বোবাদের মনের কথা বলবে কম্পিউটার

আগের সংবাদ

প্যারিস নয়, সানার চোখ লস অ্যাঞ্জেলেসে

পরের সংবাদ

বেতন বৈষম্য দূর হওয়ার আশ্বাসে বিমানের পাইলটদের কর্মসূচি স্থগিত

প্রকাশিত: জুলাই ২৭, ২০২১ , ১০:২২ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২৭, ২০২১ , ১০:২৩ অপরাহ্ণ

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে কাজ কমিয়ে দেয়ার ঘোষণা স্থগিত করেছে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স পাইলটস এসোসিয়েশন (বাপা)। বাপার সভাপতি ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান আজ মঙ্গলবার এ কথা জানিয়েছেন। বেতন বৈষম্য দূর করার দাবিতে ৩০ জুলাইয়ের পর চুক্তির বাইরে আর কোনো ফ্লাইট না চালানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন তারা। এতে বিমানের অনেক ফ্লাইট বাতিল হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল।

বাপা সভাপতি জানান, করোনা মহামারি আকারে দেখা দেয়ার পর বিমানের সবার বেতন কাটার শুরু হয়। প্রায় দেড় বছর পর আবার আগের মতো সবাইকে বেতন দেয়ার সিদ্ধান্ত হলেও পাইলটদের ক্ষেত্রে তা হয়নি। সে কারণে তারা কর্মবিরতির হুমকি দিয়েছিলেন। এর মধ্যে গত ১৯ জুলাই বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু সালেহ মোস্তফা কামালসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বাপা নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে বিমানের পাইলটদের বেতন বৈষম্য নিরসনের আশ্বাস দেন। পরে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে আমরা পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা স্বাভাবিকভাবেই ফ্লাইট পরিচালনা করব।

প্রসঙ্গত, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে বর্তমানে ১৫৭ জন পাইলট কাজ করছেন। ২০২০ সালের মে মাস থেকে তাদের বেতন ২৫ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত কাটা হচ্ছিল। গত ১৩ জুলাই সে আদেশে পরিবর্তণ আসে। এতে প্রায় সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে আবার আগের মতো বেতন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে বেতন কাটা সংক্রান্ত ওই আদেশে বলা হয়, বিমানে কর্মরত ‘কর্মকর্তা’ এবং যেসব ককপিট ক্রুর চাকরির বয়স শূন্য থেকে পাঁচ বছর, জুলাই মাসে তাদের কোনো বেতন কাটা হবে না। তবে যেসব ককপিট ক্রুর (পাইলটসহ) চাকরির বয়স ৫ থেকে ১০ বছর, জুলাই মাসে তাদের বেতন থেকে ৫ শতাংশ এবং যাদের চাকরিকাল ১০ বছর বা এর বেশি, তাদের ২৫ শতাংশ বেতন কাটা হবে।

এ নিয়ে আপত্তি তোলেন পাইলটরা। তারা বলছেন, পাইলটদের ওভারসিজ অ্যালাউন্স নামে একটি ভাতা দেয়া হত, যা বেতনের ২০ শতাংশ। সেটা এখন বন্ধ। তাই তাদের মূলত বেতনের ২৫ শতাংশের পরিবর্তে ৪৫ শতাংশ কাটা হবে। যাদের বেতন ৫ শতাংশ কাটা হবে, তাদের ক্ষেত্রেও সেটা ২৫ শতাংশে গিয়ে দাঁড়াবে। আর ৫ বছরের কম সময়ে দায়িত্বপালনকারী যাদের বেতন কাটা হবে না বলা হচ্ছে, তাদের সংখ্যা ৫ থেকে ১০ জনের বেশি নয় বলে পাইলটরা জানান। এটিকে বৈষম্য উল্লেখ করে পাইলটরা জানান, ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীর মতো বেতন সমন্বয় না করলে এরপর থেকে শুধু বিমান ও বাপার মধ্যে চুক্তি অনুযায়ী ফ্লাইট পরিচালনা করবেন তারা। এতে বিমানের অনেক ফ্লাইট বাতিল করতে হত।

আর-এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়