খাসিয়াপুঞ্জি পরিদর্শনে বড়লেখায় নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি দল

আগের সংবাদ

অবশেষে ক্ষমতা হারাচ্ছেন নেতানিয়াহু

পরের সংবাদ

সুমিজ হট কেকের বিরুদ্ধে সাড়ে ১০ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকির মামলা

প্রকাশিত: জুন ৮, ২০২১ , ৬:১৮ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৮, ২০২১ , ৬:১৮ অপরাহ্ণ

একটি অভিযোগের ভিত্তিতে রাজধানীর উত্তরায় সুমিজ হট কেক এ অভিযান পরিচালনা করে ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদপ্তর। এতে সাড়ে ১০ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকির তথ্য পাওয়া গেছে। ভ্যাট ফাঁকির উদ্দেশ্যে প্রকৃত বিক্রয় তথ্য গোপন এবং মেশিনে প্রস্তুতকৃত কেক হাতে তৈরির ঘোষণা দিয়ে ভ্যাট ফাঁকির দায়ে ভ্যাট আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৮ জুন) ভ্যাট ফাঁকির সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে এ মামলা দায়ের করা হয়। এর আগে গত ২ জুন সংস্থার উপ-পরিচালক নাজমুন নাহার কায়সার ও ফেরদৌসী মাহবুব এর নেতৃত্বে ভ্যাট গোয়েন্দার একটি দল, সুমিজ হট কেক লিমিটেডের ঢাকায় অবস্থিত কারখানা ও প্রধান কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করে। পরিদর্শনকালে প্রতিষ্ঠানটির বিক্রয়ের তথ্যসহ আরো কিছু বাণিজ্যিক দলিলাদি জব্দ করা হয়।

রাজধানীসহ সারাদেশে এই কেক প্রস্তুতকারীর ২৬টি বিক্রয়কেন্দ্র রয়েছে।এসব বিক্রয়কেন্দ্রে কারখানায় উৎপাদিত পণ্য সরবরাহ করা হয়।

অভিযানে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটি হাতে তৈরির কেক ঘোষণা দিলেও মূলত মেশিনে কেক প্রস্তুত করে আসছে।মেশিনে তৈরির কেক এর উপর ১৫% হারে ভ্যাট প্রযোজ্য।কিন্তু হাতে তৈরি করলে তা ৫%।এতদিন সুমিস কেক ৫% হারে ভ্যাট দিয়েছে।

প্রকৃতপক্ষে উক্ত পণ্যের উপর আদর্শহারে ভ্যাট (মূসক-১৫%) প্রযোজ্য হবে। কারণ সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটির সকল ধরনের কেক মেশিনে প্রস্তুত করা হচ্ছে।

পরিদর্শনকালে প্রতিষ্ঠানের কারখানায় স্থাপনকৃত কেক মিক্সিং মেশিন – ৬টি, অটো ওভেন (ক্যাপাসিটি ১০৫টি)- ২টি, বিস্কুট প্রস্তুতের বড় অটো ওভেন – ১টি, ক্রিম মিক্সিং মেশিন – ১টি দেখতে পাওয়া যায়। কেক তৈরিতে এসব মেশিন ব্যবহার হচ্ছে।

মামলার প্রতিবেদন অনুসারে, প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রস্তুতকৃত কেক মেশিনে প্রস্তুত বিবেচনায় নিয়ে তার উপর আদর্শহারে ভ্যাট আদায়যোগ্য।

প্রতিবেদন অনুসারে, সুমিস হট কেক জুলাই/২০১৬ হতে এপ্রিল/২০২১ পর্যন্ত ৭,১৩,০০,১৪৩ টাকা ভ্যাট পরিহার করেছে এবং এই পরিহারকৃত ভ্যাট এর উপর সুদ বাবদ ৩,৩৮,৬৪,৭৬৫ টাকাসহ সর্বমোট ১০,৫১,৬৪,৯০৯ টাকা আদায়যোগ্য হবে।

তদন্তে উদ্ঘাটিত ভ্যাট ফাঁকির টাকা আদায়ের আইনগত কার্যক্রম গ্রহণের জন্য মামলাটি ঢাকা উত্তর ভ্যাট কমিশনারেটে প্রেরণ করা হবে।একইসাথে এখন থেকে যথানিয়ম ও হারে ভ্যাট আদায় নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট স্থানীয় ভ্যাট কার্যালয়কে সুপারিশ করা হবে।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়