রাণীনগরে লকডাউন অমান্য করায় ৪৪ জনকে জরিমানা

আগের সংবাদ

ট্রেনে করে বাংলাদেশে আসছে ভারতীয় অক্সিজেন

পরের সংবাদ

শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় চিরনিদ্রায় ফকির আলমগীর (ভিডিও)

প্রকাশিত: জুলাই ২৪, ২০২১ , ৩:০২ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২৪, ২০২১ , ৯:০১ অপরাহ্ণ

ফকির আলমগীরের শেষ যাত্রায় আকাশও যেন কাঁদছিল। কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য নিয়ে আসা হলে শুরু হয় ঝুম বৃষ্টি। বৃষ্টি উপেক্ষা করে পূর্বনির্ধারিত সময়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের কৃষ্ণচূড়া গাছের নিচে শেষ শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাতে অসংখ্য ভক্ত-স্বজন ও দীর্ঘদিনের সতীর্থরা ভিড় জমান। তাকে একনজর দেখার আশায় কেউ হাতে ফুলের তোড়া, কেউবা ছাতা মাথায় ছুটে আসেন । পৌনে ১২ থেকে ১টা পর্যন্ত শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব শেষে রাজধানীর খিলগাঁওয়ের তালতলা কবরস্থানে শনিবার দুপুর আড়াইটায় তাকে সমাহিত করা হয়।

এর আগে বাদ যোহর চৌধুরীপাড়া মাটির মসজিদে ফকির আলমগীরের দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সেখান থেকেই দাফনের জন্য মরদেহ তালতলা কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ছাড়া সকাল ১১টা ১৬ মিনিটে রাজধানীর খিলগাঁওয়ের পল্লীমা সংসদ প্রাঙ্গণে ফকির আলমগীরের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সেখান থেকে তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হয়।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ব্যবস্থাপনায় শহীদ মিনারে ফকির আলমগীরের নাগরিক শ্রদ্ধাঞ্জলি অনুষ্ঠিত হয়। ‘কঠোর বিধিনিষেধ’ ও বৃষ্টি উপেক্ষা করে অনেকেই তাকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাতে ছুটে যান।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানানো হয় ফকির আলমগীরকে।

শ্রদ্ধা নিবেদন করে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, গণসংগীত সমন্বয় পরিষদ, পথনাটক পরিষদ, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগ, দনিয়া সাংস্কৃতিক জোট, মহাকাল নাট্য সম্প্রদায়, স্পন্দন, আদিঢাকা সাংস্কৃতিক জোট, যুব ইউনিয়ন, কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসর, জাসদ, ছাত্রমৈত্রী, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন।

গণসংগীত শিল্পী ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক ফকির আলমগীর শুক্রবার (২৩ জুলাই) রাত ১০টা ৫৬ মিনিটে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইউনাইটেড হাসপাতালে মারা যান। গত ১৫ জুলাই থেকে হাসপাতালটিতে তিনি ভর্তি ছিলেন।

ফকির আলমগীর সাংস্কৃতিক সংগঠন ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা, গণসংগীত চর্চার আরেক সংগঠন গণসংগীতশিল্পী পরিষদের সাবেক সভাপতি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করা ফকির আলমগীর গানের পাশাপাশি নিয়মিত লেখালেখিও করেন। ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও বিজয়ের গান’, ‘গণসংগীতের অতীত ও বর্তমান’, ‘আমার কথা’, ‘যারা আছেন হৃদয় পটে’সহ বেশ কয়েকটি বই প্রকাশ হয়েছে তার।

সংগীতের ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য এ পর্যন্ত পেয়েছেন রাষ্ট্রীয় ‘একুশে পদক’, ‘শেরেবাংলা পদক’, ‘ভাসানী পদক’, ‘সিকোয়েন্স অ্যাওয়ার্ড অব অনার’, ‘তর্কবাগীশ স্বর্ণপদক’, ‘জসীমউদ্‌দীন স্বর্ণপদক’, ‘কান্তকবি পদক’, ‘গণনাট্য পুরস্কার’, ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকার কর্তৃক মহাসম্মাননা’, ‘ত্রিপুরা সংস্কৃতি সমন্বয় পুরস্কার’, ‘ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড যুক্তরাষ্ট্র’, ‘জনসংযোগ সমিতি বিশেষ সম্মাননা’, ‘চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড বিশেষ সম্মাননা’ ও ‘বাংলা একাডেমি সম্মানসূচক ফেলোশিপ’।

আর-এসবি/ডি-এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়