রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই টিকা পাবেন পোশাক শ্রমিকরা

আগের সংবাদ

বাংলাদেশের মেয়েরা একদিন ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেবে (ভিডিও)

পরের সংবাদ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের মিশনে নামছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২১ , ১০:৪৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ১৭, ২০২১ , ১০:৪৩ অপরাহ্ণ

জিম্বাবুয়ে সফরে গিয়ে বেশ ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে টাইগাররা। স্বাগতিকদের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে জয়ের পর তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচটি ১৫৫ রানে জিতেছে তামিম বাহিনী। হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে আগামীকাল দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুদল। বাংলাদেশ সময় দেড়টায় ম্যাচ শুরু হবে। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে টি-স্পোটস ও গাজী টিভি।

এদিন জিতলে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয় নিশ্চিত হবে রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যদের। ২০ জুলাই শেষ ম্যাচে জয় পেলে বেন্ডন টেলর বাহিনীকে হোয়াইটওয়াশের স্বাদ দিতে সক্ষম হবে টাইগাররা। রবিবারের ম্যাচটি তামিম বাহিনীর জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ন। কারণ ২০২৩ বিশ্বকাপ সরাসরি খেলতে আইসিসি ওয়ানডে সুপার লিগের সেরা সাতে থাকতে হবে বাংলাদেশকে।

সেই লক্ষ্যে সিরিজের প্রথম ম্যাচ জিতে তিনে থাকা অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান বাড়িয়ে নিয়েছে দুই নম্বরে থাকা লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। গতকাল শুক্রবার জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ১০ পয়েন্ট অর্জন করেছে তামিম বাহিনী। আগামীকাল জিতলে আরো ১০ পয়েন্ট যোগ হবে টাইগারদের নামের পাশে। তবে বাংলাদেশের আগে আছে কেবলমাত্র ইংল্যান্ড।

এ দলটি ১৫ ম্যাচে ৯৫ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। আর ১০ ম্যাচ খেলে ৬০ পয়েন্ট সংগ্রহ করে দ্বিতীয় স্থানে আছে টাইগাররা। তিন নম্বরে থাকা অস্ট্রেলিয়ার পয়েন্ট ৪০। তাই জিম্বাবুয়েকে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ হোয়াইওয়াশ করতে পারলে বাংলাদেশ ৮০ পয়েন্ট নিয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবে।

তাই এদিন দুদলের লড়াইটা বেশ হাড্ডাহাড্ডি হবে। দ্বিতীয় ম্যাচের আগে জয়ের প্রত্যাশা জানিয়েছেন টাইগার দলপতি তামিম। তিনি বলেন, আগামী ম্যাচগুলোতে আমাদের টপ অর্ডারদের আরো ভালো খেলতে হবে। তবে আমাদের বোলিং নিয়ে আমি খুবই খুশি। এছাড়া তামিম আরো জানিয়েছেন, লিটন শঙ্কামুক্ত হলেও দ্বিতীয় ম্যাচেও অনিশ্চিত মোস্তাফিজুর রহমান।

এর আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ব্যাটিং করলেও কিপিং করা হয়নি লিটন দাসের। কব্জির পুরনো ব্যথা মাথাচাড়া দিয়ে ওঠায় তার বদলে কিপিংয়ের দায়িত্ব সামলেছেন নুরুল হাসান। তবে দ্বিতীয় ম্যাচের আগে শঙ্কামুক্ত আছেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বড় জয়ে গুরুত্বপূর্ন অবদান ছিল লিটনের।

দ্বিতীয় ম্যাচে তাই লিটনকে হারালে কঠিন পরিস্থিতিতে পড়তে হতে পারে বাংলাদেশকে। তাই এ বিষয়ে তামিম বলেন, লিটনকে নিয়ে কোনো চিন্তা নেই। তার অবস্থা আমি যতটা জানি এখন আগের চেয়ে অনেক ভালো। আশা করছি লিটন দ্বিতীয় ম্যাচে খেলবে।

এদিকে ওয়ানডে সিরিজে খেলার আগে প্রস্তুতি ম্যাচে ৫ বল করেই মাঠের বাইরে ছিটকে যান মোস্তাফিজ। ৫ বল করার পর পরই অস্বস্তিবোধ করতে থাকেন বাঁহাতি এই পেসার। এরপর খোঁড়াতে খোঁড়াতে মাঠ ছেড়েছেন তিনি। মূলত ডান পায়ের গোড়ালিতে টান লাগায় এই পরিস্থিতিতে পড়তে হয় তাকে।

তাই এ বিষয়ে তামিম বলেন, দ্বিতীয় ম্যাচেও মোস্তাফিজকে ছাড়াই মাঠে নামতে হবে। ওর সম্ভাবনা এখনও ফিফটি-ফিফটি। মাঠে নামার আগে মোস্তাফিজের ফিটনেসটা খুঁটিয়ে দেখা হবে। তারপর হয়ত বলা যাবে কি হয়।

এদিকে প্রথম ম্যাচে ব্যাট হাতে টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার পরও শেষ পর্যন্ত লড়াকু পুজিঁ পায় বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে যখন সিনিয়ররা ব্যর্থ তখন দলের হাল ধরেন তরুণরা। শুরুতে লিটন দাস আর শেষ দিকে ব্যাট হাতে গর্জে ওঠেন আফিফ ও মিরাজ। এরপর বোলারদের দুর্দান্ত নৈপুন্যে ১৫৫ রানের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে টাইগাররা। তাই তরুণদের এমন অবদান মুগ্ধ নয়নে দেখছেন তামিম।

তিনি বলেন, উন্নতির তো কোনো শেষ নেই। তবে কম রানে তিনটা উইকেট পড়ে যাওয়া আদর্শ না। টপ অর্ডার থেকে আমি বা সাকিব যদি আরেকটু ভালো খেলি, তাহলে দল হয়তো এমন অবস্থায় পড়বে না। একটা পর্যায়ে খুব বিপদে ছিলাম। তবে লিটন, আফিফ ও মিরাজরা বেশ দ্বায়িত্ব নিয়ে খেলেছে। তাছাড়া আমাদের বোলিং নিয়েও আমি খুবই খুশি। আর সবসময় ১০০ বা ৫০ নিয়ে কথা বলা খুব সহজ। আফিফের ৪৫ রানের ইনিংসটি ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সে ওই ইনিংসটা না খেললে ২৭৬ রান করতে পারতাম না। হয়ত ৩০-৪০ রান কম হতো। মিরাজের ২৬ রানের ইনিংসও গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আমার কাছে মনে হয় এই ছোট ছোট অবদানের কৃতিত্ব দেয়া গুরুত্বপূর্ণ।

রি-কেই/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়