নবীগঞ্জে ট্রাকের ধাক্কায় পথচারী যুবক নিহত

আগের সংবাদ

কালো টাকা সাদা নয়

পরের সংবাদ

করোনা থেকে বাঁচতে গোবর মেখে গোসল!

প্রকাশিত: মে ১১, ২০২১ , ১১:৪৩ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ১২, ২০২১ , ১:১৪ পূর্বাহ্ণ

করোনা থেকে বাঁচতে গোবর মেখে সোসল করছেন অনেকে। এমন দৃশ্য দেখা গেছে ভারতের গুজরাটে। তবে এই অভ্যাস নিয়ে সতর্ক করেছেন চিকিৎসকরা। গত কয়েকদিন ধরে গুজরাটে বেশ কয়েকজনকে গোবর মেখে গোসল করতে দেখা যায়। সেই ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায়। এরপরই এই অভ্যাসের প্রেক্ষিতে সতর্ক করেন চিকিৎসকরা। তাদের স্পষ্ট বক্তব্য, গোবরে যে করোনা চলে যায়, এর কোনও বিজ্ঞানসম্মত ব্যাখ্যা বা প্রমাণ নেই। তাছাড়া গোবরের ব্যবহারে অন্য ধরনের সংক্রমণ ও রোগ হতে পারে।

দেখা গেছে গুজরাতে বেশ কয়েকজন মানুষ সপ্তাহে একবার করে গোবর ও গোমূত্র মেখে রাখার অভ্যাস তৈরি করেছে। তাদের বিশ্বাস এর ফলে করোনা থেকে মুক্ত থাকবে তারা। হিন্দু ধর্মের বিশ্বাস অনুযায়ী গোবর পৃথিবী এবং জীবনের প্রতীক। অনেকেই গোবরকে চিকিৎসা কাজে ব্যবহার করে থাকেন আদ্যিকাল থেকে। যদিও এর কোনও বিজ্ঞানসম্মত কারণ নেই। তবে এই আবহে গুজরাতে নাকি এই গোবর মাখার অভ্যাস চিকিৎসকদের মধ্যেও দেখা গেছে!

গৌতম মণিলাল বোরিসা নামক এক ওষুধ প্রস্তুকারক সংস্থার অ্যাসোসিয়েট ম্যানেজারের দাবি, গত বছর তিনি নিজে গোবর মাখার এই অভ্যাসের জেরে করোনা থেকে মুক্তি পান। তিনি বলেন, ‘আমরা তো এখানে ডাক্তারদেরও আসতে দেখি। এটা তাদের বিশ্বাসের উপর নির্ভর করে। এভাবেই তারা নির্ভয়ে রোগীদের চিকিৎসা করতে পারেন।’

এ রাজ্যের জাইডাস ক্যাডিলার হেডকোয়ার্টারের কাছেই অবস্থিত শ্রী স্বামীনারায়ণ গুরুকূল বিশ্ববিদ্যা প্রতিষ্ঠানম। হিন্দু সন্ন্যাসীদের দ্বারা পরিচালিত এই প্রতিষ্ঠানেই অনেকে আসেন গোবর মেখে নিজেদের করোনা ‘মুক্ত’ করতে। প্রথমে গোবর মেখে অনেকক্ষণ থাকার পর তা শুকিয়ে গেলে দুধ দিয়ে তারা সেই গোবরটা ধুয়ে ফেলেন।

এদিকে গোবর মাখার এই বিষয়টি নিয়ে সতর্কবার্তা দিয়েছেন চিকিৎসকরা। ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অসোসিয়েশনের জাতীয় প্রেসিডেন্ট ডা. জেএ জয়ালাল বলেন, ‘কোনো প্রমাণ নেই যে গোবর বা গোমূত্রের ফলে করোনা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়, বা ইমিউনিটি বাড়ে। এটা পুরোপুরি বিশ্বাস থেকে করা হচ্ছে। এছাড়া এর জেরে অন্যান্য রোগ ছড়ানোর আশংকা থেকে যায়।’

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়