তামিম কেন বারবার ব্যর্থ

আগের সংবাদ

লায়ন্স ক্লাবের রিজিয়ন চেয়ারপার্সন হলেন কমর উদ্দিন আহমেদ

পরের সংবাদ

পার্বতীপুরে করোনায় সর্বশান্ত সাত শতাধিক হকার, জরুরী সহায়তা প্রয়োজন

প্রকাশিত: জুলাই ১৬, ২০২১ , ৯:২৪ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ১৬, ২০২১ , ৯:৩২ অপরাহ্ণ

কোভিড-১৯ মহামারিতে দিনাজপুুরের পার্বতীপুরে সাত শতাধিক হকার-ফেরিওয়ালা সর্বশান্ত হয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। পার্বতীপুর দেশের অন্যতম বৃহত্তম জংশন ষ্টেশনে এসব হকার-ফেরিওয়ালা ট্রেনে-বাসে সংবাদপত্রসহ বিভিন্ন দ্রব্যাদি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতো। গত দেড় বছরে কয়েকদফা লকডাউনে ট্রেন-বাস বন্ধ থাকায় তারা ঘরে বসে জমানো টাকাসহ পুঁজি খেয়ে ফেলেছে। এ অবস্থায় দ্রুত খাদ্য ও অর্থ সহায়তা চেয়ে তারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউএনও’র কাছে আবেদন করেছেন।

জানা গেছে, পার্বতীপুর উপজেলায় হকার ও ফেরিওয়ালাদের পৃথক দুটি সংগঠন রয়েছে। ৪১৯ জন সদস্য নিয়ে পার্বতীপুর হকার্স শ্রমিক ইউনিয়ন এবং ২৮৭ জন সদস্য নিয়ে জাতীয় হকার্স লীগের অন্তর্ভূক্ত পার্বতীপুর হকার্স লীগ গঠিত।

হকার্স ইউনিয়নের সদস্য ফাইমুল ইসলাম, সরল চন্দ্র ও মাইনুল ইসলাম জানান, দেশে দেড় বছর ধরে করোনাকাল চলছে। এসময়ের মধ্যে কখনো স্থানীয়ভাবে লকডাউন হয়েছে, কখনো জাতীয় পর্যায়ে লকডাউন। এরপর বিধি নিষেধ মেনে চলতে গিয়ে সকল হকার-ফেরিওয়ালাদের জীবনটাই থমকে দাঁড়িয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে লকডাউন উঠিয়ে নেওয়া হয়েছে দেশব্যাপী। আবার আগামী ২৩ জুলাই থেকে কঠোর লকডাউন শুরু হবে বলে সরকারিভাবে বলা হয়েছে। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত হকার-ফেরিওয়ালারা তাদের পণ্য বেচাকেনা করতে পারবেন। কিন্তু প্রত্যেক হকার ইতিমধ্যে তাদের পুঁজি খেয়ে বসে আছে। এ অবস্থায় নতুন করে পণ্য নিয়ে মার্কেটে যেতে হলে আবারও পুঁজির দরকার।

জাতীয় হকার্স লীগের পার্বতীপুর শাখার সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, মো. ফিরোজ রনি ও মো. মিজানুুর রহমান বলেন, সরকার লকডাউন উঠিয়ে নিলেও সময় পাওয়া গেছে মাত্র ৬ দিন। নতুন করে হকারি ও ফেরি শুরু করতে হলে পুঁজি সংগ্রহ করতে করতে এসময় পেরিয়ে যাবে। এসবের বাইরে এখন চলছে বর্ষাকাল। প্রকৃতির নিয়মে এসময় যে কোনো পণ্য হকারি করে, ফেরি করে বিক্রি করা কঠিন। এ কারণে স্ত্রী, পুত্র, পরিজন নিয়ে আমরা সবাই ঈদ উদযাপনে অনিশ্চয়তার মধ্যে আছি।

লকডাউনের কারণে অনেকেই ব্যবসা করার সুযোগ না পেয়ে সর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন। রেলের এক হকার। শুক্রবার তোলা ছবি

পার্বতীপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও হকার্স লীগ পার্বতীপুর শাখার সভাপতি মো. মোশারফ হোসেন সমাজ বলেন, দেড় যুগ আগে পার্বতীপুরে এ সংগঠনটি গড়ে তোলে আমার ছোট ভাই মরহুম ফয়সাল আলম বিজ্ঞান। সে মারা যাওয়ার পর আমাকে সভাপতির দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। হাকরদের দুঃখ-দুর্দশা আমি খুব কাছ থেকে দেখে আসছি। পার্বতীপুরের হকার-ফেরিওয়ালাদের সহায়তায় তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

পার্বতীপুর হকার্স ইউনিয়নের সভাপতি মো. হান্নান শেখ ও সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম বলেন, করোনার কারনে গত দেড় বছরে আমাদের সবার পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এ অবস্থায় জরুরীভাবে সরকারি সহায়তা প্রয়োজন।

পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হাফিজুল ইসলাম প্রামাণিক জানান, হকারদের জন্য ত্রাণ সহায়তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাশিদ কায়সার রিয়াদ জানান, সংবাদপত্রের হকারসহ পার্বতীপুরের সকল হকার-ফেরিওয়ালাদের সবরকম সহায়তা প্রদানের ব্যবস্থা করা হবে।

ডি-আরআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়