মেসি-রোনালদোর গন্তব্য কোথায়?

আগের সংবাদ

প্রাণিজ আমিষ নিশ্চিতে কাজ করে যাচ্ছে মন্ত্রণালয়

পরের সংবাদ

লকডাউনে ইন্টারভিউ দিতে এসে পদ্মায় প্রাণ গেল জবি শিক্ষার্থীর

প্রকাশিত: মে ৩, ২০২১ , ১০:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: মে ৪, ২০২১ , ১:০৯ পূর্বাহ্ণ

চাকরির ইন্টারভিউ দিতে ঢাকায় এসেছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী শাহাদাত হোসেন মোল্লা। ইন্টারভিউ শেষে জীবিত বাড়ি ফেরা হলো না তার। সোমবার (৩ মে) মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাঁঠালবাড়ীর বাংলাবাজার পুরোনো ঘাটে বালুবোঝাই একটি বাল্কহেডের সঙ্গে ধাক্কা লেগে স্পিডবোট ডুবিতে নিহত ২৬ জনের মধ্যে তিনি একজন।

শাহাদাতের বাড়ি মাদারীপুরেরর শিবচর উপজেলার নিয়ামতকান্দী গ্রামে। আদম আলী মোল্লা ও রিজিয়া বেগম দম্পতির ছয় ছেলে ও চার মেয়ের মধ্যে সবার ছোট ছিলেন শাহাদাত। তিনি এ বছর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পাস করেন। শাহাদাত হোসেন মোল্লার চাচাতো ভাই সাবেক মেম্বার দাদন মোল্লা (৬০) বলেন, ‘এ বছর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পাস করেন শাহাদাত। চাকরির ইন্টারভিউ দিতে ঢাকা যান। ইন্টারভিউ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। চাকরি করা হলো না শাহাদাতের। লাশ হয়ে তাকে ফিরতে হলো। আমরা কী বলে সান্ত্বনা দেব ওর পরিবারকে?’

কান্না করতে করতে তিনি আরও বলেন, ‘আদরের ছোট ভাই শাহাদাত। লকডাউনের ভেতর ঢাকা যেতে না বলেছিলাম। তবুও গেছে। ভাই, তোকে হারালাম ভাই।’ মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে পৌনে ৭টায় ৩২ জন যাত্রী নিয়ে স্পিডবোটটি ছেড়ে আসে। এসময় মাদারীপুর কাঁঠালবাড়ী বাংলাবাজার পুরোনো ঘাটে থেমে থাকা বালুবোঝাই একটি বাল্কহেডে ধাক্কা খেয়ে ডুবে যায় স্পিডবোটটি। দুর্ঘটনায় ২৬ জন নিহত ও কয়েকজন আহত হন।

এ বিষয়ে জবি প্রক্টর অধ্যাপক ড.মোস্তফা কামাল বলেন, শাহাদাতের মৃত্যুতে আমরা শোকাহত। এভাবে একজন মেধাবী শিক্ষার্থীর প্রাণ চলে গেল। কোনোভাবে মেনে নেয়া যায় না। স্পিডবোট চালকদের আরো প্রশিক্ষণ ও সতর্কতা মেনে চলতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি নজরদারির আহ্বান জানাই। তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়