জঙ্গিবাদ, হেফাজত প্রশ্নে কোনোভাবেই সন্ধি নয়

আগের সংবাদ

ভ্যাকসিনে শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ও অন্যান্য প্রসঙ্গে

পরের সংবাদ

জন্মনিবন্ধন সার্টিফিকেট পেতে ভোগান্তি

প্রকাশিত: জুন ১০, ২০২১ , ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুন ১০, ২০২১ , ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ

জন্মনিবন্ধন সার্টিফিকেট একজন নাগরিকের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটা দলিল এবং এটা পাওয়া প্রতিটি নাগরিকের ন্যায্য অধিকার। কিন্তু এই অধিকার আদায়ে সাধারণ মানুষের যে পরিমাণ ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে সেটা কোনোভাবেই কাম্য নয়। সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে শিক্ষার্থীদের অনলাইন জন্মনিবন্ধন সার্টিফিকেট করতে বলার পর এই ভোগান্তির পরিমাণ বেড়ে যায় সাধারণ মানুষের।
এ সমস্যা সারাদেশে নিশ্চয়ই বিদ্যমান, তবে চট্টগ্রামে সরেজমিন যা দেখা গিয়েছে তা রীতিমতো চোখ কপালে ওঠার মতো বিষয়। চট্টগ্রামের একটি ওয়ার্ডে সরেজমিন গিয়ে দেখা মিলল ভিন্ন একটি চিত্র। ওই এলাকার ভোটার না হলে মিলছে না তাদের সন্তানের জন্মনিবন্ধন সার্টিফিকেট। অথচ এমন নিয়ম কোথাও নেই। একজন শিশুর জন্মনিবন্ধন করতে বাবা-মায়ের জন্মনিবন্ধন সার্টিফিকেট, ভোটার আইডি কার্ডÑ এসব প্রয়োজন হতে পারে কিন্তু ওই ওয়ার্ডের ভোটার হতে হবে, এমন নিয়ম জানা নেই কারো। অথচ দিব্যি ওখানকার বাসিন্দারা ফিরে আসছে এমন অভিযোগ নিয়ে। এছাড়াও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বাসিন্দা বলেন, ওয়ার্ড অফিসে জন্মনিবন্ধনের জন্য যে ফরমগুলো রয়েছে সেগুলো প্রতি কপি ৩০ টাকা করে বিক্রি করছে ওয়ার্ড অফিসের এক কর্মকর্তা। অথচ ওই ফরমের ওপর লেখা আছে সম্পূর্ণ ফ্রি!
চট্টগ্রামের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে চলছে আরো রমরমা কারবার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একজন বলেন, জন্মনিবন্ধন করতে গেলে নির্দিষ্ট ফি-এর বাইরে কিছু টাকা দিতে হয়। যারা এই টাকা দেবেন তাদের কাজ হয় সবার আগে।
এমনভাবে ৩২, ১১, ১৬, ৯ নম্বরসহ নগরীর কয়েকটি ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের রয়েছে বিভিন্ন অভিযোগ। অথচ এই অভিযোগ আমলে নেয়ার মতো নেই কেউ। দীর্ঘদিনের এই ভোগান্তি নগরবাসীকে করে তুলেছে অতিষ্ঠ। কিছু কিছু ওয়ার্ডের বাসিন্দারা অভিযোগ করেন, তারা নাকি বিএনপি ঘরানার মানুষ। এজন্য তাদের হয়রানি আর ভোগান্তির শিকার হতে হয়। শুধু তাই নয়, প্রতিপক্ষকে ভোট দিয়েছে এমন অভিযোগ এনেও অনেক বাসিন্দাকে তাড়িয়ে দেয়ার অভিযোগও রয়েছে। তবে এর ব্যতিক্রম পাওয়া গেছে চট্টগ্রামের ১০নং ওয়ার্ডে। এই ওয়ার্ডে জন্মনিবন্ধনের নির্দিষ্ট ফি ৫০ টাকা ছাড়া কোনো প্রকার বাড়তি টাকা নেয়ার অভিযোগ নেই। প্রয়োজনীয় তথ্য উপাথ্য দিলেই দ্রুতগতিতে মিলছে জন্মনিবন্ধন সার্টিফিকেট। এই ওয়ার্ডের চান মিয়া ডাক্তারের বাড়ির স্থায়ী বাসিন্দা আরমান বলেন, আমার মা-বাবার এবং আমার অনলাইন জন্মনিবন্ধন করলাম কোনো প্রকার ভোগান্তি ছাড়া। জানা যায়, স্থানীয় কাউন্সিলর ড. নিছার উদ্দিন মঞ্জু নিয়মিত খোঁজ-খবর নিচ্ছেন এসব বিষয়ে।
ব্যতিক্রম ঘটনা এই একটা হলেও নানা অভিযোগ আর অনিয়মের ঘটনা ঘটছে চট্টগ্রামের বিভিন্ন ওয়ার্ডে। প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের মুখে মুখে রয়েছে অনিয়মের অভিযোগ। কিন্তু এসব বিষয়ে তদারকি করার মতো কেউ নেই। যার কারণে দিনের পর দিন এভাবেই হয়রানি আর ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। এ বিষয়ে প্রয়োজন সরকারের সুনজর দেয়া। সিটি মেয়রকেও এসব বিষয় নিয়ে তদারকি করা জরুরি বলে মনে করছি। শুধু তাই নয়, জনগণের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে অভিযোগ দেয়ার জন্য সহজ কোনো মাধ্যম বের করতে হবে। যেখানে নাগরিকরা তাদের সমস্যার কথা, হয়রানি-ভোগান্তির কথা লিখে অভিযোগ কিংবা সাহায্য চাইতে পারেন। এতে করে সাধারণ মানুষদের ভোগান্তি হয়তো কিছুটা কমতে পারে।

আজহার মাহমুদ : চট্টগ্রাম থেকে।
[email protected]

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়