পুলিশ ম্যাজিকের মতো সহযোগিতা করেছে: পরী মনি

আগের সংবাদ

নাশকতা মামলায় ৫ দিনের রিমান্ডে হেফাজত নেতা আজহারুল

পরের সংবাদ

তিন মাসে খেলাপি ঋণ বাড়ল ৬ হাজার ৮০২ কোটি টাকা

প্রকাশিত: জুন ১৫, ২০২১ , ৮:০৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ১৫, ২০২১ , ১১:৩৩ অপরাহ্ণ

নানারকম সুবিধা আর ছাড় দিয়েও ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণের লাগাম টানা যাচ্ছে না। ডিসেম্বর মাসে খেলাপি ঋণ কিছুটা কম হলেও ৩ মাসের ব্যবধানে আবার বেড়েছে।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। প্রতি তিন মাস পর পর এই তথ্য প্রকাশ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত মার্চ শেষে দেশের ৫৯টি ব্যাংকের মোট বিতরণকৃত ঋণ ১১ লাখ ৭৭ হাজার ৬৫৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে শ্রেণিকৃত খেলাপি ঋণ রয়েছে ৯৫ হাজার ৮৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। যা বিতরণকৃত ঋণের ৮ দশমিক ৭ শতাংশ। গত বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ১১ লাখ ৫৮ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপির পরিমাণ ছিল ৮৮ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা। ওই অঙ্ক ছিল মোট বিতরণ করা ঋণের ৭ দশমিক ৬৬ শতাংশ। এর আগে ২০২০ সালের মার্চ মাস শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৯২ হাজার ৯৬২ কোটি টাকা। এ হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২ হাজার ১২২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে ঋণগ্রহীতা ঋণের কিস্তি শোধ না করলেও তাকে খেলাপির তালিকায় দেখানো যাবে না, ২০২০ সাল জুড়ে এমন সুবিধা পেয়েছেন গ্রাহক। এছাড়া খেলাপি ঋণ পুনঃতফসিল, পুনঃগঠনে বিভিন্ন নীতিমালার শর্তে শিথিলতা আনা হয়। এতে করে গত বছরে ঋণের কিস্তি না দিয়েও নতুন করে কোনো ঋণ খেলাপি হয়নি। যার কারণে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ কিছুটা কমে আসে। কিন্তু চলতি বছর এ সুবিধা রাখা হয়নি। যার ফলে খেলাপি ঋণের পরিমাণ বেড়ে গেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ রয়েছে মোট খেলাপির প্রায় অর্ধেক বা ৪৩ হাজার ৪৫০ কোটি টাকা। আর বেসরকারি ব্যাংকে রয়েছে ৪৫ হাজার ৯০ কোটি টাকা। এছাড়া বিশেষায়িত ব্যাংকে খেলাপি ৪ হাজার ৮৬ কোটি টাকা ও বিদেশি ব্যাংকের খেলাপি রয়েছে ২৪৫৮ কোটি টাকা।

এ বিষেয়ে ব্যাংক খাত বিশেষজ্ঞ মো. নুরুল আমিন বলেন, যখনই যে খাতে বিশেষ সুবিধা দেয়া হয়, তারা সেগুলোর শেষ দেখা পর্যন্ত এর সঠিক প্রয়োগ করেন বলে মনে হয় না। আমার কাছে মনে হয়, ঋণ খেলাপিরা অপেক্ষা করছে- আর কতো ছাড় পাওয়া যায়। আর করোনাকালীন সময়ে এ মানসিকতা আরো বেশি কাজ করছে বলে আমার মনে হয়।

এত সুবিধার পরেও কিভাবে খেলাপি ঋণ বাড়ল এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো: সিরাজুল ইসলাম বলেন, খেলাপি সবসময় ঋণের কিস্তির উপরে নির্ভর করেনা। বিভিন্ন কারণে বিশেষ করে পেমেন্টের উপর নির্ভর করতে পারে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, এ সময়ে রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণের পরিমান ৪৩ হাজার ৪৫০ কোটি টাকা। যা মোট ঋণের ২০ দশমিক ৯১ শতাংশ। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংগুলোর মোট বিতরণ করা ঋণের পরিমান ২ লাখ ৭ হাজার ৭৭১ কোটি টাকা।

আর-এমএস/ডি-এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়