সড়ক ও মার্কেট-শপিংমলসহ সর্বত্রই মানুষের উপচেপড়া ভিড়

আগের সংবাদ

মমতাকে অভিনন্দন জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

পরের সংবাদ

খালেদা জিয়াকে বিদেশ যেতে ‘অনুমতি’

প্রকাশিত: মে ৬, ২০২১ , ৪:০৮ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ৬, ২০২১ , ৪:২৩ অপরাহ্ণ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার ক্ষেত্রে সরকার ‘রাজি’ হয়েছে। বিএনপি চেয়ারপারসন সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে এমন দাবি করা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, সরকার খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিত করে তার বিদেশ যাওয়ার জন্য মৌখিকভাবে সম্মতি দিয়েছে এবং কোন দেশে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা নিশ্চিত করা যায় সে ব্যাপারে চিন্তাভাবনা চলছে। সিঙ্গাপুর বা লন্ডনে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য যাবেন।

সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলে রাত আটটার দিকে চার্টার্ড বিমানে করে তিনি ঢাকা ত্যাগ করবেন।

এর আগে বিদেশে পাঠানোর আবেদন নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় সাক্ষাৎ করতে গেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ভাই শামীম ইস্কানদারসহ পরিবারের সদস্যরা।

জামিনে থাকা খালেদা জিয়া বর্তমানে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার শারীরিক নানা জটিলতা দেখা দিয়েছে।

এদিকে, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানো নিয়ে আগে থেকেই তোড়জোড় শুরু করে তার পরিবার। খালেদা জিয়ার পাসপোর্ট নবায়ন থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও এয়ার অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখাসহ সব কাজ গুছিয়ে আনা হয়েছে। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি দেখভাল করছেন। ভাই শামীম এস্কানদারকে নিয়ে লন্ডনের উদ্দেশে রওনা হবেন বিএনপি প্রধান। দলটির নির্ভরযোগ্য সূত্র এমন তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ায় খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে চায় পরিবার। এ জন্য গত সোমবার রাতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন।

এর আগে গত ১১ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি চিঠিও দেয়া হয়েছে পরিবারের পক্ষ থেকে। তবে অত্যন্ত গোপনীয়তা ও সতর্কতার সঙ্গে সরকারের উচ্চ মহলে যোগাযোগ চলছে। কৌশলগত কারণে দুপক্ষের কেউই এ বিষয়ে মুখ খুলছেন না।

গত ২৭ এপ্রিল রাতে খালেদা জিয়াকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পরদিন বিএনপি প্রধানের চিকিৎসার জন্য ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। আর গত সোমবার বিকালে তাকে সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। এর আগে গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার করোনা টেস্টের রিপোর্ট পজেটিভ আসে।

সর্বশেষ ২০১৭ সালের ১৬ জুলাই চিকিৎসার জন্য লন্ডন যান খালেদা জিয়া। সেখান থেকে এক মাসের মধ্যেই ফেরার কথা থাকলেও চিকিৎসায় সময় লাগায় দেশে ফিরতে দেরি হয়। ওই বছর ১৮ অক্টোবর দেশে ফেরেন তিনি।

এফবি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়