আসন্ন উপ-নির্বাচনে অংশ নেবে না সিপিবি

আগের সংবাদ

স্টার্লিংয়ের গোলে ইংল্যান্ডের শুভ সূচনা

পরের সংবাদ

ক্ষমা চাওয়ার শর্তে এমপি জাফরের অব্যাহতি প্রত্যাহার

প্রকাশিত: জুন ১৩, ২০২১ , ১০:১৭ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ১৩, ২০২১ , ১০:১৮ অপরাহ্ণ

কক্সবাজার-১ আসনের এমপি জাফর আলম ও জাহেদুল ইসলাম লিটুর সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি প্রত্যাহার করা হয়েছে। টানা দুই ঘণ্টা বৈঠকের পর ক্ষমা চাওয়ার শর্তে জাফর আলম এমপি চকরিয়া উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ও জাহেদুল ইসলাম লিটু পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে বহাল রেখেছেন।

রবিবার (১৩ জুন) বিকাল সাড়ে তিনটায় ধানমন্ডি প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের সাথে বৈঠকের পর এ সিদ্বান্ত নেওয়া হয়।

সুত্র জানায়, রবিবার বিকাল তিনটার দিকে ধানমন্ডি-৩ প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় আ.লীগের চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের সাথে বৈঠকে বসেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদকগণ। সেখানে কক্সবাজার জেলা আ.লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন আহমদ সিআইপি ও চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরীকে বৈঠকে ডাকা হয়। টানা দুই ঘন্টা রুদ্ধতার বৈঠক শেষে উভয় পক্ষকে সমঝোতায় আসার জন্য চাপ সৃষ্টি করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ।

একপর্যায়ে বৈঠকে থাকা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা ও উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম সাংসদ জাফর আলমকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমানের কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন। ওইসময় জাফর আলম এমপি ও জাহেদুল ইসলাম লিটু সবার কাছে ক্ষমা চান।

বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা জানান, কেন্দ্রীয় আ.লীগের চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের সাথে বৈঠকের পর ১৭ জুন চকরিয়া উপজেলা আ.লীগের কর্মী সভা আহবান করবেন। ওইদিন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়া ও নৌকা প্রতিকের মেয়র প্রার্থী আলমগীর চৌধুরীর পক্ষে কাজ করে দলীয় প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করবেন মর্মে অঙ্গিকার করায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সাংসদ জাফর আলমের অব্যাহতি প্রত্যাহার করেন।

কর্মী সভায় উপজেলা আ.লীগের সভাপতি হিসেবে কেন্দ্রীয় আ.লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাহউদ্দিন আহমদ সিআইপি, সভাপতি এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান উপস্থিত থাকবেন। ওইদিন পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয় করার ঘোষণা দেবেন নেতৃবৃন্দরা।

উল্লেখ্য চকরিয়া পৌরসভার নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বিরোধীতা করার কারণে গত ৮ জুন জাহেদুল ইসলাম লিটুকে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। ওইদিন রাতে লিটুকে অব্যাহতির দেওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে কক্সবাজার-১ আসনের সাংসদ ও চকরিয়া উপজেলা আ.লীগের সভাপতি জাফর আলমের নেতৃত্বে পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী ও পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরীর উপর হামলা চালানো হয়। এতে ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এঘটনার জের ধরে গত ১০ জুন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের জরুরি বৈঠক শেষে জাফর আলম এমপিকে উপজেলা আ.লীগের সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। জাফর আলম এমপি ও জাহেদুল ইসলাম লিটুর অব্যাহতি মেনে নিতে পারেনি তাদের অনুসারীরা। তাদের অনুসারীরা ওই দিন রাতে ক্ষুব্ধ হয়ে হামলা ও ভাঙচুর চালায় চকরিয়া পৌরশহরে। টানা তিন ঘন্টা ধরে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। বিভিন্ন পয়েন্টে টায়ার জালিয়ে বিক্ষোভ করে।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়