বিনা কারণে অক্সিজেনের আবেদন যুবকের, পরে কি করল পুলিশ

আগের সংবাদ

নির্বাচনী ব্যস্ততার পর ছেলের সঙ্গে একান্ত সময় রাজের

পরের সংবাদ

চট্টগ্রামে ভারতীয় করোনা পাওয়া যায়নি, দাপট যুক্তরাজ্যের

প্রকাশিত: মে ৪, ২০২১ , ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মে ৪, ২০২১ , ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের যুক্তরাজ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকার ধরন দুটির দাপট বেশি বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত নিয়ে খুব বেশি আতঙ্কে থাকলেও স্বস্তির বিষয় এখনও ভারতীয় কোন ধরন পাওয়া যায়নি চট্টগ্রামের নমুনায়।

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) একদল গবেষক ১০ জন রোগীর নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স করে এ তথ্য পাওয়ার কথা জানিয়েছে। তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে আরো বড় পরিসরে জিনোম সিকোয়েন্স করা দরকার বলে মনে করছেন অনেকে।

গত মার্চ থেকে বাংলাদেশে কভিড-১৯ সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে। চট্টগ্রাম অঞ্চলে ভাইরাসটির কোন ভেরিয়েন্ট এ ঢেউয়ের জন্য দায়ী, তা নির্ণয়ে স্বল্প পরিসরে কাজ শুরু করে সিভাসু। সিভাসুর উপাচার্য গৌতম বুদ্ধ দাশের নেতৃত্বে পোলট্রি রিসার্চ ও ট্রেনিং সেন্টারে (পিআরটিসি) একদল গবেষক ১০ জন রোগীর নুমনা নিয়ে জিনোম সিকোয়েন্স করেন। এর মধ্যে ১০টি নমুনার ৬টিতেই যুক্তরাজ্য ও তিনটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার ধরন পাওয়া গেছে৷

গবেষক দলের অন্য সদস্যরা হলেন- অধ্যাপক ড. পরিতোষ কুমার বিশ্বাস, অধ্যাপক ড. শারমিন চৌধুরী, ডা. ইফতেখার আহমেদ রানা, ডা. ত্রিদীপ দাশ, ডা. প্রাণেশ দত্ত, ডা. মো. সিরাজুল ইসলাম ও ডা. তানভীর আহমদ নিজামী।

সিভাসু থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি মূল্যায়ন করে এ গবেষণা কার্যক্রম চালানো হয়েছে। গবেষণার অংশ হিসেবে SARS-CoV-2 বা নোভেল করোনাভাইরাসের পূর্ণাঙ্গ জিনোম সিকুয়েন্স বা জীবন রহস্য উন্মোচন করার জন্য ১০টি নমুনা পাঠানো হয় বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসাআইআর), ঢাকায়। এরপর বিসিএসআইআর-এর দুইজন গবেষক ড. মো. সেলিম খান ও ড. মো. মোরশেদ হাসান সরকার এ গবেষণায় যোগ দেন। তবে গবেষণাটি মূলত চট্টগ্রামকেন্দ্রিক করা হয়েছে।

সেই ফলাফলে দেখা যায়, দশটি নমুনার মধ্যে ছয়টিতে করোনাভাইরাসের যুক্তরাজ্যের ধরনের (B.1.1.7) উপস্থিতি রয়েছে এবং তিনটিতে দক্ষিণ আফ্রিকান ধরন (B.1.351) রয়েছে। তবে যে ধরন (B.1.617) বর্তমানে ভারতে চিহ্নিত হয়েছে, তার উপস্থিতি নেই। বিভিন্ন বয়সের আক্রান্ত রোগীর কাছ থেকে নমুনাগুলো সংগ্রহ করা হয়। ওই আক্রান্ত রোগীদের পাঁচজনকে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে হয়েছিল।

১০টি নমুনা বিশ্লেষণে দেখা যায়, কভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ে চট্টগ্রাম অঞ্চলে ৫ এপ্রিলের আগেই যুক্তরাজ্যের ধরনের উপস্থিতি থেকে থাকতে পারে। একই সময়ে দক্ষিণ আফ্রিকান ধরনও ছিল। তবে আরো বেশি নমুনা থেকে ভাইরাসের জিনোম সিকুয়েন্স করলে প্রকৃত চিত্রটি স্পষ্ট হত। এছাড়া এই ১০টি নমুনার জিনোম সিকুয়েন্সের তথ্য পাবলিক ডাটাবেজ GISAID-এ জমা দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ বলেন, দুই দেশের সঙ্গে করোনার ধরন মিলেছে। তবে ভারতের সঙ্গে মিলেনি। ভারতের ব্যাপারে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে যাতে তাদের দেশ থেকে বাংলাদেশে এ ধরনের ভাইরাস প্রবেশ না করে।

সিভাসু করোনা সংক্রমণের শুরুর দিকে আরটি–পিসিআর ল্যাব স্থাপন করে রোগ শনাক্তে সহযোগিতা করে আসছে। এ ছাড়া রোগীদের ওপর বিভিন্ন গবেষণা পরিচালনা করছে। সম্প্রতি করোনার টিকার প্রথম ডোজ গ্রহণকারী ২০০ জনের ওপর গবেষণা চালিয়েছে। তাতে টিকা গ্রহণকারীরা আক্রান্ত হলেও তুলনামূলক কম ঝুঁকিতে পড়ছেন বলে তাঁদের গবেষণায় উঠে আসে। এরপর ভাইরাসের জীবন রহস্য উন্মোচনে হাত দেন এখানকার গবেষকেরা।

এমআই

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়