৭.২% প্রবৃদ্ধি অবাস্তব, বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জিং : সিপিডি

আগের সংবাদ

ধানমন্ডি লেকে ৩ শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাত

পরের সংবাদ

গরীব মারা ও ধনী তোষনের বাজেট: সিপিবি

প্রকাশিত: জুন ৩, ২০২১ , ৯:০৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৩, ২০২১ , ৯:৩৫ অপরাহ্ণ

করোনার আঘাত মোকাবেলায় ঘোষিত বাজেটে উল্লেখযোগ্য কোন দিক নির্দেশনা বা বরাদ্দ নেই, করোনা মহামারিকে একেবারে উপেক্ষা করায় এই বাজেটকে প্রত্যাখ্যান করেছে দেশের বামপন্থী দলগুলো। বৃহষ্পতিবার (৩ জুন) দলগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বাজেটে ধনীর তোষণ, কালো টাকা সাদা করা ও সাধারণ মানুষের উপর ভ্যাট-ট্যাক্স বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে, যাতে মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘাঁয়ের মত গরীবদের উপর বর্তাবে। সেকারণে দলগুলো এ বাজেটকে অবাস্তব ও ধনী তোষনের বাজেট বলে মন্তব্য করেছেন। আজ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ২০২১-২২ অর্থ বছরের বাজেট প্রস্তাব পেশ করেন।

আজ তাৎক্ষণিক দেয়া প্রতিক্রিয়ায় বাম গণতান্ত্রিক জোট কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সমন্বয়ক ও বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজের দেয়া এক বিবৃতিতে এ মন্তব্য করা হয়েছে।

বিবৃতিতে তারা বলেছেন, করোনাকালের ঘোষিত দ্বিতীয় বাজেট বিশাল আকারের হলেও তাতে করোনা আঘাত মোকাবেলায় সুস্পষ্ট কোন দিক নির্দেশনা বা বরাদ্দ নেই। ঘোষিত বাজেটে ধনীদের কর্পোরেট কর কমানো, কালো টাকা ও অপ্রদর্শিত টাকাকে সাদা করার সুযোগ দেয়া সহ আমলা ধনীকে খুশি করার দিকেই সরকার মনযোগ বেশি দিয়েছে। ভ্যাট-ট্যাক্সসহ পরোক্ষ করের বোঝা বাড়িয়ে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি আরও বাড়ানো হচ্ছে। ৪২ শতাংশ কর্মসংস্থানের ও খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্র কৃষি খাত, ১৭ কোটি মানুষের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বরাবরের ন্যায় উপেক্ষিত থেকেছে। করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া আড়াই কোটি নতুনসহ ৪২ শতাংশ দারিদ্রসীমার নীচে চলে যাওয়াসহ অসংগঠিত খাতে সাড়ে পাঁচ কোটি শ্রমজীবীর জন্য কোন সুরক্ষা ব্যবস্থা গ্রাম-শহরের শ্রমজীবী-মধ্যবিত্ত জনগণের জন্য রেশনসহ খাদ্য নিরাপত্তার জন্য বরাদ্দ ঘোষিত বাজেটে নেই।

বিবৃতিতে জোট বলেছে, বিশাল আকারের বাজেট ও অনেক কথার চাতুরিতে বাজেটে জনগণের মূল সমস্যাকে আড়াল করা হয়েছে। তিনি ঘোষিত বাজেটকে প্রত্যাখ্যান করে ১৭ কোটি মানুষের স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষি, সামাজিক নিরাপত্তা, কর্মসংস্থানসহ জনস্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে এবং সকল মানুষকে টিকার আওতায় আনার রোড ম্যাপও বাজেটে ঘোষণা করার আহ্বান জানান।

গতকাল বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিবির পক্ষ থেকে এ বাজেটকে গরীব মারার বাজেট হিসেবে আখ্যায়িত করে বাজেট প্রস্তাবণা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। দলটি বলেছে, করোনা মহামারি বিপর্যয়কে বাজেটে মোকাবিলার কোন দিক নির্দেশনা নেই। তারা দেশের অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের কোটি নাগরিকের বেকারত্ব ও বিদেশ ফেরত বেকারদের জন্য বাজেটে কোন বরাদ্দ না থাকায় এ বাজেটকে ধনী তোষনের বাজেট বলে আখ্যায়িত করে। সমাজ তান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের পক্ষ থেকেও বাজেটকে ধনী তোষনের বাজেট বলে অখ্যায়িত করে এ বাজেটকে প্রত্যাখান করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়