নগরবাসীর ঈদ কাটবে ঘরেই, বন্ধ থাকবে পার্ক পর্যটনকেন্দ্র

আগের সংবাদ

চীনা রাষ্ট্রদূতের কূটনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত মন্তব্যের নিন্দা

পরের সংবাদ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট, ভোগান্তিতে ঘরমুখী মানুষ

প্রকাশিত: মে ১২, ২০২১ , ৪:২০ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ১২, ২০২১ , ৪:২২ অপরাহ্ণ

স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে ঘরমুখী মানুষ বিভিন্ন পরিবহনে গ্রামের বাড়ি ফিরছেন। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর থেকে আজ বুধবার দুপুর পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যাত্রীদের অতিরিক্ত চাপ বেড়ে গেছে, সৃষ্টি হয়েছে দীর্ঘ যানজটের।

নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় ব্যক্তিগত গাড়ি, পিকআপ ভ্যান, ট্রাকসহ বিভিন্ন মালবাহী গাড়ির চাপ লক্ষ্য করা গেছে। এতে সাইনবোর্ড থেকে মেঘনা সেতুর টোলপ্লাজা পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে প্রায় ৩০ কিলোমিটার যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে ঘরমুখী যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। যানজটে আটকে অতিষ্ঠ হয়ে কেউ কেউ হেঁটে রওনা হয়েছেন।

সকাল ১১টার দিকে সোনারগাঁওয়ের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা বাসস্ট্যান্ডে যানজটে আটকে থাকা অবস্থায় আবদুল্লাহ বললেন, স্ত্রী সামিয়া আক্তার নিয়ে গ্রামের বাড়িতে রওনা হন ভোর পাঁচটায়। ঢাকা থেকে গাড়িতে ওঠেন তাঁরা। মোগরাপাড়া চৌরাস্তা আসতে পাঁচ ঘণ্টা সময় লেগে গেছে। বাকি পথের ভোগান্তি মাথায় রেখেই আপনজনের সঙ্গে ঈদ করতে যাচ্ছেন তাঁরা।

প্রাইভেটকারের চালক আবুল হাসেম বলেন, ভোর পৌনে পাঁচটায় ঢাকা থেকে নোয়াখালীর উদ্দেশে রওনা হয়েছেন। পথে পথে শুধু যানজট আর যানজট।

তিনি আরও বলেন, যানবাহনের সংখ্যা বাড়ায়, উল্টো পথে যানবাহন চলায়, মহাসড়কের বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ডে লোকাল বাসের স্ট্যান্ড গড়ে তোলায় এমন যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। গণপরিবহন ছাড়াই মহাসড়কে এমন পরিস্থিতি। গণপরিবহন চলাচল করলে অবস্থা কী হতো?

কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, মেঘনা সেতুর টোলপ্লাজায় টোল আদায়ে কিছুটা ধীরগতি ও অতিরিক্ত গাড়ির চাপের কারণে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় মহাসড়কে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছে হাইওয়ে পুলিশ।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়