৫২ শ্রমিকের মৃত্যুতে দোষীদের শাস্তির দাবি

আগের সংবাদ

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ফাইনাল নিয়ে সংঘাত ঠেকাতে পুলিশের মাইকিং

পরের সংবাদ

ঘরের মাঠে ব্রাজিল এগিয়ে, মরণকামড় দেবে আর্জেন্টিনা: তপু বর্মন

প্রকাশিত: জুলাই ১০, ২০২১ , ৭:০১ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ১০, ২০২১ , ৭:০১ অপরাহ্ণ

মারাকানা স্টেডিয়ামে আগামীকাল কোপা আমেরিকার ফাইনাল ম্যাচে মাঠে নামছে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল। বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায় রিও ডি জেনেরিওর মারাকানা স্টেডিয়ামে শুরু হবে ম্যাচটি। আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল ম্যাচ মানে সেয়ানে সেয়ানে লড়াই। এখানে ফিফা র‌্যাংকিং কিংবা অন্য কোনো পরিসংখ্যান কাজে দেবে না। মাঠের লড়াইয়ে যারা সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে পারবে, তারাই জিতবে। সারা বিশ্বের ফুটবল অনুরাগীরা এ ম্যাচ দেখার অপেক্ষায় রয়েছে। ভোরের কাগজের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় জাতীয় দলের ডিফেন্ডার তপু বর্মন জানিয়েছেন, ফাইনালে ঘরের মাঠের সুবিধা পাচ্ছে ব্রাজিল। অন্যদিকে শিরোপাপ্রত্যাশী আর্জেন্টিনা মরণকামড় দিতে প্রস্তত। এ ম্যাচে দুই দলেরই জয়ের সম্ভাবনা ফিফটি ফিফটি। আমার দৃঢ়বিশ্বাস ম্যাচটি বেশ উপভোগ্য হবে। ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা এই ফাইনালের মাধ্যমে ১১২তম ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে। আগের ১১১টি ম্যাচের মধ্যে ব্রাজিল জয় পেয়েছে ৪৬টিতে, আর্জেন্টিনা জয় পেয়েছে ৪০টিতে। আর বাকি ২৫টি ম্যাচ ড্র হয়েছে।

ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা কোপা আমেরিকা ও দক্ষিণ আমেরিকান চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছে ১০ বার। এর মধ্যে আটবারই শিরোপা জিতেছে আর্জেন্টিনা। ১৯৭৫ সালের আগে বর্তমান কোপা আমেরিকা দক্ষিণ আমেরিকান চ্যাম্পিয়নশিপ নামে পরিচিত ছিল। সেই চ্যাম্পিয়নশিপে সাতবার ফাইনালে খেলেছে দুই দল। তবে এর মধ্যে একবারও শিরোপা জিততে পারেনি পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। এরপর কোপা আমেরিকার যুগে ১৯৯১ সালে শিরোপার মঞ্চে খেলে তারা। সেবারও জয় তুলে নেয় আর্জেন্টিনা। এরপর যথাক্রমে ২০০৪ ও ২০০৭ সালের ফাইনালে খেলে এই দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। আর সেই দুবারই শিরোপা জেতার স্বাদ পায় ব্রাজিল। বছরের হিসাবে প্রায় ১৪ বছর পর ফের শিরোপার জন্য লড়াই করতে নামছে দুই দল। ব্রাজিলের চেয়ে আর্জেন্টিনা কোপা আমেরিকার শিরোপা বেশি জিতেছে। ব্রাজিল জিতেছে ৯ বার, আর্জেন্টিনা ১৪ বার। সবচেয়ে বেশি ১৫ বার শিরোপা জিতেছে উরুগুয়ে।

ঘরের মাঠে ব্রাজিল একটু চাপে থাকবে। তারা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন, তাই তাদের চাপ বেশি। এবারের টুর্নামেন্টে আর্জেন্টিনা যেভাবে খেলছে, তাতে তারাই শিরোপার দাবিদার। ২০১৪ সালের বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা যে দুর্দান্ত নৈপুণ্য প্রদর্শন করেছিল, এবারও সেই ধারায় এগোচ্ছে লিওনেল মেসিরা। মোদ্দা কথা রক্ষণভাগ, মধ্যমাঠ এবং আক্রমণভাগে সাদা-আকাশি জার্সিধারী খেলোয়াড়রা চমৎকার খেলছে। ব্রাজিলও ভালো ফুটবল খেলছে। পাকুয়েতা গত দুই ম্যাচে দলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। নেইমারকে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়রা কড়া মার্কিংয়ে রাখলে সেক্ষেত্রে গোল পাচ্ছেন পাকুয়েতা। অন্যদিকে মেসিকে যখন কড়া পাহারায় রাখা হচ্ছে, সেক্ষেত্রে লাওতারো মার্টিনেজ আর্জেন্টিনা হয়ে গোল করছেন। আমি এখন পর্যন্ত আর্জেন্টিনাকে বড় কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা জিততে দেখেনি। এবার কোপা আমেরিকা হয়তো তার শেষ টুর্নামেন্ট। আগামী বছর হয়তো কাতার বিশ্বকাপে খেলবেন তিনি। এবার আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়রা মেসির জন্য শিরোপা জিততে মরিয়া। মেসি এবং নেইমার দুজনের জন্যই ফাইনাল ম্যাচটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

ফাইনালে দুই দলের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়দের জন্য অগ্নিপরীক্ষার ম্যাচও। এখানে ভুল করা যাবে না। বেশ সতর্ক থাকতে হবে তাদের। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে আর্জেন্টিনা আছে অষ্টম স্থানে, ব্রাজিলের অবস্থান ৩। গুরুত্বপূর্ণ এ ম্যাচে র‌্যাঙ্কিং কোনো বিষয় নয়। যারা পরিকল্পিত আক্রমণ থেকে ফায়দা লুটতে পারবে, তারাই ট্রফি ঘরে তুলতে সক্ষম হবে। মেসি-নেইমারের শ্রেষ্ঠত্বের এ লড়াইয়ে ব্রাজিলের গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারের চেয়ে আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ এগিয়ে। কারণ সেমিফাইনালে দলের জয়ে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন তিনি। গোলপোস্টের নিচে তিনি বেশ আত্মবিশ্বাসী।

রি-এসএস/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়