তারেক নির্বাসনে না-কি মুচলেকায় দেশত্যাগ করেছেন, প্রশ্ন কাদেরের

আগের সংবাদ

কোরবানির মাংস নিয়ে ঝগড়ার জেরে ৪ জনের বিষপান, শিশুর মৃত্যু

পরের সংবাদ

পাকস্থলি, মলাশয়, মলদ্বার এবং পিত্তথলি ছাড়াই বেঁচে থাকার লড়াই

প্রকাশিত: জুলাই ২২, ২০২১ , ৩:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২২, ২০২১ , ৩:৩৩ অপরাহ্ণ

৩৬ বছর বয়সী জুয়ান ডুয়াল রসিকতা করতে পছন্দ করেন যে তিনি ভিতরে একদমই খালি, ফাঁকা। তবে তাঁর ক্ষেত্রে এই বা কথা আক্ষরিক অর্থেই সত্য। বছরের পর বছর ধরে তিনি বেচেঁ থাকার লড়াই করতে গিয়ে একে একে তার পাকস্থলি, মলাশয়, মলদ্বার এবং পিত্তথলি অস্ত্রোপচার করে ফেলে দিতে বাধ্য হয়েছেন। এগুলো ছাড়াই তিনি বাঁচতে শিখেছেন।

জুয়ানের দুঃখজনক কিন্তু অনুপ্রেরণার এই গল্প শুরু হয়েছিল যখন তার বয়স মাত্র ১৩ বছর। এরপরেই তাকে ফ্যামিলিয়াল মাল্টিপল পলিপোসিস নামে একটি ভয়ানক বংশগত রোগ ধরা পড়ে। এ পরিস্থিতিতে তার পাচকতন্ত্রে ক্যান্সার হওয়ার ৯৯.৮ শতাংশ আশংকা দেখা দেয়। তাঁর দাদী এবং তাঁর এক চাচা মলাশয়ের ক্যান্সারে মারা গিয়েছিলেন। তার পিতা একই পরিণতিতে অন্ত্রের অস্ত্রোপচার করেছিলেন। ১৯ বছর বয়সে, হাই স্কুল শেষ করার পরে, জুয়ান তার কোলন এবং মলদ্বার অপসারণের জন্য একটি কঠোর অস্ত্রোপচারের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। দুঃখের বিষয়, এটি কেবল শুরু ছিল ।

২৮ বছর বয়সে জুয়ান এর পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যায়। এই রোগে তার পাকস্থলি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। তাই তাকেও পাকস্থলিও কেটে ফেলে দিতে হয়। একটি পোস্ট-অপারেটিভ হেমোরেজের কারণে অল্প বয়য়ে স্পেনের এই মানুষটি জীবন প্রায় হারাতেই বসেছিলেন। তিনি শেষপর্যন্ত অলৌকিকভাবে বেঁচে যান। তবে তার সমস্যার এখানেই শেষ হয়নি। একের পর এক অঙ্গ হারালেও তিনি উঠে দাঁড়ানো এবং পা ফেলে একটু একটু করে হাঁটার চেষ্টা চালিয়ে যান।

তবু এসব দুঃখজনক ঘটনা যেনো ততটা খারাপ ছিলো না। এবার এলো আরও বড় বিপদ। একটি বিপজ্জনক ব্যাকটিরিয়া তার পিত্তথলিতে সংক্রামিত হয়। তাই অবশেষে এ অঙ্গটিও অপসারণ করতে তাকে আবার চিকিৎসকের ছুরির নিচে যেতে হয়।

কিন্তু এখানেই লড়াই থামিয়ে দেননি জুয়ান ডুয়াল। তিনি ঠিকই ম্যারথন দৌড়বিদ হিসেবে নিজের যুদ্ধ অব্যাহত রেখেছেন। দুঃখজনক, বিস্ময়কর কিন্তু লড়াইয়ের জন্য অনুপ্রেরণার এক বিরল উদাহরণ!

অডিটিসেন্ট্রাল অবলম্বনে

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়