সাত বছরের ভিক্ষার টাকায় গড়া সংসার ১৫ মিনিটে ছাই

আগের সংবাদ

অক্ষয়ের ‘রক্ষাবন্ধন’ ছবিতে ভূমি

পরের সংবাদ

প্লাস্টিক খাতে করপোরেট কর কমিয়ে ১০ শতাংশ করার দাবি

প্রকাশিত: জুন ৭, ২০২১ , ৫:১৬ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৭, ২০২১ , ৫:১৬ অপরাহ্ণ

প্লাস্টিক খাতের কোম্পানির করপোরেট কর হার সাড়ে ৩২ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ করার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশন (বিপিজিএমইএ)। পাশাপাশি রফতানি খাতের সমহারে উৎসে কর দশমিক ২৫ শতাংশ করার দাবি করেছে সংগঠনটি।

সোমবার (৭ জুন) ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান সংগঠনটির সভাপতি সামিম আহমেদ।

সামিম আহমেদ বলেন, কোভিড মহামারি মোকাবিলায় প্লাস্টিক সেক্টর নিরলসভাবে কাজ করেছে এবং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। ফেসমাস্ক, ফেস সিল্ড, গগলস, হ্যান্ড গ্লাভস, স্যানিটাইজার, পিপিই, জীবাণুনাশক ওষুধের বোতল, বিভিন্ন ওষুধের প্যাকেজিংয়ের জন্য প্লাস্টিক ব্যাপকভাবে প্রয়োজন হয়। আমাদের শিল্পগুলো দিনরাত উৎপাদন করে সরকারের বিভিন্ন হাসপাতালগুলোতে সাপ্লাই চেইন ঠিক রাখছে।

বিপিজিএমইএ সভাপতি বলেন, বর্তমানে সারাদেশে প্লাস্টিকের প্রায় ৫ হাজার ৩০টির বেশি ক্ষুদ্র, মাঝারি ও বৃহৎ শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। অভ্যন্তরীণভাবে বর্তমানে প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব দিয়ে থাকে। রফতানি হয় প্রায় ১ বিলিয়ন ডলারের মতো। প্লাস্টিক সেক্টরে ইতোমধ্যে প্রায় ১২ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে।

এ সময় ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে প্লাস্টিক খাতের জন্য বেশি কিছু দাবি তুলে ধরেন সামিম আহমেদ। তিনি বলেন, রফতানি খাতে উৎসে কর এবং করপোরেট কর হার খাত ভেদে বিভিন্ন হারে ধার্য করা আছে। সকল রফতানি খাতে সমহারে উৎসে কর দশমিক ২৫ শতাংশ এবং করপোরেট কর হার সমতায়ন করে ৩২ দশমিক ৫০ শতাংশের পরিবর্তে ১০ শতাংশ ধার্য করার প্রস্তাব করছি। এতে রফতানি বাণিজ্যে আগ্রগতি হবে। নতুন বিনিয়োগ ও কর্মংস্থান বৃদ্ধি পাবে।

এ সময় দেশীয় উৎপাদিত প্লাস্টিক খেলনা সামগ্রীর ওপর আরোপ করা ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করার দাবি জানান বিপিজিএমইএ সভাপতি। তিনি বলেন, খেলনা শিশুদের মস্তিষ্ক বিকাশে সহায়তা করে। তাই শিশুদের কথা চিন্তা করে হলেও খেলানার ওপর আরোপ করা ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করে নেয়া উচিত। তিনি আরও বলেন, দেশীয় খেলনা প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষুদ্র। এদের ভ্যাট দেয়ার সক্ষমতা নেই। ভ্যাটের খাতাপত্র মেইনটেইন করার সামর্থ্য নেই। ১৫ শতাংশ ভ্যাটের কারণে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি হওয়ায় বিদেশি নিম্নমানের পণ্য বাজারে আসছে। এ সময় প্লাস্টিক খাতের জন্য আরও কয়েকটি দাবি তুলে ধরেন বিপিজিএমইএ সভাপতি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিপিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি গিয়াসউদ্দিন আহমেদ, কে এম ইকবাল হোসেন, কাজী আনোয়ারুল হক, পরিচালক মোসাদ্দেকুর রহমান নান্নু, মো. শাহজাহান, এটিএম সাঈদুর রহমান বুলবুল, মো. এনামুল হক, আমান উল্লাহ, সাবেক সভাপতি এ এস এম কামাল উদ্দিন ও ফেরদৌস ওয়াহেদ।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়