প্রতি হাজার যক্ষ্মা রোগীর মধ্যে এইডসে আক্রান্ত একজন: নিপসম

আগের সংবাদ

নগর আদালত প্রতিষ্ঠা যৌক্তিক: স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

পরের সংবাদ

সংসদে হেফাজত নিষিদ্ধের দাবি শেখ সেলিমের

প্রকাশিত: জুন ২৮, ২০২১ , ৫:৫৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২৮, ২০২১ , ৬:১৮ অপরাহ্ণ

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেছেন, আমাদের প্রধান শত্রু হচ্ছে সাম্প্রদায়িকতা। পাকিস্তান আমলে আমাদের ওপর অত্যাচার, নিধন যাই করেছে সবই করেছে এই সাম্প্রদায়িক শক্তি। এরা ছিল পাকিস্তান পন্থী। বঙ্গবন্ধু যখনই কোন একটা ভালো কিছু করার চেষ্টা করেছেন, তখনই বাঁধা দিয়েছে এই সাম্প্রদায়িক শক্তি। বঙ্গবন্ধু এদের অন্তর দিয়ে হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করেছেন বলেই তিনি সারাজীবন এই সাম্প্রদায়িক শক্তি অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রাম করে গেছেন।

সোমবার (২৮ জুন) জাতীয় সংসদে বাজেটের ওপর দেওয়া বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তিনি বলেন,

শেখ সেলিম বলেন, বর্তমানে আমরা বঙ্গবন্ধুর জম্ম শতবার্ষিকী পালন করছি। আর এই সময় বিএনপি, জামাত, ইসলামের নামে হেফাজত সন্ত্রাসী কর্মকা- চালালো। তারা হাটহাজারী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, বাইতুল মোকাররম, চট্টগ্রাম, নারায়নগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তা-ব চালায়। অগ্নি সংযোগ, বাড়িঘর, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে আক্রমণ চালায়। সব কিছু জ্বালিয়ে দেয়। এদের উদ্দেশ্য ছিল সরকার পতন। ২০১৩ সালেও হেফাজত সরকার পতনের চেষ্টা করে।

হেফাজত নেতা মামুনুলকে পুলিশ যখন জিজ্ঞেস করছে সে তা স্বীকারও করেছে। এই সন্ত্রাসী জঙ্গীদের বিষদাত ভেঙে দিতে হবে। আর আমাদের বাইতুল মোকাররম মসজিদ এটা একটি পবিত্র স্থান, সেখানে এই হেফাজত ইসলামী সংগঠনের নেতারা জড়ো হয়। তারা এখানে কুরআন শরীফও পোড়ায়। কথা নেই, বার্তা নেই তারা সেখানে জড়ো হয় এবং সন্ত্রাসী জঙ্গী তৎপরতা চালায়। সাধারণ মুসল্লিরা নামাজ আদায় করতে পারে না। এরা এবারে স্বাধীনতা দিবসের দিনে জঙ্গী তৎপরতা চালালো। এরা স্বাধীনতায় বিশ্বাসী নয়, এদের বুকে তখন ব্যাথা লাগে। সেই ‘৭১ এ পরাজয়ের গ্লানী তারা ভুলতে পারে না। কথা নেই বার্তা নেই এই পবিত্র মসজিদকে তারা প্লাট ফর্ম হিসেবে ব্যবহার করছে। সন্ত্রাসী-জঙ্গী তৎপরতা চালাচ্ছে।

শেখ সেলিম এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্ঠি আকর্ষণ করে বলেন, আমার আহ্বান বাইতুল মোকাররমসহ দেশের সব সমজিদের ভিতরে বা বাইরে কোন মিটিং মিছিল করতে পারবে না। এ বিষয়ে আপনি ব্যবস্থা নিন।

শেখ সেলিম বলেন, এই ইসলামী হেফাজত, এরা ছিল খেলাফত মসলিশ, এটা ছিল নিজামী ইসলাম। ‘৭১ এ এটা ছিল আল-শামস বাহিনী, এখন এটা হয়েছে হেফাজত? কিসের হেফাজত? এরা মানুষ মেরে হেফাজত করে? আসলে এরা জঙ্গী সংগঠন, এটাকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানান তিনি। এছাড়া অন্যান্য জঙ্গী সংগঠনগুলোকেও নিষিদ্ধ করার দাবি জানান শেখ সেলিম।

তিনি বলেন, আমাদের দেশের এত এত মাদ্রাসা এখানে কোন জাতীয় সংগীতও গাওয়া হয়না, জাতীয় পতাকাও উত্তোলন হয়না। মানুষ বা মাদ্রাসার ছেলে মেয়েরা কিভাবে জানবে স্বাধীনতার ইতিহাস, কিভাবে দেশ স্বাধীন হলো। এখানে যাতে জাতীয় পতাকা ও জাতীয় সংগীত বাজান হয়, সেই সাথে জঙ্গী তৎপরতা যাতে না চালাতে পারে সেদিকে কঠোর নজর রাখার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি বিশেষ আহ্বান জানান তিনি।

আর-এনআরআর/এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়