ভারতে করোনাভাইরাস

অক্টোবরে ভারতে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা

আগের সংবাদ

কারামুক্ত হলেন বিএনপি নেত্রী নিপুণ রায়

পরের সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প উদ্বোধন রবিবার

তাদের স্বপ্ন ভরা আঁখি

প্রকাশিত: জুন ১৮, ২০২১ , ৭:১৪ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ১৮, ২০২১ , ৯:১০ অপরাহ্ণ

সাত বছর বয়সে দেয়াল চাপা পড়ে ডান হাতটি থেতলে যায় মো. দুলালের। উন্নত চিকিৎসার জন্য পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। কিন্তু হাত আর ভালো হয়নি। বরং চিরদিনের মতো হাতটি হারাতে হয়। সেই থেকে শুরু কষ্টের জীবন। আশ্রয়ের খোঁজে চট্টগ্রামের চকবাজার থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মহিউদ্দিন নগরে। রিকশায় প্যাডেলে পা চালিয়ে কেটেছে ১৫ বছর। পরে কয়েক বছর ভ্যান চালিয়েছেন।

দুবেলা দুমুঠো ভাতের আশায় অন্যের বাড়িতে কাজ করেন স্ত্রী নাজমা। নেই মাথা গোঁজার ঠাঁই। ভাইয়ের আধা ভাঙা টিনের ঘরে আশ্রয়। দিনের পর দিন আশ্রয়হীন থেকে স্বপ্ন দেখতেই ভুলেই গিয়েছেন নিজের একটা ঘর থাকার প্রয়োজনীয়তা। মাথার উপর ছাদ থাকার গুরুত্ব। ভাবতেন, যদি নিজের একটি ঘর থাকতো। একটা নিজের ঘর।

দুলালের মতোই ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের উত্তর জাঙাল গ্রামের গ্রামের বোবা-বধির ছেলে নিশাত। বয়স ২৫। কেউ নেই তার। তিন বছরের অবুঝ শিশু নিশাতকে অনিশ্চয়তায় রেখে অজানা গন্তব্যে চলে যান তিনি। এরপর শুরু হয় নিশাতের অন্য জীবন। পিতৃ-মাতৃহীন এই সন্তানের এমন কষ্ট এবং হাহাকার দেখে পাশের গ্রামের মূসা আনসারি নামের একজন তার লালন পালনের দায়িত্ব নেন। সেখানেই বেড়ে ওঠেন নিশাত।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার পাকা ঘর পেলেন দুলাল-নিশাতেরা। আশ্রয়ণ প্রকল্পের দ্বিতীয় ধাপে দুই রুম, বাথরুম ও রান্নাঘর সম্বলিত এই ঘরটি পেলেন তারা।

ওদের মতোই সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পের দ্বিতীয় ধাপে ঘর পেয়ে যারপর নাই খুশি ঝর্ণা বেগম। এতদিনে আশ্রয়হীনের দুঃখ দূর হলো তার। এখন স্বামী মোহাম্মদ শফিক ও ছয় সন্তানকে নিয়ে সুখে সংসার পাতবেন তিনি। এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

জাঙাল গ্রামে আশ্রয়ণ প্রকল্পের দ্বিতীয় ধাপে সারিবদ্ধভাবে সাজানো ২০টির একটি পেয়েছেন আসাদ মিয়া। সবাই নিজ ঘরে থেকে নানা উপায়ে জীবন চালানোর স্বপ্নে বিভোর হচ্ছেন। আগামী রবিবার তাদের হাতে তুলে দেয়া হবে স্বপ্নলোকের চাবি।

প্রথম পর্যায়ে চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি ৬৯ হাজার ৯০৪টি পরিবারকে জমিসহ গৃহ হস্তান্তর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্বিতীয় পর্যায়ে ৫৩ হাজার ৩০৪ পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম এর শুভ উদ্বোধন করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নের পর্যায়ক্রমে দেশের সকল ভূমিহীন গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান করা হবে। জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে পক্ষে ক্ষুধামুক্ত দারিদ্র্যমুক্ত ও উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলায় শেখ হাসিনার এই উদ্যোগ।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়