বিএনপি একটি বাকবাকুম পার্টি: নানক

আগের সংবাদ

শতাধিক হতদরিদ্রের ঘরে ঈদ উপহার পৌঁছালো দক্ষিণ যুবলীগ

পরের সংবাদ

স্ত্রীর পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সাংসদ আফাজ উদ্দিন

প্রকাশিত: জুলাই ১৮, ২০২১ , ১০:৩০ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ১৮, ২০২১ , ১০:৩০ অপরাহ্ণ

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের সাবেক সংসদ সদস্য, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফাজ উদ্দিন আহমেদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। তার ছোট ছেলে দৌলতপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এজাজ আহমেদ মামুনসহ সঙ্গে থাকা পরিবারের অন্য সদস্যরা

রবিবার (১৮ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা থেকে মরদেহ দৌলতপুরের তারাগুনিয়ায় নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন। এ সময় স্বজনদের আহাজারিতে পরিবেশ ভারি হয়ে ওঠে। এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা ঘটে। বিকেলে বাদ আসর তারাগুনিয়া ফুটবল মাঠ প্রাঙ্গণে তার জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে ১০দিন আগে সমাহিত করা স্ত্রী মনোয়ারা বেগমের পাশে আফাজ উদ্দিন আহমেদকে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়। এ জানাজায় কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম আলতাাফ জর্জ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, জেলা পরিষদ চেয়াম্যান হাজি রবিউল ইসলাম, কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী, কুষ্টিয়া শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সদর উপজেলা চেঢারম্যান আতাউর রহহমান আতা, সাবেক সংসদ সদস্য রেজাউল হক চৌধুরী, দৌলতপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য রেজা আহমেদ বাচ্চুসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারাসহ মর্বস্তরের মানুষজন উপস্থিত ছিলেন।

দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বর্ষীয়ান নেতা আফাজ উদ্দিন আহমেদ ও তার স্ত্রী মনোয়ারা বেগম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে গত ২৩ জুন তাদের ঢাকায় নেয়া হয়। ভর্তি করা হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিইউতে। সেখানে চিকিৎসা গ্রহণের একপর্যায়ে মনোয়ারা বেগমকে লাইফ সাপোর্ট রাখা হয়। চারদিন লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় গত ৮ জুলাই সকালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। আফাজ উদ্দিন আহমেদ স্ত্রীর মৃত্যুর সময় ওই হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। তার শারীরিক অবস্থাও মোটামুটি স্থিতিশীল ছিল। কিন্তু স্ত্রীর মৃত্যুর পর থেকেই ধীরে ধীরে তার অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিনের কান্ডারি আফাজ উদ্দিন আহমেদের অবস্থার মারাত্মক অবনতি ঘটায় গত পাঁচদিন আগে বিএসএমএমইউ থেকে তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) নেয়ার পর ক্রমশ আরো অবস্থার অবনতি হওয়ায় লাইফ সাপোর্ট দেয়া হয়। একপর্যায়ে হাল ছেড়ে দেন হাসপাতালটির চিকিৎসকরা। টানা ২৪ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াইয়ের পর হেরে যান তিনি। স্ত্রীর মৃত্যুর ১০ দিন পর শনিবার দিবাগত রাত ১টা ৪০ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক এই সংসদ সদস্য।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়