জেনেভায় গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিতে নির্মূল কমিটির মানববন্ধন

আগের সংবাদ

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য লালসবুজ ই-কমার্স মার্কেটপ্লেস

পরের সংবাদ

ইভ্যালির বিরুদ্ধে মামলার সুপারিশ

প্রকাশিত: জুলাই ৭, ২০২১ , ৮:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ৭, ২০২১ , ৮:৩৪ অপরাহ্ণ

ইকমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে চিঠি পাঠিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ, বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এ চার প্রতিষ্ঠানের কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে উঠে আসে যে গ্রাহক ও মার্চেন্টদের কাছ থেকে গত ১৪ মার্চ পর্যন্ত ইভ্যালির নেওয়া অগ্রিম ৩৩৯ কোটি টাকার কোনো হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। এ টাকা আত্মসাৎ বা অবৈধভাবে অন্যত্র সরিয়ে ফেলার আশঙ্কা রয়েছে।

গত ৪ জুলাই বানিজ্য মন্ত্রণালয় ইভ্যালির ওপর করা বাংলাদেশ ব্যাংকের এক পরিদর্শন প্রতিবেদনের পর্যবেক্ষণের পরিপ্রেক্ষিতে এ চিঠি পাঠায়। এদিকে, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে উঠে আসে ইভ্যালির মোট দায় ৪০৭ কোটি টাকা। প্রতিষ্ঠানটি গ্রাহকের কাছ থেকে অগ্রিম নিয়েছে ২১৪ কোটি টাকা, আর মার্চেন্টদের কাছ থেকে বাকিতে পণ্য নিয়েছে ১৯০ কোটি টাকার। স্বাভাবিক নিয়মে প্রতিষ্ঠানটির কাছে কমপক্ষে ৪০৪ কোটি টাকার চলতি সম্পদ থাকার কথা। কিন্তু সম্পদ আছে মাত্র ৬৫ কোটি টাকা। এসব তথ্য উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়, ইভ্যালির বিরুদ্ধে তদন্ত করে কোনো আর্থিক অনিয়ম পাওয়া গেলে দুদক যেন আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়।

এদিকে টাকা নিয়েও পণ্য সরবরাহ না করায় ভোক্তাদের অধিকার ক্ষুণ্ন হয়েছে। ভোক্তাদের অধিকার সুরক্ষা করতে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর যেন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়, সে ব্যাপারে অনুরোধ জানানো হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে উঠে আসা তথ্যগুলোই বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পাঠিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগে। এতে ইভ্যালির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানানো হয়।

বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনকে চিঠি দিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, চলতি সম্পদ দিয়ে মাত্র ১৬ শতাংশ গ্রাহককে পণ্য সরবরাহ করতে পারবে ইভ্যালি। গ্রাহক ও মার্চেন্টদের পাওনা পরিশোধ করা ওই কোম্পানির পক্ষে সম্ভব নয়। চলতি সম্পদ দিয়ে মাত্র ১৬ শতাংশ গ্রাহককে পণ্য সরবরাহ করতে পারবে ইভ্যালি। গ্রাহক ও মার্চেন্টদের পাওনা পরিশোধ করা ওই কোম্পানির পক্ষে সম্ভব নয়।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চেয়ে ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেলকে ফোন এবং খুদে বার্তা পাঠালেও তিনি কোনো উত্তর দেননি।

আর-এমএস/ডি-এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়