লোকসভার ওয়েবসাইটে সাংসদ নুসরাত বিবাহিতা, স্বামী নিখিল!

আগের সংবাদ

হাতিয়ায় ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

পরের সংবাদ

গাইবান্ধায় ব্যবসায়ী হত্যার বিচারসহ চারদফা দাবিতে আধাবেলা হরতাল চলছে

প্রকাশিত: জুন ১০, ২০২১ , ৯:৪৭ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ১০, ২০২১ , ১০:৫১ পূর্বাহ্ণ

গাইবান্ধায় আজ বৃহস্পতিবার আধাবেলার হরতাল চলছে। সকাল ছয়টায় হরতাল শুরু হয়। চলবে দুপুর দুইটা পর্যন্ত। ব্যবসায়ী হাসান আলী হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার এবং গাইবান্ধা সদর থানার ওসি মাহফুজার রহমানের অপসারণসহ চারদফা দাবিতে এই হরতাল আহবান করে হাসান হত্যার প্রতিবাদ মঞ্চ।

হরতাল চলাকালে শহরের দোকানপাট ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তারা পিকেটিং ছাড়াই স্বতফুর্তভাবে দোকানপাট বন্ধ রেখে হরতাল পালন করে ব্যবসায়ীরা। রাস্তায় তেমন একটা লোক চলাচল করতে দেখা যায়নি। যাদের দেখা গেছে, তাদের চোখেমুখে ছিল ক্ষোভের ছাপ। অপরদিকে হরতালের প্রতিবাদ জানিয়ে আজ সকাল ১০টায় শহরের রেলগেট এলাকায় সমাবেশ ডেকেছে মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মলীগ।

হরতাল সফল করার লক্ষ্যে বুধবার গাইবান্ধা শহরের ১নং রেলগেট এলাকা থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এদিকে একই দাবিতে ওয়ার্কার্স পার্টি গাইবান্ধা জেলা শাখা শহরে বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি পালন করে।

গাইবান্ধায় ব্যবসায়ী হত্যার প্রতিবাদে আধাবেলার হরতালে দোকানপাট বন্ধ ছিল আজ।

হাসান হত্যার ৪ দফা দাবিগুলো হচ্ছে-অবিলম্বে হাসান হত্যার সঙ্গে জড়িত আসামীদের গ্রেপ্তার, সদর থানার ওসিকে অপসারণসহ অভিযুক্ত ওসি (তদন্ত) ও অপর এএসআইকে অবিলম্বে আইনের আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি করা, হাসান হত্যার সুষ্ঠু বিচারের জন্য বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন এবং গাইবান্ধা জেলায় অবৈধ দাদন ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য বন্ধ।

দেনার দায়ে দাদন ব্যবসায়ী মাসুদ রানা ও তার সহযোগিরা নিহত হাসান আলীর কাছ থেকে গাইবান্ধার আফজাল সুজের মালিকানা কেড়ে নেওয়ার পর আরও টাকার দাবিতে তাকে ৫ মার্চ অপহরণ করা হয়। অপহরণের পর হাসান আলীকে উদ্ধারের জন্য স্ত্রী বিথী বেগম ৬ মার্চ সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করে। পুলিশ হাসান আলীকে মাসুদ রানার বাড়ি থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। সেখানে শালিস বৈঠক করে কিছু স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে আসান আলীকে উল্টো মাসুদ রানার কাছেই তুলে দেয়া হয়। অপহরণের ৩৬ দিন পর গত ১০ এপ্রিল দাদন ব্যবসায়ী মাসুদ রানার বাড়ি থেকে হাসান আলীর মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে গাইবান্ধার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, ব্যবসায়ী সংগঠন, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন আন্দোলনে নামে এবং গঠিত হয় হাসান হত্যার প্রতিবাদ মঞ্চ। গত ৩১ মে গাইবান্ধা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে অবস্থান ও আইজিপি বরাবর স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচি থেকে মঞ্চের নেতারা আগামী ৭ (সাত) দিনের মধ্যে সদর থানার ওসি’র অপসারণসহ ৪ দফা দাবি মেনে নেয়া না হলে ১০ জুন হরতাল পালনের ঘোষণা দেন হাসান হত্যার প্রতিবাদ মঞ্চের সমন্বয়ক আমিনুল ইসলাম গোলাপ। এর পর থেকেই প্রতিদিন মানববন্ধন, মিছিল, সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূটি পালন করে আসছিল হাসান হত্যার প্রতিবাদ মঞ্চ।

ডি-এফবি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়