পঞ্চগড় জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

আগের সংবাদ

সর্বাত্মকভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রীর

পরের সংবাদ

ঢাকা ছেড়ে যাওয়া মানুষের চাপ বাড়ছে পাটুরিয়া-আরিচাঘাটে

প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২১ , ৭:২৬ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ১৭, ২০২১ , ৭:৩৩ অপরাহ্ণ

আসন্ন ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে বাড়ছে পরিবহন ও ঘরমুখো মানুষের চাপ। তবে স্বাস্থ্যবিধি মানার নেই কোনো বালাই। লঞ্চ, ফেরি, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসে গাদাগাদি করে যাতায়াত করছে মানুষ। গাড়ির মধ্যে কিছুটা স্বাস্থ্যবিধি মানলেও উঠা-নামার সময় একেবারেই মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি। একজনের সঙ্গে আরেকজনের শরীর লাগিয়ে হুড়মুড় করে বাসে উঠানামা করছেন। এতে করোনা সংক্রমন বৃদ্ধির আশঙ্কা করছেন সচেতন মহল। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার এবং আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ১৬টি জেলার যাত্রী যাতায়াত করছেন। যাত্রীরা ঢাকা থেকে যেমন গ্রামের দিকে যাচ্ছে তেমনি গ্রাম থেকেও ঢাকার দিকে ফিরছে। ফলে আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে যাত্রী ও যানবাহনের ভীড় দিন দিন বেড়েই চলছে। ফলে আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাটে মারাত্মক করোনা ঝুঁকিতে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিশেজ্ঞরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, লকডাউন শিথিলের পর আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে যানবাহনের চাপ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাড়ছে যাত্রীর ভীড়। পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাটে পণ্যবাহী ট্রাক এবং যাত্রীবাহী প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাসের ভীড় দেখা গেছে। শুক্রবার সকালের দিকে ফেরি ঘাট এলাকা থেকে সড়কেও যানবাহনের লাইন দেখা গেছে। বিশেষ করে আরিচা ঘাটে গত শুক্রবার সকালে ঘাটে আসা পণ্যবাহী ট্রাক শনিবার দুপুরেও ফেরি পার হতে পারেনি। প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসের যাত্রীদেরকেও ফেরি পারের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে। ফলে ঘাটে আটকে পড়া যাত্রী এবং যানবাহন শ্রমিকদেরকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এদিকে কোরবানির পশুবাহী ট্রাক রাজবাড়ির দৌলতদিয়া ঘাট হয়ে ঢাকায় আসার কারণে সেখানে পশুবাহী ট্রাকসহ অন্যান্য গাড়ির দীর্ঘ সারি রয়েছে।

ট্রাক চালক হাফিজুর রহমান জানান, পাবনা যাওয়ার উদ্দেশে ঢাকা থেকে গত বুধবার আরিচা ঘাটে আসি। কিন্তু শুক্রবার দুপুরেও ফেরি পার হতে পারিনি। ট্রাক চালক মজিদ মিয়া বলেন, ঢাকা থেকে পাবনা যাওয়ার উদ্দ্যেশ্যে সিমেন্ট বোঝাই করে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আরিচা ঘাটে আসেন। কিন্তু শনিবার বেলা আড়াইটাতেও তিনি ফেরি পার হতে পারেননি। যাত্রীবাহী যানবাহন অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে পারাপার করায় পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে ফেরি পারের জন্য দিনের পর দিন ঘাটেই অপেক্ষা করতে হচ্ছে। ফলে খাদ্য সংকটসহ নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাদেরকে।

ট্রাক চালক তারেক মিয়া বলেন, আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে দিন দিন যানাবাহনের চাপ বাড়ছে। যানবাহনের তুলনায় ফেরি কম হওয়ায় এ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ আরশ্বাদ উল্লাহ জানান, করোনা একটি সংক্রামক রোগ। এ রোগ একজন থেকে আরেকজনের দেহে অতি সহজে সংক্রামিত হয়। তাই সকলকে নিরাপদ দুরুত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলাচল করার পরামর্শ দেন তিনি। বিভিন্ন চ্যানেলে আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাটে যেভাবে যাত্রীদের ভীড় দেখা যাচ্ছে , এভাবে যাত্রীদের যাতায়াত অব্যাহত থাকলে করোনা সংক্রমনের ঝুঁকি আরো বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

বিআইডব্লিউটিসি’র ডিজিএম জিল্লুর রহমান জানান, দৌলতদিয়া প্রান্তে ঢাকাগামী গরুবোঝাই ট্রাকের চাপ দিন দিন বাড়ছে। পাশাপাশি অন্যান্য গাড়ির চাপও রয়েছে। এরপর সামনে কোরবানির ঈদ উপলক্ষে যাত্রীদের যাতায়াত বাড়ছে। তবে আমাদের পক্ষ থেকে সকল প্রকার প্রস্তুতি রয়েছে। আশা করি কোন সমস্যা হবে না।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়