পদায়ন জটে পদোন্নতির বোঝা

আগের সংবাদ

নড়াইলে এক সপ্তাহ লকডাউন, আক্রান্তের হার ৫৮.৬

পরের সংবাদ

বাংলা শুধু একটি নামই নয়

প্রকাশিত: জুন ১২, ২০২১ , ৮:৫১ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ১২, ২০২১ , ৮:৫১ পূর্বাহ্ণ

পাকিস্তানের প্রথম সংবিধানে পূর্ববঙ্গের অটোনমির দাবি প্রত্যাখ্যাত হলে পূর্ব বাংলা নাম বিলুপ্ত হয়ে পূর্ব পাকিস্তান হলো। শেখ মুজিব এই অগণতান্ত্রিক জাতি-বৈরী পদক্ষেপের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক বক্তব্য দিলেন।

গণপরিষদে শেখ মুজিবসহ নেতৃবৃন্দ ও পূর্ব বাংলার সংখ্যালঘু প্রতিনিধিরা এই শাসনতন্ত্র গ্রহণের বিপক্ষে জোরালো বক্তব্য রাখেন এবং সরকারি নীতির প্রতিবাদে ওয়াকআউট করেন। কিন্তু পার্লামেন্টের ভেতরে ও বাইরে তীব্র প্রতিবাদকে উপেক্ষা করে প্রধানমন্ত্রী চৌধুরী মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে পাকিস্তান মুসলিম লীগ, শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকের নেতৃত্বে পরিচালিত যুক্তফ্রন্টভুক্ত কৃষক শ্রমিক পার্টি, নেজামে ইসলাম পার্টি, পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ (আবদুর সালাম খান ও খন্দকার মোশতাক পরিচালিত), সিডিউল কাস্ট ফেডারেশন, পাকিস্তান কংগ্রেস, ইউনাইটেড প্রোগ্রেসিভ পার্টি ও গণতান্ত্রিক দলভুক্ত সদস্যদের ভোটে পাকিস্তানের সংবিধান গণপরিষদে গৃহীত হলো।

যেভাবে স্বাধীনতা পেলাম বইটির কভার ফটো

পাকিস্তানের প্রথম সংবিধান পূর্ববঙ্গের অটোনমির দাবি প্রত্যাখ্যাত হলো এবং পূর্ব বাংলা নামটি পর্যন্ত বিলুপ্ত করে দিয়ে পূর্ব পাকিস্তানে রূপান্তরিত করা হলো। পূর্ব বাংলার নাম পরিবর্তন করে পূর্ব পাকিস্তান রাখার পেছনে যে সাম্প্রদায়িক ও উপনিবেশিক দৃষ্টিভঙ্গি ছিল, যে জাতিসত্তা সংস্কৃতি হননের নিষ্ঠুর উদ্দেশ্য ছিল, তা শেখ মুজিবের চেতনাকে যন্ত্রণাবিদ্ধ করেছিল। পাকিস্তান গণপরিষদে শেখ মুজিব অত্যন্ত তীব্র ও জোরালো ভাষায় এই অগণতান্ত্রিক জাতি-বৈরী পদক্ষেপের বিরুদ্ধে শাসকদের চরিত্র উদঘাটন করে আক্রমণাত্মক বক্তব্য রাখলেন। আগামীকাল প্রকাশিত হবে ‘শেরে বাংলার সার্টিফিকেট’
‘যেভাবে স্বাধীনতা পেলাম’- বইটি পাওয়া যাচ্ছে ভোরের কাগজ

প্রকাশনে (ভোরের কাগজ কার্যালয়, ৭০ শহীদ সেলিনা পারভীন সড়ক, মালিবাগ, ঢাকা)। এ ছাড়া সংগ্রহ করা যাবে bhorerkagojprokashan.com থেকেও।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়