গোল্ডেন বুটের দাবিদার মেসি-রোনালদো

আগের সংবাদ

লকডাউনে পিষ্ট মধ্যবিত্ত : কেউ সঞ্চয় ভেঙে খাচ্ছেন আবার অনেকে হচ্ছেন কর্মহীন

পরের সংবাদ

আগরতলা থেকে সরানো হল বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্মারক, নিন্দার ঝড়

প্রকাশিত: জুলাই ৮, ২০২১ , ১:১৭ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুলাই ৮, ২০২১ , ১:৫২ পূর্বাহ্ণ

ভারতের ত্রিপুরার আগরতলার চৌমুহনী থেকে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্মারক সরিয়ে ফেলেছে সেখানকার রাজ‍্য সরকার। এরপর থেকে নিন্দার ঝড় উঠেছে বলে বুধবার (৭ জুলাই) হিন্দুস্তান টাইমসের বাংলা সংস্করণে প্রকাশ হওয়া খবরে এমন তথ‍্য জানানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, দিনকয়েক আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের ত্রিপুরার মুখ‍্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবকে রসালো ফল ‘হাড়িভাঙ্গা’ উপহার পাঠিয়ে যে ‘আম কূটনীতি’ শুরু করেছিলেন। জবাবে তারা মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সরিয়ে নিল। যদিও আম পেয়ে মুখ‍্যমন্ত্রী খুশি হয়ে বলেছিলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ত্রিপুরার আনারস পাঠাবেন। কিন্তু তার আগেই মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্মারক সরানো নিয়ে তরজা শুরু হল।

হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, ত্রিপুরার আগরতলার চৌমুহনি পোস্ট অফিস সংলগ্ন এলাকা থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে প্রায় ৪০ ফুট লম্বা ৭১ সালের বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্মারক। এই অভিযোগকে কেন্দ্র করে ত্রিপুরা ও প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয়েছে প্রতিবাদের ঝড়। একাধিক রাজনৈতিক দল, সাংস্কৃতিক সংগঠন ও বুদ্ধিজীবীদের অনেকেই এই কাজের বিরোধিতায় সরব হয়েছেন। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ওই স্মারকটিকে পুনরায় ওই জায়গায় স্থাপন করার দাবিও তোলা হয়েছে।

সিপিএম প্রভাবিত একটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের একজন সদস্য বলেন, আমাদের দাবি ওই যুদ্ধস্মারকটিকে ফের স্থাপন করতে হবে। আমাদের আশা সরকার এ ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেবে।

এদিকে বাংলাদেশের নাট্যকর্মী, সাহিত্য জগতের লোকজন, ঐতিহাসিক সহ যৌথভাবে এই কাজের প্রতিবাদ জানিয়েছেন। তাদের দাবি, এটা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের অংশ। এটিকে এভাবে অবমাননা করা ঠিক নয়।

যৌথভাবে তারা জানিয়েছেন, এটি দু’ দেশের মধ্যে বন্ধনের একটি প্রতীক ছিল। সেটিকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। আমরা ভারতের কাছে অনুরোধ করছি, দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ককে বজায় রাখার জন্য এটিকে আগের জায়গায় স্থাপন করা হোক।

বাম আহ্বায়ক বিজন ধর বলেন, সরকারের এই কাজের নিন্দা আমরা করছি। এটির সঙ্গে আবেগ জড়িয়ে রয়েছে। কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা না করে এটিকে সরিয়ে ফেলা ঠিক হয়নি। আমরা এর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

কংগ্রেসও এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছে। তবে বিজেপি মুখমাত্র নব্যেন্দু ভট্টাচার্য বলেন, আমাদের সরকার স্মারকগুলিতে সংরক্ষণ করতে চাইছে। সে কারণেই অ্যালবার্ট এক্কা মেমোরিয়াল পার্কে এটিকে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

রি-এবি/ইভূ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়