নিয়ামতির মৃৎশিল্পীদের পাশে থাকবে পুনাক

আগের সংবাদ

বিজিএমইএ ভবনের সামনের সড়ক উন্নয়নের আহ্বান

পরের সংবাদ

প্রস্তাবিত বাজেটে সংখ্যালঘুদের বরাদ্দ মাত্র ১ দশমিক ৯৩ শতাংশ

প্রকাশিত: মে ২৯, ২০২১ , ৯:৩৭ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ২৯, ২০২১ , ৯:৩৮ অপরাহ্ণ

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ২০২১-২০২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট আগের মতোই যৎসামান্য বরাদ্দ রাখায় তীব্র ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। এবারের প্রস্তাবিত বাজেটের মাত্র ১.৯৩ শতাংশ ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

শরিবার (২৯ মে) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে সংগঠনের সভাপতি সাবেক সাংসদ ঊষাতন তালুকদার, ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ড. নিমচন্দ্র ভৌমিক ও নির্মল রোজারিও এবং সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত বলেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত ধর্ম মন্ত্রণালয়ের বাজেটে চলমান প্রকল্প ও অন্যান্য খাতে মোট বরাদ্দ হিসেবে ১৫ হাজার ৫৪ কোটি ৩ লাখ টাকা রাখা হলেও এর মধ্যে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২৯০ কোটি ৮ লাখ টাকা যা মোট প্রকল্প বরাদ্দের মাত্র ১.৯৩ শতাংশ।

বিবৃতিতে পরিষদের নেতারা বলেন, স্বাধীনতা-পরবর্তী বৈষম্য-বঞ্চনায় ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উন্নয়নে বাজেটে ধারাবাহিকভাবে কোনরূপ প্রতিফলন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না, যা দুঃখজনক। বাজেটে সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্পখাতে বিশেষ অর্থ বরাদ্দ থাকলেও একইভাবে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ধর্মীয় সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উন্নয়নে কোন বরাদ্দ নেই। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতায় ধর্মীয় শিক্ষা, সংস্কৃত ও পালি বোর্ড এবং এর অধীনে পরিচালিত টোল ও পালি প্রতিষ্ঠানসমূহ একেবারেই জরাজীর্ণ ও সাইনবোর্ড সর্বস্ব হয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

বিবৃতিতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উন্নয়নে ধারাবাহিকভাবে দীর্ঘকালব্যাপী চলমান বৈষম্য নিরসনে কমপক্ষে ৫ হাজার কোটি টাকা থোক বরাদ্দের পাশাপাশি প্রতিবেশী ভারত, পাকিস্তানের অনুরূপ বাংলাদেশেও সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠার জোর দাবি জানানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়