খুলনা বিভাগে রেকর্ড ২৮ জনের মৃত্যু

আগের সংবাদ

রিট খারিজ: জাবির শিক্ষক নিয়োগে বাধা নেই

পরের সংবাদ

প্রস্তাবিত বাজেটে অগ্রাধিকারের বিষয় কম গুরুত্ব পেয়েছে

প্রকাশিত: জুন ২০, ২০২১ , ৩:২৬ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২০, ২০২১ , ৩:২৭ অপরাহ্ণ

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইকে মূল অগ্রাধিকার হিসাবে বিবেচনায় নেওয়া হলেও সংক্রামণ ঠেকাতে বাজেটে অপর্যাপ্ত বরাদ্দ এবং স্বাস্থ্যবিধি উপখাত যথাযথ গুরুত্ব না পাওয়ার বিষয়টি মহামারির বিরুদ্ধে লড়াই এবং এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনকে বাধাগ্রস্থ করবে।

ওয়াটারএইড, ইউনিসেফ, পিপিআরসি, ফানসা-বিডি, এফএসএম নেটওয়ার্ক, স্যানিটেশন অ্যান্ড ওয়াটার ফর অল, ওয়াশ অ্যালায়েন্স ও এমএইচএম নেটওয়ার্কের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত রবিবার (২০ জুন) এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা এ কথা বলেন।

এ সময় এসডিজি লক্ষ্য অর্জনে স্বাস্থ্যবিধি উপখাতে যথাযথ গুরুত্বারোপসহ গ্রাম ও শহরের মধ্যে ওয়াশ খাতে বিনিয়োগ ও বরাদ্দের বৈষম্য কমানোর পাশাপাশি ন্যায়সঙ্গত বরাদ্দ দেওয়ার উপর অগ্রাধিকার দেওয়া প্রয়োজন বলে মতামত দেন বিশেষজ্ঞগণ। টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট এসডিজি ৬ অর্জনের গতিকে আরও ত্বরান্বিত করার জন্য অসমতা দূর করে জাতীয় বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধির আহ্বান জানান বক্তারা।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থাপিত প্রস্তাবিত ২০২১-২২ অর্থবছরে জাতীয় বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ ও ব্যয়ের বিশ্লেষণে দেখা যায়, বিগত বছরগুলোর বাজেটে ওয়াশ খাতে আর্থিক বরাদ্দের ধারা ঊর্ধ্বমুখী থাকলেও ২০২১-২২ অর্থবছরে তা কিছুটা কমেছে। ২০২০-২১ অর্থবছরের বরাদ্দকৃত ১২ হাজার ২২৭ কোটি টাকা কমিয়ে ২০২১-২১ অর্থবছরে ১১ হাজার ৯৫৫ কোটি টাকা করা হয়েছে।

সারাবছর করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী থাকলেও বিগত বছরগুলোর ধারাবাহিকতায় ২০২১-২২ অর্থবছরেও স্বাস্থ্যবিধি (হাইজিন) উপখাতে প্রয়োজনীয় বরাদ্দকে উপেক্ষা করা হয়েছে। এছাড়াও প্রস্তাবিত ওয়াশ বাজেট বরাদ্দের একটা বড় অংশই শহরাঞ্চলের দিকে ঝুঁকছে যা মূলত প্রধান শহরগুলোতে ওয়াসার বরাদ্দর কারণে হয়েছে। গ্রামীণ অঞ্চল ও দেশের দুর্গম এলাকাগুলো বরাদ্দের ক্ষেত্রে যথেষ্টই উপেক্ষিত হয়েছে। বর্তমানে, কোভিড-১৯ সংক্রমণের হার জেলাগুলোতে উল্লেখযোগ্য উর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে ভাইরাসের সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে দেওয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য জরুরি ভিত্তিতে স্বাস্থ্যবিধি এবং ওয়াশ সোবর সম্প্রসারণে গুরুত্বারোপ প্রয়োজন।

বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ এবং পিপিআরসি’র চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ওয়াশ বরাদ্দের ক্ষেত্রে ভৌগলিক বৈষম্য সৃষ্টি হয়েছে। তার পরেও গ্রামাঞ্চল, চর, পার্বত্য অঞ্চল ও উপকূলীয় এলাকার তুলনায় শহর ও মহানগরগুলোতে পূর্ববর্তী বছরগুলোর বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ওয়াশ সেক্টরে বরাদ্দ বাড়ানোর ক্ষেত্রে অনেক বেশি গুরুত্ব দেওয়া হলেও সঠিক বরাদ্দ এখনও অবহেলিত।

সংবাদ সম্মেলনে ওয়াটারএইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর হাসিন জাহান বলেন, ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে দেশে উৎপাদিত স্যানিটারি ন্যাপকিনের উপর সমুদয় মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) অব্যাহতি দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। স্যানিটারি ন্যাপকিনের ওপর সরকারের ভ্যাট মওকুফ এর এ সিদ্ধান্ত অত্যন্ত প্রশংসনীয়। তবে সরকারের এ সিদ্ধান্তের পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্য এখনই প্রয়োজন একটি পরিবীক্ষণ ব্যবস্থার। এতে করে সরকারী এ মহতী ঘোষণার ফলাফল কিশোরী এবং নারী উভয়ই পেতে পারবে।

স্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কিত খাতগুলোকে একত্রিত করার জন্য বেশি গুরুত্ব দেওয়াসহ বাজেটে সম্মিলিতভাবে চারটি সুপারিশ তুলে ধরা হয়।

আর-এমএস/ডি-এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়