মসজিদের চারতলার ছাদ থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু

আগের সংবাদ

দেশে করোনায় মৃত্যু ১৩ হাজার ছাড়াল

পরের সংবাদ

ভেঙে পড়ল গোপালপুরের সেই সেতুটি, দুর্ভোগে হাজারো মানুষ

প্রকাশিত: জুন ১১, ২০২১ , ৪:৫০ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ১১, ২০২১ , ৪:৫১ অপরাহ্ণ

টাঙ্গাইলের গোপালপুর পৌর শহরের কালী মন্দির সংলগ্ন বৈরাণ নদীর উপর ব্যস্ততম মরণফাঁদ সেতুটি ভেঙে পড়েছে। শুক্রবার (১১ জুন) ভোরে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী আসাদুল হক মাসুম জানান, কোন রকম নড়বড়েভাবে দাঁড়িয়ে থাকা এ সেতুটি দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন হাজারো মানুষ আর যানবাহন পারাপার হতো। কিন্তু ফজরের নামাজের পরপরই সেতুটি ভেঙে পড়ায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

জানা যায়, ১৯৯২ সালে বৈরাণ নদীর দুই পাড়ের জনগণের যোগাযোগ সমস্যা সমাধানে পৌর শহরের কোনাবাড়ী বাজার ও কালীমন্দির পয়েন্টে এলজিইডি এ সেতুটি নির্মাণ করে। নদীর দুই পাড়ে হাট-বাজার, পৌর মার্কেট ও একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থাকায় যোগাযোগ ও পরিবহনে সেতুটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

গত বছর সেতুটির নিচে থেকে মাটি সরে যাওয়ায় সেতুর পিলার আলগা হয়ে যায়। এক পাশের রেলিং ভেঙে যাওয়ায় বাঁশ দিয়ে অস্থায়ী রেলিং বানানো হয়। সেতুটির পাটাতনে বড়ো বড়ো গর্ত হওয়ায় ছোট ছোট যানবাহন পারাপারেও সেতুটি দুলতে থাকতো। রেলিংবিহীন এ সেতুটি পারাপারে প্রায়ই ঘটতো মারাত্মক দুর্ঘটনা।

যে কোনো সময় সেতুটি ধসে পড়ে ব্যাপক প্রাণহানির আশঙ্কা করে, পৌরসভা কার্যালয় থেকে ১৫০ গজ দূরে এ ব্যস্ততম সেতুটি সংস্কারে কর্তৃপক্ষকে বারবার পদক্ষেপ গ্রহণ করার কথা বলে আসছিল স্থানীয় বাসিন্দারা। মরণফাঁদ হয়ে কোন রকম দাঁড়িয়ে থাকা এ সেতুটি দ্রুততার সঙ্গে ভেঙে একই স্থানে একটি প্রশস্ত সেতু নিমার্ণের দাবিও জানানো হয়।

গোপালপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ জানান, পৌর শহরের কালী মন্দির সংলগ্ন বৈরাণ নদীর উপর সেতুটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় এখানে নতুন করে সেতু নির্মাণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়