের বেলায় বারবার পুলিশের বাধার মুখে পড়লেও রাতে তারা একেবারেই বাঁধনহীন। তাই গভীর রাতেও অসংখ্য বাইকচালককে নির্বিঘ্নে রাজধানীর সড়কে যাত্রী পরিবহন করতে দেখা যায়।

এদিকে আজ সপ্তাহের শেষ দিনেও সকাল থেকে রাজধানীতে যানবাহন এবং মানুষের চলাচল আরও বেড়েছে। সকালে গাবতলী এলাকায় পুলিশের চেকপোস্টে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। এই চেকপোস্টে পণ্যবাহী যানবাহনের পাশাপাশি ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ অন্যান্য দিনের তুলনায় আজ বেশি রয়েছে। যানবাহনের পাশাপাশি পায়ে হেঁটেও অগণিত মানুষ আমিনবাজার ব্রিজ পার হয়ে ঢাকায় ঢুকছে।

অফিস খোলা থাকায় রাজধানীর সব সড়কে বিগত দিনগুলোর মতোই অফিসগামী মানুষের ব্যস্ততা দেখা গেছে। অফিস ছাড়াও বিভিন্ন জরুরি কাজে ও অসংখ্য মানুষ তাদের জরুরি প্রয়োজনে আজ রাস্তায় নেমেছে। সড়কগুলোতে পুলিশ চেকপোস্টে দায়িত্ব পালন করলেও যানবাহনের চাপের কারণে সব যানবাহন থামিয়ে বাইরে বের হওয়ার কারণ জানা সম্ভব হচ্ছে না। রাজধানীর সব সড়কেই রিকশা এবং ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ অনেক বেড়েছে।

ডি-এফবি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়