গন্তব্যে ফেরার জন্য গাড়ির ভাড়া দরদাম করছেন এক পরিবার

আগের সংবাদ

বজ্রপাত রুখতে কৃষকের ছাউনি

পরের সংবাদ

মায়ের সঙ্গে ছবি দিয়ে ধর্মীয় রোষানলে চঞ্চল চৌধুরী

প্রকাশিত: মে ১০, ২০২১ , ২:২২ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ১০, ২০২১ , ২:৪৯ অপরাহ্ণ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মা দিবসে মায়ের সিঁদুর দেওয়া ছবি দিয়ে ধর্মীয় রোষানলে পড়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। ছবিতে অনেকেই নেতিবাচক ও বিব্রতকর মন্তব্য করেন।

মন্তব্যগুলো থেকে বুঝা যায়, অনেকেই জানতেন বা ভাবতেন চঞ্চল চৌধুরী মুসলিম। আর এই ছবিটি প্রকাশ হওয়ার পর তাদের ভাবনায় ছেদ পড়ে।

এ বিষয়টিকে নিয়ে সোমবার ফেসবুকে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন অভিনেতা চঞ্চল। ভিডিওতে দেখা যায় ধর্ম নিয়ে একটি কবিতা লিখেছেন তিনি। পরে সেটি আবৃত্তি করেন। কবিতাটি হলো- ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি মানুষ নিয়ে নয়। এমনি করেই সভ্যতা শেষ, হচ্ছো তুমি ক্ষয়। ধর্ম রক্ষার ঝান্ডা তোমায় কে দিয়েছে ভাই…।

নাইম ইসলাম নামে একজন লিখেছেন, আমি এত দিন আপনাকে মুসলমান ভেবে আসছি। কী একটা ছ্যাঁকা খেলাম।

কমেন্টে শামীম মুসাব্বির নামে একজন ছবির মন্তব্যের ঘরে লিখেছেন, আমার সবচেয়ে বড় পরিচয় হলো আমি মুসলিম। আমি আপনাকে সাপোর্ট করতে পারি না। দোয়া ও শুভ কামনা রইলো, ইসলাম ধর্মকে ভালোভাবে বোঝেন ও জানেন। তারপর ইসলামকে সেরা ধর্ম হিসেবে গ্রহণ করেন।

আল সাদি প্রিয়াল লিখেছেন, “এই ছবি না দেখলে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ভাবতাম আপনি মুসলিম। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করুন।”এনতাজুল ইসলাম নামে একজন অন্য সব ধর্মকে অসত্য উল্লেখ করে লেখেন, “সকল মানুষ মুসলিম হিসেবে জন্মগ্রহণ করে। কিন্তু পারিপার্শ্বিক অবস্থা আর বাপ-দাদার বংশ সম্মান রক্ষা করতে গিয়ে যখন সে মূর্তিপূজা করে, তখন সে হিন্দু হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। ইসলাম একমাত্র সত্য ধর্ম। বাকি সবগুলো এখন মিথ্যা, যার অস্তিত্ব বয়ে বেড়ানো বোকামি ছাড়া আর কিছুই না।”

নেতিবাচক এই মন্তব্যে চঞ্চল লিখেছেন, ভ্রাতা ও ভগ্নিগণ। আমি হিন্দু নাকি মুসলিম তাতে আপনাদের লাভ বা ক্ষতি কী? সকলেরই সবচেয়ে বড় পরিচয় ‘মানুষ’। ধর্ম নিয়ে এ সকল রুচিহীন প্রশ্ন ও বিব্রতকর আলোচনা সকল ক্ষেত্রে বন্ধ হোক। আসুন, সবাই মানুষ হই।

পল্লব মল্লীক আসিস নামের একজন মন্তব্য করেন, উনাকেও আজ সাম্প্রদায়িকতার স্বীকার হতে হলো দেখে খুব খারাপ লাগলো। কিছু মানুষ ধর্মকে এমন পর্যায়ে নিয়ে গেছে যেন ধর্ম একটা পোশাক বা বস্তুর ন্যায়। এরা সবাই চোখ দেখানো ধর্মকে ইঙ্গিত করে কিন্তু এই মূর্খগুলো বোঝে না যে ধর্ম হলো একটি মানুষের বৈশিষ্ট্য যার দ্বারা মানুষ পরিপক্ব হয়। যেমন চুম্বকের ধর্ম লোহাকে আকর্ষণ করা, ঠিক তেমনি মানুষের ধর্ম হলো হিংসা, অহংকার, লোভ, ক্রোধকে বর্জন করা এবং ধৈর্যকে ধারণ করে নিজেকে উত্তম চরিত্রের মানুষ হিসেবে গঠন করা হোক সে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান এটাই হলো ধর্মের সার যার ফলে মানবজাতি সুখি হবে। অন্যথা শুধু অধর্মই হবে আর সব ধ্বংস হবে খুব শীঘ্রই।

চঞ্চল চৌধুরীর এই মন্তব্যটির সঙ্গে ইতোমধ্যে ১৬ হাজারের বেশি অনুসারী সহমত প্রকাশ করেছেন। তার সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন সহস্রাধিক ভক্ত। সবাই বুঝিয়ে দিলেন, মা তো মা-ই। মানুষকে মানুষ হিসেবেই সবার মূল্যায়ন করা উচিত, ধর্ম দিয়ে নয়।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়