সঙ্কোচের বিহ্বলতায় নিজেরে অপমান

আগের সংবাদ

কবিতার অনুপম বাতিঘর

পরের সংবাদ

এডিপি বাস্তবায়নে ধীরগতি

কাক্সিক্ষত গতি আনতে যথাযথ পদক্ষেপ নিন

প্রকাশিত: মে ২১, ২০২১ , ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ২১, ২০২১ , ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

খবরে প্রকাশ, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি এডিপি বাস্তবায়নে কিছুতেই গতি আসছে না। বিষয়টি বাংলাদেশের জন্য নতুন ঘটনা নয়। অবশ্য এ বছরের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। করোনা মহামারির কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশেও সার্বিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে বিভিন্ন মাত্রায় অচলাবস্থা-স্থবিরতা সৃষ্টি হয়েছে। চলতি অর্থবছরের ১০ মাসে বাস্তবায়ন হয়েছে মাত্র ৪৯.০৯ শতাংশ। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এডিপির বাস্তবায়নের প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। করোনা মহামারির মধ্যেও বরাদ্দের মাত্র সাড়ে ২৫ শতাংশ বাস্তবায়ন করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ। জানা গেছে, উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর আওতায় চলতি অর্থবছরে ২ লাখ ৯ হাজার ২৭২ কোটি টাকা বরাদ্দের মধ্যে জুলাই থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে খরচ হয়েছে ১ লাখ ২ হাজার ৭৩০ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৬৬ হাজার ৪৫৫ কোটি টাকা, বৈদেশিক সহায়তা থেকে পাওয়া ৩৩ হাজার ৫১৭ কোটি টাকা এবং স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব তহবিলের ২ হাজার ৭৫৮ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। গত অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে খরচ হয়েছিল এডিপির ৯৮ হাজার ৮৪০ কোটি টাকা। টাকা খরচ করতে না পারার পেছনে প্রকল্প কর্মকর্তাদের অদক্ষতা ও সুষ্ঠু ক্রয় পরিকল্পনার অভাব রয়েছে। অর্থবছর শুরু হওয়ার আগেই ক্রয় পরিকল্পনা থাকা উচিত, যাতে বাজেট পাস হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঠিকাদারকে কাজ দেয়া সম্ভব হয়। এতে প্রকল্প যথাসময়ে শেষ হবে, অর্থনৈতিক সুবিধা বেশি পাওয়া যাবে। অস্বীকার করার উপায় নেই, দুর্নীতি আমাদের অন্যতম এক সমস্যা। এ কারণে সরকারের জনমুখী অনেক প্রকল্প যথাযথভাবে বাস্তবায়িত হয় না। প্রকল্প বাস্তবায়নে ছোট-বড় সব মন্ত্রণালয়েরই উদ্যোগী থাকা উচিত। কেননা এডিপির অর্থ খরচ হলে তা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধিতে বড় ভূমিকা রাখে। প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী একাধিকবার বেশকিছু অনুশাসন দিয়েছেন। যেমন প্রকল্প কর্মকর্তাদের প্রকল্প এলাকায় অবস্থান করা, জমি অধিগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রকল্প নেয়া। কিন্তু এই অনুশাসন বাস্তবায়ন ও নজরদারিতে তেমন কোনো দৃশ্যমান উদ্যোগ দেখিনি আমরা। এডিপি বাস্তবায়নে বড় দুর্বলতা হচ্ছে মন্ত্রণালয়গুলোর গাফিলতি। এখানে জবাবদিহিতার যথেষ্ট অভাব আছে। নিবিড় তদারকি ও প্রকল্প বাস্তবায়নের সঙ্গে জড়িতদের জবাবদিহিতার আওতায় এলে উন্নয়ন কাজের কাক্সিক্ষত গতি আসবে বলে মনে করি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়