পূর্ণ লকডাউন ঘোষণা মালয়েশিয়ায়

আগের সংবাদ

রাগ চেপে রাখতে পারেননি জিদান

পরের সংবাদ

বাঁশের তৈরি ক্রিকেট ব্যাট ভালো বেশি!

প্রকাশিত: মে ১০, ২০২১ , ৮:৪৭ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ১০, ২০২১ , ৮:৪৭ অপরাহ্ণ

ক্রিকেট ব্যাট আরো ভালো ও যুগোপযোগী করে তৈরি করার জন্য চেষ্টা চলছে পুরো পৃথিবীজুড়ে। এরই অংশ হিসেবে ইংল্যান্ডের ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন বিজ্ঞানী বাঁশ দিয়ে ক্রিকেট ব্যাট তৈরি করে তা পরীক্ষা করেছেন। ইংল্যান্ডে ক্রিকেট ব্যাট বানানো হয় সালিক্স আলবা গাছের কাঠ দিয়ে, যা উইলো নামে পরিচিত। আর বাঁশ দিয়ে তৈরি ক্রিকেট ব্যাট পরীক্ষা করে তারা দেখেছেন এই ব্যাট উইলো ব্যাটের চেয়ে তিন গুণ বেশি ভালো, এটির মাধ্যমে শট আরো জোরে করা যায়। আর এই ব্যাট দিয়ে বল শট করলে বল আরো বেশি দ্রুত গতিতে যায়। এমনকি উইলো ব্যাটের চেয়ে বাঁশের তৈরি ব্যাট হালকাও। খবর ডেইলি মেইল।

বাঁশের তৈরি ব্যাট যে শুধু খেলোয়াড়দের জন্যই ভালো তা নয়। এই ব্যাট বানাতে খরচ কম, গাছ কাটতে হয় না এবং এটি সহজলভ্য। আর পুরো পৃথিবীতে বাঁশের অনেক উৎপাদন হয়। বাঁশ খুব দ্রুত বাড়ে ও বড় হয়। ফলে কাঁচা মালের কোনোদিন ঘাটতি হবে না। কিন্তু বর্তমানে ক্রিকেট ব্যাট বানানোর জন্য যে সালিক্স আলবা গাছ ব্যবহার করা হয় সেই গাছের সংখ্যা দিন দিন কমে আসছে কিন্তু সে অনুযায়ী গাছের সংখ্যা বাড়ছে না। তাছাড়া এই গাছ পূর্ণ বয়স্ক হতে প্রায় ১৫ বছর সময় লাগে। যা বেশ সময় সাপেক্ষ।

বাশের তৈরি ক্রিকেট ব্যাট হাতে ইংল্যান্ডের ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী ডা. দারশিল শাহ

যেহেতু বাঁশের ব্যাট দিয়ে তিন গুণ জোরে বল শট করা যায় ফলে বর্তমানে খেলোয়াড়রা যে মাপের ও ওজনের ব্যাট ব্যবহার করেন সেটির ওজন ও মাপ কমিয়ে ফেলা যাবে। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী ডা. দারশিল শাহ ও তিন ক্লার ডেভিসের মাথায় বাঁশ দিয়ে ক্রিকেট ব্যাট বানানোর চিন্তাটি মাথায় আসে। আর এজন্য তারা ব্যাট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান জেরার্ড এন্ড ফ্ল্যাকের সঙ্গে এক হয়ে বাঁশ কেটে ছোট ছোট করে তা জোড়া দিয়ে ক্রিকেট ব্যাটের আকৃতি দেন। এরপর সেই ব্যাট নিয়ে বেশ কয়েকদিন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালান। আর সেই পরীক্ষায় দেখা যায় বাঁশের তৈরি ক্রিকেট বেশ উইলো ব্যাটের চেয়ে ভালো।

ডা. দারশিল শাহ জানান উইলো ব্যাট দিয়ে বল শট করার সময় হাত যতটা ঝাঁকুনি খায় বাঁশের ব্যাটেও হাত প্রায়ই একই রকম ঝাঁকুনি খায়। আর বাঁশের ব্যাটে স্ট্রোকও বেশি। মানে বাঁশের ব্যাটের অনেকটা জায়গাজুড়ে রয়েছে সুইট স্পট। যেখানে বল লাগলে বেশি দূর যায়। তাছাড়া এই বাঁশের ব্যাটের মাধ্যমে ইয়র্কার বলে চার মারাটাও সহজ হবে বলে জানিয়েছেন দারশিল।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়